ঢাকা, বৃহস্পতিবার 17 October 2019, ২ কার্তিক ১৪২৬, ১৭ সফর ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

পাহাড় ধসে তিন পার্বত্য জেলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬৯

অনলাইন ডেস্ক: নিম্নচাপের প্রভাবে প্রবল বর্ষণের পর পাহাড় ধসে বাংলাদেশের পার্বত্যজেলা রাঙামাটি, চট্টগ্রাম ও বান্দরবানে ৬৯ জনের প্রাণহানি ঘটেছে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া ঢাকায় সংবাদ সম্মেলন করে পাহাড় ধসের ঘটনায় দুই সেনা কর্মকর্তাসহ ৩৯ জনের লাশ উদ্ধারের খবর জানিয়েছেন।

তবে স্থানীয় কর্মকর্তারা মঙ্গলবার বিকাল ৪টা পর্যন্ত রাঙামাটিতে ৩৫ জন, চট্টগ্রামে ২৭ জন এবং বান্দরবানে সাতজন নিহতের খবর সংবাদ মাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপের প্রভাবে গত রোববার থেকে দেশের দক্ষিণ পূর্বের জেলাগুলোতে চলছে ভারি বৃষ্টিপাত। পাহাড়ি ঢলে সোমবার রাতে পরিস্থিতি নাজুক হয়ে পড়লে চট্টগ্রামের সঙ্গে রাঙামাটি ও বান্দরবানসহ কক্সবাজারের সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়।

এরই মধ্যে বৃষ্টির পানিতে মাটি সরে গিয়ে তিন জেলার বিভিন্ন স্থানে পাহাড়ে ধস নামে। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের পাশাপাশি সেনাবাহিনী, পুলিশ ও স্থানীয় বাসিন্দারা বৃষ্টির মধ্যেই উদ্ধার তৎপরতা চালিয়ে গেলেও এখনও অনেকে নিখোঁজ থাকায় নিহতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে উদ্ধারকর্মীরা জানিয়েছেন।  

চট্টগ্রামের চন্দনাইশ ও রাঙ্গুনিয়া উপজেলার দুটি দুর্গম এলাকায় পাহড়ধসের ঘটনা ঘটায় সেখানে উদ্ধারকর্মীদের পৌঁছাতেও দেরি হয়েছে।

এদিকে প্রবল বৃষ্টিতে বান্দরবান জেলার প্রায় ২৫টি ইউনিয়ন বন্যা কবলিত হয়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে আড়াইশর বেশি পরিবার।  

পাহাড় ধসে হতাহতের সবচেয়ে বেশি ঘটনা ঘটেছে রাঙামাটি জেলায়। জেলার মানিকছড়িতে একটি সেনা ক্যাম্পের কাছে পাহাড় ধসের ঘটনায় উদ্ধার তৎপরতা চালাতে গিয়ে ফের ধসে নিহত হয়েছেন দুই কর্মকর্তাসহ চার সেনা সদস্য।

এছাড়া আরও দশজন আহত হয়েছেন এবং একজন নিখোঁজ রয়েছেন বলে আইএসপিআরের পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোহাম্মদ রাশিদুল হাসান জানিয়েছেন।

সাংবাদিকদের তিনি বলেন, “পাহাড় ধসের কারণে ওই এলাকায় সড়কপথে যোগাযোগ করা যাচ্ছে না। আবহাওয়া অনুকূল না থাকায় হেলিকপ্টারও নামানো যাচ্ছে না। তবে আহতদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।”

নিহতরা হলেন- সেনাবাহিনীর মেজর মাহফুজুল হক, ক্যাপ্টেন তানভীর সালাম শান্ত, করপোরাল আজিজ ও সৈনিক শাহীন।

বিকালে ঢাকায় সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া মানিকছড়ির নিহত সেনাসদস্যদের পরিচয় তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, দুপুর পর্যন্ত মোট ৩৯ জনের মৃত্যুর খবর মন্ত্রণালয়ে এসেছে, তাদের মধ্যে ৩৩ জন পাহাড়ে বাসবাসকারী।

“অনেকেই মাটিচাপা পড়ে আছেন। সেনাবাহিনী উদ্ধার কাজ চালাচ্ছে। ১৮টি আশ্রয়কেন্দ্র খুলে চার থেকে সাড়ে ৪ হাজার মানুষকে সেখানে রাখা হয়েছে।”-বিডিনিউজ

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ