ঢাকা, মঙ্গলবার 30 May 2017, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২8, ৩ রমযান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

খুলনার কয়রায় ভেঙে যাওয়া বেড়িবাঁধ সকালে আটকানো হলেও দুপুরে বিলীন

খুলনা অফিস : খুলনার কয়রা উপজেলার সদর ইউনিয়নের কপোতাক্ষ নদের ঘাটাখালি ভেঙে যাওয়া বেড়িবাঁধ গতকাল সোমবার সকালে সেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে রিংবাঁধ দিয়ে আটকানো হলেও দুপুরের জোয়ারের প্রবল স্রোতে তা আবার ভেঙে যায়। ফলে পানিবন্দী হাজার হাজার মানুষ মানবেতর জীবন যাপন করছে। এ ঘটনায় এলাকাবাসি ক্ষুব্ধ হয়ে পাউবোর কর্মকর্তাদের গণধোলাই দিয়েছে। 
জানা গেছে ২৭ মে মধ্যরাতে প্রবল জোয়ারের চাপে পাউবোর ১৩-১৪/২ পোল্ডারের কপোতাক্ষ নদ সংলগ্ন ঘাটাখালি গ্রামের সোহরাব শেখের বাড়ী সংলগ্ন দুর্বল বেড়িবাঁধের প্রায় দেড়’শ ফুট জায়গা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। এতে কয়রা সদর ইউনিয়নের ঘাটাখালি, গোবরা পূর্ব চক, হরিনখোলা ও ২নং কয়রা গ্রাম লোনা পানিতে প্লাবিত হয়ে পড়ে। যার ফলে ৩ শতাধিক মৎস্য ঘের, চলতি আউশ মৌসুম ধান,পুকুরের মাছসহ বিভিন সবজি ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তাছাড়া নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। গতকাল সোমবার সকালে সেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে রিংবাঁধ দিয়ে আটকানো হলেও দুপুরের জোয়ারের প্রবল স্রোতে তা আবার ভেঙে যায়। এদিকে ভাঙ্গন কবলিত এলাকা দেখতে দুপুরে আসেন পাউবোর সাতক্ষীরা জোনের নির্বাহী প্রকৌশলী অপূর্ব কুমার ভৌমিক। তখন স্থানীয় ক্ষুদ্ধ জনগন পাউবোর সাতক্ষীরা জোনের নির্বাহী প্রকৌশলী অপূর্ব কুমার ভৌমিককে লাঞ্চিত ও পাউবো খুলনার কয়রা উপজেলার সেকশন কর্মকর্তা খায়রুল আলম ও ঠিকাদার শাহনুরকে বেধরক মারধর করা হয়।
পাউবোর সাতক্ষীরা জোনের নির্বাহী প্রকৌশলী অপূর্ব কুমার ভৌমিকের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ বদিউজ্জামান বলেন, ভেঙে যাওয়া বেড়ি বাঁধ আটকানোর জন্য চেষ্টা চলছে। উপজেলা চেয়ারম্যান আখম তমিজ উদ্দিন বলেন বেড়িবাঁধ ভেঙে যাওয়ার পর থেকে  এলাকাবাসিদেরকে সাথে নিয়ে বাঁধ আটকানোর জোর প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।
এ মুহুর্তে ভেঙে যাওয়া বেড়িবাঁধ মেরামত করা সম্ভব না হলে কয়রা সদরসহ আশপাশের এলাকা লোনা পানিতে তলিয়ে যাবে।
কয়রা সদর ইউপি চেয়ারম্যান এস এম শফিকুল ইসলাম বলেন, সম্প্রতি ঘাটাখালি বেড়িবাঁধের টেন্ডার সম্পন্ন করে পানি উন্নয়ন বোর্ড। টেন্ডারের পর পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের ঠিকাদার পাঠাতে অনুরোধ করা সত্বেও সময়মত বাঁধের কাজ না করায় ঘাটাখালি নামক স্থানের বেড়িবাঁধ ভেঙে মানুষের চরম ক্ষতি হয়েছে। তিনি  জরুরী ভিত্তিতে  ভেঙে যাওয়া বাঁধ নির্মানে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ