ঢাকা, বুধবার 14 June 2017, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২8, ১৮ রমযান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ভারি বৃষ্টিপাতে আরো পাহাড় ধসের আশঙ্কা

স্টাফ রিপোর্টার : ভারি বৃষ্টিপাতের কারণে পাহাড়ি এলাকায় আরো ভূমি ও পাহাড় ধসের আশঙ্কা করছে আবহাওয়া অধিদফতর। 

গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে আগামী ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে এ তথ্য জানানো হয়। আগেরদিন সোমবারও পূর্বাভাসে অতি ভারি বৃষ্টির কারণে চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের পাহাড়ি এলাকায় ভূমিধসের আশঙ্কা করেছিল আবহাওয়া অধিদফতর।

এদিকে টানা বর্ষণে পার্বত্য জেলা রাঙামাটি, বান্দরবান ও চট্টগ্রামে পাহাড় ধসে গতকাল রাত ৯টায় নিহতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০৭। এর মধ্যে রাঙামাটিতে সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৬ জন, বান্দরবানে ৭ জন এবং চট্টগ্রামে ২৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

আবহাওয়া অধিদফতরের সহকারী আবহাওয়াবিদ মিজানুর রহমান বলেন, ‘আজ বুধবার চট্টগ্রাম ও পার্শ্ববর্তী এলাকাগুলোতে অস্থায়ী দমকা, ঝড়ো বাতাসের সঙ্গে মাঝারি থেকে ভারি এবং কোথাও কোথাও অতি ভারি বৃষ্টি, বজ্রসহ বৃষ্টিপাত হতে পারে। অব্যাহত ভারি বৃষ্টিপাতের কারণে পাহাড়ি এলাকায় ভূমি ও পাহাড় ধসের শঙ্কা রয়েছে। গত সোমবারও পূর্বাভাসে এমনটাই বলা হয়েছিল। এছাড়া রাত ও দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

আবহাওয়াবিদ মিজানুর রহমা জানান, মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত সীতাকুন্ডে ১১ মিলিমিটার, রাঙামাটিতে ১১২ মিলিমিটার, মাইজদীকোটে ৩১ মিলিমিটার এবং ফেনীতে ৫৭ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদফতরের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, দক্ষিণ, দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ১৫-২০ কিলোমিটার বেগে বাতাস বয়ে যেতে পারে। পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় আবহাওয়ার সামান্য পরিবর্তন হতে পারে। গত ২৪ ঘণ্টায় (বিকাল ৩টা পর্যন্ত) বৃষ্টিপাত হয়েছে ১২৮ দশমিক ২ মিলিমিটার।

আজ কর্ণফুলী নদীতে প্রথম ভাটা শুরু হবে রাত ৩টা ২৮ মিনিটে, এর উচ্চতা হতে পারে ৪ দশমিক ৫২ মিটার। এখানে প্রথম জোয়ার শুরু হবে সকাল ৯টা ৪৫ মিনিটে, উচ্চতা হতে পারে ১ দশমিক ১৯ মিটার।

কর্ণফুলীতে দ্বিতীয় ভাটা শুরু হবে বিকাল ৩টা ৩৬ মিনিটে, যার উচ্চতা হতে পারে ৪ দশমিক ৯৪ মিটার। দ্বিতীয় জোয়ার হবে রাত ১০টা ২৩ মিনিটের দিকে, এর উচ্চতা হতে পারে ১ দশমিক ২১ মিটার। চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরের জন্য অবশ্য পূর্বাভাসে কোনও সতর্কবাণী নেই। 

এদিকে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে আরো বলা হয়েছে, রংপুর, রাজশাহী, বগুড়া, পাবনা, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, ঢাকা, ফরিদপুর, মাদারিপুর, যশোর, কুষ্টিয়া, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার এবং সিলেট অঞ্চলসমূহের উপর দিয়ে দক্ষিণ/দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫-৬০ কি. মি. বেগে বৃষ্টি/বজ্রবৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে দমকা/ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দর সমূহকে ১ নম্বর (পুনঃ) ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

গতকাল সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত পূর্ববর্তী চব্বিশ ঘন্টায় দেশের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে রাঙ্গামাটিতে ৩৭৫ মিলিমিটার। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ চট্টগ্রামে ১২২ মিলিমিটার। এছাড়া ঢাকায় ২৮ মিলিমিটার, টাঙ্গাইল ১৩, ফরিদপুর ২, মাদারীপুর ৭, ময়মনসিংহ ৪৭, নেত্রকোনা ৫৫, সন্দ্বীপ ৪৮, সীতাকুন্ড ১০৫, কুমিল্লা ১০, চাঁদপুর ১১, মাইজদীকোর্ট ৭৫, ফেনী ৬৪, হাতিয়া ২৭, কক্সবাজার ৫৬, কুতুবদিয়া ৭০, টেকনাফ ১৪, সিলেট ৭৩, শ্রীমঙ্গল ৩৮, বরিশাল ১১, পটুয়াখালী ১, খেপুপাড়া ১ ও ভোলায় হয়েছে ৫ মিলিমিটার বৃষ্টি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ