ঢাকা, সোমবার 05 June 2017, ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২8, ৯ রমযান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সৈয়দপুরে যানজটে ভোগান্তি

সৈয়দপুর (নীলফামারী) সংবাদদাতা: নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরের ব্যস্ততম সড়কগুলোতে দিনের বেলাতেই প্রবেশ করছে মালামাল বোঝাই ট্রাক-পিকআপ-ট্যাংকলরী। সেসাথে গুরুত্বপূর্ণ স্পটগুলোতে ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড় করিয়ে চলছে মালামাল লোড-আনলোড। এতে চরম যানজটের সৃষ্টি হয়ে অসহনীয় ভোগান্তিতে পড়ছে পথচারীসহ সাধারণ মানুষ।
পৌর এলাকায় দিনের বেলায় ভারি যানবাহন চলাচল করা বা লোড আনলোডের কাজ করা নিষিদ্ধ থাকলেও নিষেধাজ্ঞা লংঘন করে প্রতিনিয়ত প্রকাশ্যে দিনের বেলা ট্রাক, ট্যাংকলরী, পিকআপ প্রবেশ করে রাস্তার উপর দাঁড় করিয়ে চলছে মালামাল উঠানামার কাজ। শহরবাসীর প্রশ্ন শহরে ট্রাফিক পুলিশ কর্মরত থাকাবস্থায় কি করে দিনের বেলা এসব যানবাহন প্রবেশ করছে আর কিভাবেই বা পৌর প্রশাসন থাকা সত্বেও রাস্তা বন্ধ করে লোড-আনলোড করা হচ্ছে। ফলে যানজটে ভোগান্তি বেড়েই চলেছে। “এই রাস্তায় ট্রাক প্রবেশ করা দন্ডনীয় অপরাধ”- আদেশক্রমে সৈয়দপুর পৌরসভা।
এমন সাইনবোর্ডটি দন্ডায়মান সৈয়দপুর শহরের অন্যতম প্রধান সড়ক পৌরসভা রোডে। এই সাইনবোর্ড এর পাশেই চাল, ডাল, চিনি কমিশন এজেন্টের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মেসার্স এইচ.এ ট্রেডার্স। প্রতিদিন এই প্রতিষ্ঠানের সামনে মাল বোঝাই ১০ চাকার ট্রাক দাঁড় করিয়ে দিনরাত চলছে লোড-আনলোড করার কাজ। এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন, গভীর রাতেও এখানে মালামাল তোলার কাজ করা হয়। এতে এলাকাবাসীর ঘুমের ব্যাঘাত ঘটে প্রতিরাতেই। একইভাবে শহীদ ডা. জিকরুল হক রোড, বঙ্গবন্ধু সড়ক, দিনাজপুর সড়ক, সিনেমা রোডসহ প্রায় প্রতিটি ব্যস্ততম সড়কে ভোগান্তিতে পড়ছে শহরবাসী। এতে যানজটসহ ঘটছে নানা দূর্ঘটনা। অথচ দায়িত্বপ্রাপ্ত ট্রাফিক বা পৌর কর্তৃপক্ষ সাইনবোর্ড দিয়েই যেন ক্ষান্ত। আদেশটি বাস্তবায়ন বা আইন প্রয়োগে কারোই মাথা ব্যথা নেই। 
এলাকাবাসী প্রায়ই এ ব্যাপারে অভিযোগ করলেও সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী কর্ণপাত করেনি। ফলে চরম ভোগান্তি সয়েই রাস্তা পারাপারসহ পথচলাচল করতে হচ্ছে তাদের। এ ব্যাপারে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষসহ প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন এলাকার লোকজন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ