ঢাকা, বুধবার 31 May 2017, ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২8, ৪ রমযান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সৈয়দপুরের গ্রামীণ পাকা সড়ক যেন ধান ও খড় শুকানোর চাতাল

সৈয়দপুরে সংস্কারবিহীন একটি গ্রামীণ পাকা সড়ক

সৈয়দপুর (নীলফামারী) সংবাদদাতা: সৈয়দপুরে গ্রামীণ প্রতিটি সড়ক এখন ধান, গম, ভুট্টা ও খড় শুকানোর চাতালে পরিণত হয়েছে। ফলে প্রতিদিনই ঘটছে ছোট-বড় দুর্ঘটনা। বর্তমানে  ধান ও ভুট্টা কাটা-মাড়াই মৌসুম শুরু হওয়ায় এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।
সৈয়দপুর-রংপুর মহাসড়ক, সৈয়দপুর-পার্বতীপুর সড়ক, খিয়ারজুম্মা-হাজারীহাট সড়ক, ঢেলাপীর-চওড়া বাজার সড়ক, শাইল্যার মোড় থেকে পীরপাড়া বাজার সড়ক, কামারপুকুর থেকে তোফায়েলের মোড় সড়ক, ধলাগাছ থেকে নেজামের চৌপথি সড়ক, চৌমুহনী থেকে মুচিরহাট সড়কসহ বিভিন্ন পাকা সড়কে ধান, ভুট্টা মাড়াই, শুকানোর কাজ চলছে। খড় দিয়ে পাকা সড়ক ঢেকে দেওয়ায় চলাচলকারী লোকজন বুঝতে পারেন না যে, সেখানে গর্ত বা অসুবিধা আছে।
তাই অসতর্কতায় দুর্ঘটনায় পড়ছেন তারা। পুলিশ প্রশাসন এরই মধ্যে সতর্কতা জারি করেছেন কিন্তু কোন কাজ হচ্ছে না।
সৈয়দপুর উপজেলার কামারপুকুরের কৃষক আব্দুস সাত্তার জানান, তিনি বিঘা তিনেক জমিতে বোরো আবাদ করেন। কাটা-মাড়াই করার পর ধান শুকানো নিয়ে সমস্যায় পড়ে বড় পাকা সড়কে নিয়ে এসেছেন। সারাদিন রোদে শুকিয়ে ধান গোলায় তুলবেন।
উপজেলার খাতামধুপুর ইউনিয়নের ইউনিয়নের কৃষক শফি মোহাম্মদ জানান, আমাদের এখানে বোরো ধান কাটা-মাড়াই শুরু হয়েছে। মেঘলা আকাশের ধান শুকানোর সমস্যা হওয়ায় বর্তমানে রোদের তীব্রতায় খিয়ারজুম্মা-হাজারীহাট পাকা সড়কে শুকাতে দিয়েছেন। পাকা সড়কে ধান শুকালে চলাচলে মানুষের অসুবিধা হয় জেনেও কাজটি করতে হচ্ছে সমস্যার কারণে বলে জানালেন তিনি।
উপজেলার বাঙালিপুর ইউনিয়নের লক্ষপুর বালাপাড়ার ভুট্টা চাষি আব্দুস সামাদর বাড়িতে ভুট্টা মাড়াই করে গ্রামের পাকা সড়কে শুকাতে দিয়েছেন। এতে তার সময় অপচয় কম হচ্ছে বলে এই কাজটি করেছেন। স্থানীয় চেয়ারম্যান ও মেম্বাররা জানান, আমরা যেহেতু ভোট করি তাই জোর করে কোনো কিছু করতে পারি না।
নীলফামারী জেলা বাস-মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আখতার হোসেন বাদল বলেন, পাকা সড়কে কাটা-মাড়াই ও শুকানোর কারণে যানবাহন চলাচলে মারাত্মক অসুবিধার সৃষ্টি হচ্ছে। বিষয়টি লিখিতভাবে নীলফামারী জেলা প্রশাসনকে জানানো হয়েছে।
সৈয়দপুর সার্কেলের জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার জিয়াউর রহমান জানান, গ্রামীণ পাকা সড়কে ধান মাড়াই ও খড় শুকানোর কারণে মানুষের অসুবিধা হওয়ায় সকর্তকতা জারি করা হয়েছে। পাকা সড়কে এ ধরনের কাজ থেকে বিরত থাকার জন্য মৌখিকভাবে বলা হয়েছে। এরপর মাইকিং করার পর অ্যাকশনে যাবে পুলিশ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ