ঢাকা, মঙ্গলবার 06 June 2017, ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২8, ১০ রমযান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

আবাহনীর জয়ে চ্যাম্পিয়ন নিশ্চিত গাজী গ্রুপের

স্পোর্টস রিপোর্টার : এক ম্যাচ হাতে রেখেই প্রিমিয়ার বিভাগ ক্রিকেট লিগের শিরোপা জয় করল গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স। গতকাল গাজী গ্রুপের ম্যাচটি বৃষ্টির কারণে শেষ না হলেও আবাহনীর জয়ে এক ম্যাচ আগেই শিরোপা নিশ্চিত হল দলটির। কারণ আবাহনীর জয়ে যে প্রাইম দোলেশ্বরের বিপক্ষে নিজের ম্যাচ শেষ হওয়ার আগেই শিরোপা জিতে গেছে নাসির  হোসেনের দল গাজী গ্রুপ। সুপার লিগের শেষ ম্যাচে শেখ জামালের বিপক্ষে আবাহনী  জেতায় তাদের পয়েন্ট হল ২৪। এক ম্যাচ কম খেলে সমান পয়েন্ট গাজীর। ১৫ ম্যাচে ২২ পয়েন্ট নিয়ে তাদের পরেই দোলেশ্বর। শেষ ম্যাচে দোলেশ্বর গাজীকে হারালে তিন দলের পয়েন্ট হবে ২৪, সেক্ষেত্রে মুখোমুখি লড়াইয়ে এগিয়ে থাকায় শিরোপা যাবে গাজীর ঘরে।
বিকেএসপির চার নম্বর মাঠে গতকাল জয় পেয়েছে আবাহনী। আবাহনী ৫ উইকেটে হারায় শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবকে। টস জিতে ব্যাট করতে নেমে শেখ জামাল ৩০.৪ ওভারে ৭ উইকেটে ১৬২ রান করার পর বৃষ্টির নামলে সেখানেই ইনিংসের সমাপ্তি। তরুণ অফ স্পিনিং অলরাউন্ডার আফিফ ৩২ রানে নেন ৫ উইকেট। লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে এটাই তার সেরা বোলিং। আগের ৮ ইনিংসে সব মিলিয়ে নিয়েছিলেন কেবল ৩ উইকেট। ফজলে মাহমুদকে আউট করে শুরুটা করেছিলেন সাকলাইন সজীব। এরপর পাঁচ উইকেট তুলে নিয়ে শেখ জামালকে চাপে ফেলেন আফিফ। পরপর তিন বলে আব্দুল্লাহ আল মামুন, সোহাগ গাজী ও জিয়াউর রহমানকে বিদায় করে করেন হ্যাটট্রিক। পরে বিদায় করেন চারটি করে ছক্কা-চারে ৫৯ বলে ৬০ রান মাহবুবুল করিমকে। আফিফের পঞ্চম শিকার তানবীর হায়দার। জয়ের জন্য ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে আবাহনীর লক্ষ্য দাঁড়ায় ২০ ওভারে ১২৪ রান। ১৬ বল হাতে রেখেই ৪ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় আবাহনী। ৪০ বলে ৫টি চার আর দুটি ছক্কায় ৫১ রান করে ফিরেন সাইফ হাসান। দুটি করে ছক্কা চারে ২৭ বলে ৩৩ রান করে তানবীরের বলে স্টাম্পড হন সাদমান ইসলাম। দলকে জিতিয়েই মাঠ ছাড়েন মোহাম্মদ মিঠুন।  অধিনায়ক অপরাজিত থাকেন ২৯ রানে। লেগ স্পিনার তানবীর ২ উইকেট নেন ১৪ রানে।
বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে শিরোপা লড়াইয়ে থাকা দুই দলের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে খেলা হয়েছে ৩৩ ওভার। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স ৫ উইকেটে করেছে ১৪২ রান। অপরাজিত ৫০ রানের দলকে এগিয়ে নিচ্ছেন জহুরুল ইসলাম। ৩৮ রানের দুটি ইনিংস খেলে ফিরে গেছেন মুমিনুল হক ও নাদিফ চৌধুরী। দেলোয়ারের বলে বোল্ড হয়ে বিদায় নেন নাসির (৩)। ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগের চলতি আসরে এনিয়ে মাত্র দ্বিতীয়বার আউট হলেন তিনি। মেডেন উইকেট দিয়ে শুরু করা ফরহাদ রেজা ২ উইকেট নিয়েছেন ১৭ রানে। একটি করে উইকেট দেলোয়ার ও আরাফাত সানির। ফতুল্লাহ খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ৪৩.৩ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৮৭ রান করে মোহামেডান। ৫৩ বলে দুটি করে ছক্কা-চারে ৫৩ রান করে আসিফ আহমেদকে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন নাজমুল হোসেন মিলন। মোহামেডানের টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যান শামসুর রহমান (৩৪), সৈকত আলী (২৪) ও রনি তালুকদার (২৮) ফিরেন থিতু হয়ে। প্রাইম ব্যাংকের আসিফ ২ উইকেট নেন ১৯ রানে। একটি করে উইকেট রাফাতুল্লাহ মাহমুদ, রায়হান উদ্দিন ও তাইবুর রহমানের। গতকাল এই ম্যাচ দুটির খেলা যেখানে শেষ হয়েছে রিজার্ভ ডে আজ সেখান থেকেই শুরু হবে খেলা। আর খেলা শেষ না হলে পয়েন্ট ভাগাভাগি করে নেবে দলগুলো।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ