ঢাকা, শুক্রবার 02 June 2017, ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২8, ৬ রমযান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

নেতাজির মৃত্যু উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায়

১ জুন, ইন্টারনেট : দীর্ঘ ৭২ বছর ধরে ভারতের স্বাধীনতাসংগ্রামী নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর অন্তর্ধান-রহস্যের কূলকিনারা হয়নি। এ নিয়ে রয়েছে জোর বিতর্ক। দেশবাসী বা ভারত সরকার নেতাজির অন্তর্ধান বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্তে আসতে পারেনি। এই অবস্থায় সম্প্রতি তথ্য অধিকার আইনে একজন নাগরিক এ সম্পর্কে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ১৯৪৫ সালের ১৮ আগস্ট তাইহাকু উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় নেতাজির মৃত্যু হয়েছে। আর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এই জবাব নিয়েই শুরু হয়েছে নতুন বিতর্ক। মন্ত্রণালয়ের এ বক্তব্য মেনে নেয়নি নেতাজির পরিবারের একাংশ।

১৯৪৫ সালের ১৮ আগস্ট তাইওয়ানের তাইহাকু বিমানবন্দর থেকে নেতাজি উড়োজাহাজে চড়েন। এরপর থেকে নেতাজির আর কোনো সন্ধান মেলেনি। যদিও সেই উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় পড়ে। তাই মনে করা হচ্ছিল, ওই দুর্ঘটনায় নেতাজির মৃত্যু হয়েছিল। এই বক্তব্যকে এখনো মেনে নেয়নি নেতাজির ভক্তরা। তাঁর বংশধর বা নেতাজির গড়া দল ফরোয়ার্ড ব্লকের নেতা, কর্মী ও সমর্থকেরাও তা মেনে নেননি। ফলে নেতাজির অন্তর্ধান-রহস্য রহস্যেই থেকে যায়। মাঝে একবার উত্তর প্রদেশের এক সাধু গুমনামি বাবা বা ভগবানজিকে নেতাজির মতো দেখতে লাগায় তাঁকে নেতাজি হিসেবে দাবি করেছিল অনেকে। কিন্তু তাতে স্বীকৃতি দেয়নি নেতাজির পরিবার বা তাঁর দল ফরোয়ার্ড ব্লক। গুমনামি বাবা এখন বেঁচে নেই। নেতাজির অন্তর্ধান-রহস্য উদ্ঘাটনের জন্য ভারত সরকার ১৯৫৬ সালে শাহনেওয়াজ কমিটি গঠন করে। কমিটির সদস্য ছিলেন তিনজন। এই কমিটিও নেতাজির অন্তর্ধান-রহস্যের কিনারা করতে পারেনি। এরপর ১৯৭০ সালে গঠিত হয় সাবেক বিচারপতি জিডি খোসলার নেতৃত্বে খোসলা কমিশন। এই কমিশন শাহনেওয়াজ কমিটির রিপোর্টের সঙ্গে একমত পোষণ করায় তিমিরেই থেকে যায় এ রহস্য। ফের ১৯৯৯ সালে সাবেক বিচারপতি মনোজ কুমার মুখার্জির নেতৃত্বে গঠিত হয় মুখার্জি কমিশন। সেই কমিশনও এ রহস্যের কিনারা করতে পারেনি।

এ বছরের এপ্রিল মাসে সায়ক সেন নামের এক ব্যক্তি তথ্য অধিকার আইনে জানতে চান গুমনামি বাবা বা ভগবানজি সম্পর্কে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ