ঢাকা, মঙ্গলবার 06 June 2017, ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২8, ১০ রমযান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

মন্ত্রী উঠলেন গাছে!

সংগ্রাম ডেস্ক: কথা বলতে বলতে ফোনের নেটওয়ার্ক চলে গেলে কম-বেশি সমস্যায় পড়েন অনেকেই। কিন্তু যখন খোদ মন্ত্রী মহোদয়ের সঙ্গে এমনটা ঘটে! এমনই ঘটনার সাক্ষী থেকেছেন ভারতের কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অর্জুন মেঘওয়াল। শুধু তাই নয়, নেটওয়ার্ক না থাকায় ফোন করার জন্য মই বেঁধে গাছেও উঠতে হয়েছে তাকে। শুনতে হাস্যকর হলেও ঘটেছে ঠিক এমনটাই, সামনে এসেছে সেই ভিডিওটিও। এরপরই উঠতে শুরু করেছে প্রশ্ন। পরিকাঠামো নেই, অথচ ডিজিটাল ইন্ডিয়ার সমর্থনে এত প্রচার কেন, তা নিয়ে কটাক্ষে সরব বিরোধীরা। শীর্ষ নিউজ।

গত রোববার নিজের নির্বাচনী ক্ষেত্র রাজস্থানের বিকানেরের ধুলিয়া গ্রামে সভা করছিলেন অর্জুন মেঘওয়াল। শুনছিলেন গ্রামবাসীদের অভাব-অভিযোগের কথা। এর মধ্যেই একজন তাকে গ্রামের হাসপাতালের কথা জানান। অভিযোগ তোলেন, স্থানীয় হাসপাতালে যথেষ্ট নার্স নেই। এরপরেই মন্ত্রীমশাই এক স্বাস্থ্য আধিকারিককে ফোন করতে যান। কিন্তু তখনই বিপত্তি ঘটে। ফোনে নেটওয়ার্ক না থাকায় ওই অফিসারের সঙ্গে কথা বলতে পারছিলেন না অর্জুন। সে সময় এক গ্রামবাসী তাকে গাছে উঠার পরামর্শ দেন। সঙ্গে সঙ্গে নিয়ে আসা হয় মই। শেষমেশ মইয়ের সাহায্যে গাছে উঠেই ওই কর্মকর্তাকে ফোন করেন তিনি।

মূলত পানিদূষণ রুখতে যে প্লান্ট স্থাপন করা হচ্ছে, তা নিয়েই গ্রামবাসীদের সঙ্গে আলোচনা করতেই এদিনের সভায় এসেছিলেন অর্জুন মেঘওয়াল। কিন্তু মোবাইলে নেটওয়ার্কের ব্যাপারটি নজরে আসার পরেই তিনি উপস্থিত কর্মকর্তাদের তিন মাসের মধ্যে মোবাইলের টাওয়ার এবং বিদ্যুতের তার বসানোর নির্দেশ দেন। এর জন্য ১৩ লাখ রুপিও বরাদ্দ করেন।

ইতোমধ্যে ভারতের কেন্দ্রীয় রাষ্ট্রমন্ত্রীর গাছে উঠে ফোনের ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে গিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যেখানে ডিজিটাল ইন্ডিয়ার প্রতি বারবার জোর দিচ্ছেন, অথচ সেখানে দেশের প্রত্যন্ত গ্রামগুলিতে এখনো মোবাইল তো দূর বিদ্যুতের তারও পৌঁছায়নি। তাহলে কীভাবে প্রধানমন্ত্রীর ‘ক্যাশলেস ইন্ডিয়া’র স্বপ্ন সফল হবে? সেই প্রশ্নই এখন উঠতে শুরু করেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ