ঢাকা, মঙ্গলবার 30 May 2017, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২8, ৩ রমযান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রূপগঞ্জে চাঁদা না দেয়ায় মহিলাসহ ২ জনকে কুপিয়ে জখম স্বর্ণালংকার লুট

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) সংবাদদাতা : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে দাবিকৃত ১ লাখ টাকা চাঁদা না দেয়ায় রোজিনা বেগম নামে এক মহিলা ও তার ছেলে কাউছারকে (১৭) দুর্বৃত্তরা কুপিয়ে জখম করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল সোমবার সকালে উপজেলার তারাব পৌরসভার মৈকুলী এলাকায়। আহত গৃহবধূ রোজিনা বেগম জানান, মৈকুলী এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী ও ছিনতাইকারী আত্তশ আলীর ছেলে রফিকুল (২৪) তার ছেলে কাউছারের কাছে দীর্ঘ দিন ধরে ১ লাখ টাকা  চাঁদা দাবি করে আসছিল। দাবিকৃত চাঁদা না দেয়ায় সোমবার সকালে রফিকুলের বাড়ির সামনের রাস্তায় কাউসারকে একা পেয়ে চাঁদার টাকার জন্য পেটাতে থাকে। এ সময় রফিকুলের সাথে যোগ দেয় ভাই শফিকুল ও বোন জামাই শরিফুল। কাউসারের ডাক-চিৎকারে তার মা রুজিনা বেগম এগিয়ে আসলে চাঁদাবাজরা তাকেও পিটিয়ে ও ধারালো অস্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। এ সময় রোজিনার গলায় থাকা ১ ভরি ওজনের স্বর্ণের চেইন ও ৮ আনা ওজনের কানের দুল ছিনিয়ে নেয় চাঁদাবাজরা। পরে স্থানীয়রা গুরুতর আহত অবস্থায় রোজিনা বেগমকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। এ ঘটনায় রূপগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এ ব্যাপারে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসমাইল হোসেন জানান, এ ধরনের একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত মোতাবেক অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রফিকুলের মৃত বাবা আত্তশ আলী তার বাড়িতে মদের আসর বসাতেন ও মদ বিক্রি করতেন। কয়েক বছর আগে আত্তশ আলী মদ খেতে খেতে মারা যায়। তাদের বাড়িতে গোপন মদের বার পরিচালনা করতেন রফিবুকের মা সূর্র্যবান। আত্বশ আলীর মৃত্যুর পর তার দুই ছেলে রফিকুল ও শফিকুল, বোন জামাই শরিফুল এলাকায় চাঁদাবাজি ও মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। রফিকুল নিজেকে পুলিশের সোর্স পরিচয় দেয়া এলাকার লোকজন তার অপকর্মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার সাহস পায় না। রফিকুল ও শফিকুলের বিরুদ্ধে এলাকায় কয়েকশত ছিনতাইয়ের অভিযোগ রয়েছে। আর মাদক ব্যবসা তারা দেদারছে চালিয়ে যাচ্ছে। রফিকুল ও শফিকুলকে পুলিশ একাধীকবার গ্রেপ্তার করেছে। তাদের বিরুদ্ধে থানায় একাধীক মামলা রয়েছে। তাদের মাদক ব্যবসা দেখাশোনা করেন তার মা সূর্যবান বেগম ও বোন জোছনা বেগম। অর্থাৎ তাদের পুরো পরিবারই মাদক, ছিনতাই ও চাদাঁবাজির সাথে জড়িত। তাদের অত্যাচার, জুলুম, নির্য়াতনে এলাকাবাসী অতিষ্ট।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ