ঢাকা, বুধবার 31 May 2017, ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২8, ৪ রমযান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

চুয়াডাঙ্গায় ঝড়বৃষ্টিতে ২ কোটি টাকার ফসলের ক্ষয়ক্ষতি

চুয়াডাঙ্গা জেলা সংবাদদাতা : চলতি বোরো মওসুমে চুয়াডাঙ্গা জেলায় কৃষি বিভাগের নিরুপন অনুযায়ী অতিবৃষ্টি ও ঝড়ে বোরো ধানসহ বিভিন্ন ফসলের ক্ষতি হয়েছে ২ কোটি ২ লাখ ৮৪ হাজার ৫০০ টাকা।  জেলার ৪টি উপজেলার মধ্যে চুয়াডাঙ্গা সদর ও দামুড়হুদা উপজেলায় ফসলের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে ব্যাপক।
চুয়াডাঙ্গা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক নির্মল কুমার দে জানিয়েছেন, গত ১৯ এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত চুয়াডাঙ্গা জেলায় অতিবৃষ্টি ও ঝড়ে সদর ও দামুড়হুদা উপজেলায় বোরো ধান, সবজি, কলা ও পেঁপে এবং তরমুজ আবাদে ব্যাপক ক্ষতি হয়। আবাদের ক্ষয়ক্ষতি নিরুপন করে তা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছে। তিনি বলেন, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলায় ২৫০ হেক্টর জমির বোরো ধান আংশিক ও সাড়ে ৭ হেক্টর সম্পূর্ণ ক্ষতি হয়েছে, ধানের উৎপাদন ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৪০ দশমিক ৫ মেট্রিকটন আর টাকার পরিমাণ হলো ১০ লাখ ১২ হাজার ৫ শত টাকা। এ উপজেলায় ১০হেক্টর জমির কলা চাষের আংশিক ক্ষতি হয়েছে ও শুন্য দশমিক ৭ হেক্টর কলা চাষ সম্পূর্ণ ক্ষতি হয়েছে। এখানে উৎপাদন ক্ষতি হয়েছে ১৭ দশমিক ৫ হেক্টর। এ উপজেলায় ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকার কলার ক্ষতি হয়েছে। দামুড়হুদা উপজেলায় ২৫৫ হেক্টর জমির ধান আংশিক ও ১৩ হেক্টর ধান সম্পূর্ণ ক্ষতি হয়েছে, এ উপজেলায় উৎপাদন ক্ষতি হয়েছে ৭৮ মেট্রিকটন। যা টাকার অংকে ১৮ লাখ ৭২ হাজার টাকা। একই উপজেলায় ২৫ হেক্টর জমির কলা সম্পূর্ণ ক্ষতি হয়েছে, উৎপাদন ক্ষতির পরিমাণ ৪০ মেট্রিক টন, ৮৪ লাখ টাকার কলা চাষে ক্ষতি হয়েছে। একই উপজেলায় ৫৫ হেক্টর জমির পেঁপে আংশিক ও ২৯ হেক্টর সম্পূর্ণ পেঁপে চাষে ক্ষতি হয়েছে, উৎপাদন ক্ষতির পরিমাণ ৬৮০ মেট্রিকটন, পেঁপের ক্ষতি হয়েছে ৮৫ লাখ টাকা। এখানে সবজির আংশিক ক্ষতি হয়েছে ৫২০  মেট্রিকটন ও সম্পূর্ণ ক্ষতি হয়েছে ৩০ হেক্টর, উৎপাদন ক্ষতি হয়েছে ৪৫ মেট্রিক টন, টাকার অংকে ১ লাখ ৫০ হাজার টাকার সবজির ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া তরমুজের সম্পূর্ণ ক্ষতি হয়েছে শুন্য ৫ হেক্টর জমির, উৎপাদন ক্ষতি হয়েছে ২২ দশমিক ৫ মেট্রিকটন, টাকার অংকে ৫০ হাজার টাকার তরমুজের ক্ষতি হয়েছে।
উপপরিচালক আরো জানান, প্রত্যেকটি ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের তালিকা তৈরি করা হয়েছে। প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ আসলে তা দেওয়া হবে। তাছাড়া ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের জন্য বীজ সারসহ বিভিন্ন প্রণোদনা দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ