ঢাকা, সোমবার 05 June 2017, ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২8, ৯ রমযান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বাগমারায় অবৈধভাবে পুকুর খনন বন্ধে প্রশাসনের কর্মকর্তাকে সতর্ক নোটিশ

বাগমারা (রাজশাহী) সংবাদদাতা: রাজশাহীর বাগমারায় অবৈধ পুকুর খনন বন্ধে হাইকোর্ট বিভাগের আদেশ পালন না হওয়ায় প্রশাসনের ৪ জন কর্মকর্তাকে সতর্কতামূলক নোটিশ দেয়া হয়েছে। জেলা প্রশাসক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব), বাগমারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলার সহকারি কমিশনার (ভূমি) কাছে এ নোটিশ পাঠানো হয়। গত বৃহস্পতিবার ডাক যোগে তাদের কাছে নোটিশ পাঠিয়েছেন হাইকোর্টের আইনজীবী মেজবাহুল ইসলাম আসিফ। হাইকোর্ট বিভাগের দায়েরকৃত রিট পিটিশন নং-৪৩৫৩/২০১৭ এর আদশে বাস্তবায়নের জন্য রিট পিটিশনকারী আইনজীবী জালাল উদ্দীন উজ্জ্বল বলেন, তার পক্ষে মামলা পরিচালনাকারী আইনজীবী মেজবাহুল ইসলাম আসিফ প্রশাসনের চার কর্মকর্তার কাছে সতর্কমূলক নোটিশ পাঠিয়েছেন।
আইনজীবী মেজবাহুল ইসলাম আসিফ তার নোটিশে উল্লেখে করেছেন, তার মোয়াক্কেল জালাল উদ্দনি উজ্জ্বল সুপ্রিম কোর্টের একজন এ্যাডভোকেট এবং প্রাকটিসিং ‘ল’ ইয়ার। তিনি তার পেশার পাশাপাশি এলাকার বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের সাথে সম্পৃক্ত। ফলে তিনি তার এলাকার সকল বিষয়ে অত্যন্ত সচেতন।
তিনি তার সতর্কতামূলক নোটিশে আরো উল্লেখ করেন, নোটিশ গ্রহীতারা আইন অনুযায়ী আদালতের আদেশ যথারীতি ভাবে প্িরতপালনে বাধ্য। কিন্তু এক্ষেত্রে তারা তাদের উপর আইন অনুযায়ী অর্পিত দায়-দায়িত্ব পালনে র্ব্যথ হয়েছেন। ফলে ইহা সম্পূর্ণরূপে আদালত অবমাননার সামিল। ফলে ইহা একটি ব্যক্তিগত দায়-দায়িত্ব এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলে তিনি দাবি করেন। নোটিশ গ্রহিতাগণ দেশের সর্বোচ্চ আদালতের প্রতি সম্মান না দেখিয়ে এলাকার র্স্বাথান্বেষী ব্যক্তিদের অবৈধ পুকুর খননে নীরব অনুমোদন দিয়ে আদালতের প্রতি অবজ্ঞা করছেন।
উক্ত নোটিশ পাওয়ার সাথে সাথে অনতিবিলম্বে হাইকোর্ট বিভাগের আদেশ মোতাবেক বাগমারা এলাকায় অবৈধ পুকুর খনন বন্ধে নিয়মিত ভাবে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করার জন্য, ব্যর্থতায় আমার মোয়াক্কেলের নির্দেশ মোতাবেক তার পক্ষে নোটিশ গ্রহীতাগণ আপনাদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আদালতে কনটেম্পট প্রসেডিং ড্র এর আবেদন করতে বাধ্য হবেন।
আইনজীবী জালাল উদ্দিন উজ্জল বলনে, বাগমারা উপজলোর বিভিন্ন জায়গায় উর্বর উৎপাদনশীল কৃষি জমির শ্রেণি ও প্রকৃতি পরিবর্তন করে অবৈধ ভাবে পুকুর খনন বন্ধে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট নোটিশ গ্রহীতাকে বিভিন্ন সময়ে অনুরোধ করা সত্ত্বেও এই বিষয়ের উপর সংশ্লিষ্ট নোটিশ গ্রহীতারা কোন প্রকার কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। এইরুপ অবস্থার প্রেক্ষিতে নোটিশ গ্রহীতাগণের নিষ্ক্রিয়তায় তাকে চ্যালেঞ্জ করে ও উক্ত অবৈধ পুকুর খনন বন্ধে দ্রুত পদক্ষেপের এক নির্দেশ প্রার্থনা কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের জনস্বার্থে ৪৩৫৩/২০১৭ নং রিট পিটিশন দায়ের করেন।
গত ৩/৪/২০১৭ইং তারিখে মিসেস বিচারপতি নায়মা হায়দার ও মিঃ বিচারপতি আবু তাহের মোঃ সাইফুর রহমান এর সমন্বয়ে গঠতি হাইকোর্ট বিভাগের একটি ডিভিশন বেঞ্চ শুনানীনান্তে সংশ্লিষ্ট রেসপন্ডেরে উপর রুল নীশি জারি করে বাগমারা উপজলোয় অবৈধ পুকুর খনন বন্ধে নিয়মিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনার নির্দেশনা প্রদান করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ