ঢাকা, বুধবার 31 May 2017, ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২8, ৪ রমযান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

জনসংখ্যার ভিত্তিতে নির্ধারণ হলে ঢাকায় লাগবে ১০০ আসন -রুস্তম আলী ফরাজী

সংসদ রিপোর্টার : নির্বাচন কমিশন জনসংখ্যার ভিত্তিতে যে আসন নির্ধারণ করার কথা বলেছেন এমনটি হলে শুধুমাত্র ঢাকা শহরেই ১০০টি আসন লাগবে বলে মন্তব্য করেছেন স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য রুস্তম আলী ফরাজী (পিরোজপুর-৩)। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় সংসদে পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়িয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন। এর আগে বেলা ১১ টা ৫ মিনিটে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের ১৬তম (বাজেট) অধিবেশনের প্রথম দিনের কার্যক্রম শুরু হয়।
রুস্তম আলী ফরাজী বলেন, আমি নির্বাচন কমিশনের একটা বিবৃতি দেখলাম। তাতে বলা হয়েছে, নির্বাচনী সীমানা করা হবে জনসংখ্যার ভিত্তিতে। কিন্তু ঢাকা শহরের জনসংখ্যা সবারই জানা আছে। শুধুমাত্র লালবাগে এক কিলোমিটারে ২০ লক্ষ জনতা থাকে। ওই হিসেবে যদি সিট ঠিক করা হয় তাহলে ১০০ সিট লাগবে শুধু ঢাকা সিটিতেই। এবং আশেপাশে নারায়নগঞ্জ, গাজীপুর, ধামরাই এসব অঞ্চলে দুইশ থেকে আড়াইশ সিট লাগবে জনসংখ্যার ভিত্তিতে। সারা বাংলাদেশ তখন খাঁ-খাঁ করবে, মরুভূমিতে পরিনত হবে। একেবারে দেখা যাবে বরগুনা থেকে শুরু করে বরিশাল পর্যন্ত হবে ১ সিট। কারণ জনসাধারণতো কর্মক্ষেত্রের জন্য ঢাকাতে আসে।
তিনি বলেন, আমার নিজস্ব এলাকার দুই থেকে ৩ লক্ষ লোক গাজীপুরে গার্মেন্টসে কাজ করে। এখানে তারা ভোটার হয়েছে। কিন্তু তাদের পরিবার সব এলাকায়। আজকে যদি জনসংখ্যার ভিত্তিতে হয় তাহলেতো ওই এলাকা বঞ্চিত হয়ে যাবে। শুধু জনসংখ্যার উপর ভিত্তি করে কোন এলাকা হয়নি। পিরোজপুর চার আসন থেকে একটা আসন এবং বরগুনা থেকে একটা আসন কাটা হয়েছে।
তিনি বলেন, উপকূলীয় এলাকা এমনিতেই বঞ্চিত। আজকে গেল ঘুর্নিঝড় মোরা। এই মোরা যদি খারাপ দিকে চলে যেত, তাহলে হাজার-হাজার মানুষ মারা যেত। নদীতে ভেসে যেত। এদেশে ৪৭৮ বার প্রাকৃতিক দুর্যোগ হয়েছে। স্বাধীনতার পরও ২৫০ বারের বেশী হয়েছে। তাদের সেই অবস্থা চিন্তা করতে হবে। তারা জীবনযুদ্ধে কোনরকম  বেঁচে আছে। তাদের সুযোগ-সুবিধা নাই। শিক্ষা নাই। আলো থেকে বঞ্চিত। বিদ্যুৎ নাই। ভাল স্কুল-কলেজ নাই। এখানে আয়তন বেশী। খালে-বিলে ভরা। একটি এলাকা থেকে আরেকটি এলাকায় যেতে সময় লাগে। একটা ইউনিয়নে ঘুরতে গেলে একজন সংসদ সদস্যের সাত থেকে ৮ দিন লাগে।
রুস্তম আলী ফরাজী বলেন, ওখানে (বিবৃতি) বলা হয়েছে, আয় কম, অনগ্রসরতা, প্রয়োজনীয়তা এবং জনসংখ্যা এ ৪ টার উপর ভিত্তি করে ঠিক করা হবে। এ বিষয়টি যদি করা হয় তাহলে সামগ্রিকভাবে সারাদেশের গ্রাম উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত হবে, জনপ্রতিনিধি থেকে বঞ্চিত হবে। সবকিছু ঢাকা কেন্দ্রিক। তাহলে আমরা প্রশ্ন করতে পারি, আমরা যে বাজেটে টাকা বরাদ্ধ করি সে বাজেটের টাকা কোথায় বরাদ্ধ করা হয়? ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা এবং বড় বড় শহরে টাকা বেশী বরাদ্ধ করা হয়। গ্রামকে বঞ্চিত করে আরেকটি শহরের প্রাণ সঞ্চার করা যাবে না। এজন্য বাস্তবভিত্তিক চিন্তা করা উচিৎ।
তিনি আরও বলেন, এক-একারোর সময় সামরিক শক্তি যারা ছিলেন সেই মঈনউদ্দিন এবং ফখরুদ্দিনরা যা করেছিলেন সেই ধরণের চিন্তা-ভাবনা যাতে না করা হয়। প্রধান নির্বাচন কমিশনারের প্রতি আমার আস্থা আছে, বিশ্বাস আছে। তিনি এ বিষয়টি অত্যান্ত মানবিক দৃষ্টিতে, জনস্বার্থে এবং গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর কথা চিন্তা বিবেচনা করবেন বলে আশা করি। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ