ঢাকা, রবিবার 28 May 2017, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪, ১ রমযান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

দেশে দেশে মাহে রমজান 

আলম শামস ; হিজরি সনের নবম মাস মাহে রমজান। মহান আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কুরআনে সুরা আল-বাকারার ১৮৫নং আয়াতে এরশাদ করেন- “রমজান সেই মাস, যাতে কুরআনকে অবতীর্ণ করা হয়েছে। যে কুরআন মানবজাতির পথপ্রদর্শক এবং যাতে সঠিক পথের নিদর্শনসমূহ প্রদত্ত হয়েছে এবং যা সত্য ও মিথ্যার প্রভেদকারী। অতএব এই মাস যারা প্রত্যক্ষ করবে তাদেরকে সিয়াম পালন করতে হবে। আর যদি কেহ অসুস্থ হয় কিংবা ভ্রমণ অবস্থায় থাকে, তবে সে যেন অন্যান্য দিনে এই সিয়ামের সংখ্যা পূর্ণ করে লয়। বস্তুত আল্লাহ তোমাদের কাজ সহজ করে দিতে চান, কোনোরূপ কঠোরতা আরোপ করা আল্লাহর ইচ্ছা নেই। তোমাদের এই জন্য বলা হচ্ছে যে, তোমরা সিয়ামের সংখ্যা পূরণ করতে পার এবং আল্লাহ তোমাদের যে সত্য পথের সন্ধান দিয়েছেন সেই জন্য আল্লাহর কৃতজ্ঞ বান্দা হতে পার’’। এই মাসে আল্লাহ তা’য়ালা প্রাপ্ত বয়স্ক সকল ইমানদার মুসলমান নর-নারীদের উপর সিয়াম সাধনা ফরজ করে দিয়েছেন।

মাহে রমজান আত্মশুদ্ধির মাস। সুবহে সাদিক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত সকল পানাহার কামাচার থেকে বিরত থাকেন রোজাদাররা। 

প্রাকৃতিকভাবে সূর্যের অবস্থানের ওপর ভিত্তি করে বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে ও দেশে রোজা রাখার সময় কম-বেশি হয়। দেশের ভৌগোলিক অবস্থানের ভিত্তিতেই নির্ধারিত হয় এই সময়।

এ কারণেই সময়ের তারতম্য হয়ে থাকে। কোথাও ২২ ঘণ্টা আবার কোথাও ১০ ঘণ্টারও কম। গত ৩০ বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘ সময় সিয়াম পালন করতে হবে সুমেরীয় অঞ্চলের মুসলিমদের। স্ক্যান্ডিনেভিয়ান দেশগুলোতে গত বছর ২০ ঘণ্টার বেশি সময় তাদের পানাহার থেকে বিরত থাকতে হয়েছে। অথচ শীতকালে এ অঞ্চলের মুসলিমদের সিয়াম সাধনা করতে হয় মাত্র আট ঘণ্টার মতো। অন্যদিকে আমাদের বাংলাদেশে রোজার সময় হবে প্রায় ১৪ ঘণ্টা। যুক্তরাজ্যের মধ্যে সবচেয়ে দীর্ঘ সময় উপোস থাকতে হবে স্কটিশ হাইল্যান্ডস ও আয়ারল্যান্ডের বাসিন্দাদের। ওখানে সূর্যাস্ত যায় না বললেই চলে।

আর প্রায় আমাদের বাংলাদেশের মতই প্রতিবেশী ভারত পাকিস্তান মায়ানমার আফগানিস্তÍানের মুসলমানেরা রোজা পালন করেন। আমাদের মতই রোজার মোট সময় প্রায় কাছাকাছি। পাশাপাশি দেশ হওয়াতে ধর্মীয় কৃষ্টি কালচারেও রয়েছে যথেষ্ট মিল।

সৌদি আরব :

সেখানে রমজান উপলক্ষে বিভিন্ন কোম্পানির জিনিসে থাকে বিশেষ ছাড়। নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য থাকে হাতের নাগালে। আর ক্রয়-অক্ষম মানুষদের জন্য বাদশার পক্ষ থেকে দেয়া হয় গিফট বক্স। যাতে থাকে তেল-চিনি-দুধসহ অন্যান্য দ্রব্য।

মহিমান্বিত রমজান মাস পালনে সৌদিতে মাস দুয়েক আগ থেকে চলে প্রস্তুতি। একে অপরে দেখা হলেই ‘শাহরু আলাইকা মুবারাকা’ বলে কুশল বিনিময় করেন। রমজান শুরু হওয়ার সপ্তাহ-দশ দিন আগে থেকেই এখানে রাস্তার পাশে কিংবা বাজার-মার্কেটে শোভা পায় সারি সারি তাঁবু।

অনেকগুলো আবার শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত। রোজাদারদের ইফতার করানোর জন্যই তৈরি করা হয় এসব। তাঁবুগুলোতে ব্যবস্থা করা হয় ভালো ইফতারের। খেজুর, বোতলজাত পানি, জুস, মাঠা, ফল, কফি, চিকেন বিরিয়ানি, এলাকাভিত্তিক ঘরোয়া খাবার ইত্যাদি। পুরো রমজান মাসে ভিনদেশি শ্রমিকদের ইফতার বা সেহেরি কখনো কিনতে হয় না। এসব কাজ পুরোপুরি নিজস্ব উদ্যোগেই হয়ে থাকে।

মিসর :

রমজানে এখানে অফিসের কর্মঘণ্টা কমানো হয় যাতে সিয়াম পালনকারীরা মসজিদে ইবাদতে পর্যাপ্ত সময় পান। দিনের কাজকর্ম করে তারা রাতে কিয়ামুল লাইল, তারাবি এবং কুরআন তিলাওয়াত করে কাটিয়ে দেন। জোহরের সালাতের পর থেকে ‘বাজারের শহর’ নামে খ্যাত রাজধানী কায়রো শহরের অলিগলিতে ঢাকার চকবাজারের ন্যায় ছড়িয়ে পড়ে হরেক রকম ইফতারের আয়োজন। ইফতারে ঐতিহ্যবাহী পানীয় ‘শরবত কামার আল দীন’ সব বয়সীরা পান করে থাকে।

মরুভূমির এই দেশে ইফতারিতে খেয়ে থাকে ‘কানাফা’ নামক পিঠা যা আটা, বাদাম, মধু, কিশমিশ ও চিনি দিয়ে তৈরি করা হয়। আরেক ধরনের গোলাকার ছোট পিঠা ‘তায়েফ’ তাতে বাদাম ও কিশমিশ বেশি থাকে তাও খেয়ে থাকেন।

মিসরীয় শিশুদের কাছে রমজান মাসটি সবচেয়ে বেশি আনন্দময়। তারা এ সময় আমাদের দেশের বাচ্চাদের মতো পিতা-মাতার কাছে সিয়াম রাখার জন্য দাবি জানায়। মিসরের মুসলমানরা ইফতার করেন আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধু-বান্ধবের বাসায়।

সুদান :

আফ্রিকা মহাদেশের বড় একটি মুসলিম দেশ হলো সুদান, যার রাজধানীর নাম হচ্ছে খার্তুম। এখানে ইফতারি সাধারণত খেজুর দিয়ে শুরু করা হয়। তা ছাড়া ‘হামড়া’ ‘লাহমা’ নামক গোশত দিয়ে তৈরি খাদ্য খেয়ে থাকে। চালের তৈরি ‘আছিদা’ এক ধরনের পিঠা তারা খায়।

গোশত ও সস দিয়ে তৈরি ‘মুলাহ’ নামক খাদ্যও ইফতারিতে খায় এবং একই সঙ্গে ‘গাওয়া’ নামক চা জাতীয় পানীয় তারা পান করে। সুদানিরা ‘শোরবা’ নামক স্যুপ, মাংস দিয়ে তৈরি ‘মুহাম্মার’ নামক খাবার, দুধ ভাত দিয়ে তৈরি ‘রুসবিল হালিব’ সালাদ দিয়ে খায়। তদুপরি পায়েস, ক্ষির, ফিরনি এগুলো তৃপ্তির সঙ্গে খেয়ে থাকে।

যুক্তরাষ্ট্র :

এখানে আছে প্রায় ৭০ লাখ মুসলমান। বেশির ভাগ মুসলমান বাস করেন ক্যালিফোর্নিয়া, নিউইয়র্ক, নিউজার্সি, ইলিনয়েস, ইস্তিয়ানো, মিশিগান. টেক্সাস, ভার্জিনিয়া ও মেরিল্যান্ড অঙ্গরাজ্যগুলোতে। এশিয়ান মুসলিমরা যারা এখানে বসবাস করেন তারা তাদের সংস্কৃতির অঙ্গ হিসেবে পায়জামা, পাঞ্জাবি, কাবুলি সেট কোর্তা পরিধান করেন এবং মহিলা ও শিশুরা মেহেদি দিয়ে হাত রাঙান।

অন্যদিকে আফ্রিকান মুসলিম যারা এখানে থাকেন তারা তাদের ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরিধান করেন। আমেরিকায় ইফতার সামগ্রীর মধ্যে খেজুর, খোরমা, সালাদ, পনির, রুটি, ডিম, গোশত, ইয়াগার্ট, হট বিনস, স্যুপ, চা ইত্যাদি থাকে। রমজান মাসে হোয়াইট হাউসে ইফতার পার্টি প্রথম শুরু করেছিলেন সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন। এটা বর্তমানে একটি প্রথা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

কানাডা :

রাজধানী অটোয়ায় সর্বাধিক মুসলমান বসবাস করে, সংখ্যা প্রায় ৬০ হাজার। অটোয়া ছাড়াও সাসকেচুয়ান, অল্টারিও, সিনেটোবা, টরেন্টো, কুইবেক রাজ্যগুলোতে মুসলমানরা বসবাস করেন।

রমজানে ইফতার পার্টির আয়োজন চলে মহাসমারোহে এবং প্রতি শনিবার অটোয়া ইসলামিক সেন্টারের ইফতার পার্টিতে দেশ-বিদেশের অসংখ্য মুসলমান হাজির হন। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য ‘দ্য মুসলিম স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন ইফতার পার্টির আয়োজন করে। ইফতারিতে খেজুর, খোরমা, পনির, সালাদ, ফল, স্যুপ, জুস, রুটি, ডিম, গোশত, চা-কফি ইত্যাদি থাকে।

ইতালি : 

দেশটির অধিকাংশ অধিবাসী ক্যাথলিক খৃস্টান, তাছাড়া বৌদ্ধ ও ইহুদি আছে। সমগ্র জনসংখ্যার ১% হলো মুসলমান। এই অল্পসংখ্যক মুসলমান রমজানকে ঘটা করে স্বাগত জানায়। ইফতারিতে তারা বার্গার জাতীয় খাদ্য, নানাবিধ ফল যেমন- মাল্টা, আপেল, আঙ্গুর, বিভিন্ন ফলের রস খান। সেহেরিতে বার্গার ও বার্গার জাতীয় খাদ্য বেশি পছন্দ করে থাকে।

জার্মানি :

এখানে প্রায় ৩০ লাখ মুসলমান, যাদের বেশির ভাগ শ্রমিক এবং তারা বিভিন্ন মুসলিম দেশ থেকে এসেছে। বর্তমানে এ দেশে দুই হাজার মসজিদ আছে। শীত মৌসুমে এখানে সূর্য উঠে সকাল ৮টায় এবং সূর্য ডুবে বিকাল ৪টায়। তাই কাজের মধ্যেই ইফতারির সময় হয়ে যায়। বড় বড় প্রতিষ্ঠান সমূহে মুসলমান শ্রমিকদের জন্য ইফতারের আয়োজন করা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ