ঢাকা, বুধবার 14 June 2017, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২8, ১৮ রমযান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সেমিফাইনালে বাংলাদেশকে নিয়ে সতর্ক কোহলি

স্পোর্টস রিপোর্টার : আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে নির্ধারিত হয়েছে চার সেমিফাইনালিস্ট। আজ প্রথম সেমিফাইনালে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের প্রতিপক্ষ পাকিস্তান। আর ১৫ জুন এজবাস্টনে দ্বিতীয় সেমির লড়াইয়ে মাঠে নামবে বাংলাদেশ-ভারত। গত বিশ্বকাপের দুই ফাইনালিস্ট নিউজিল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়াকে বিদায় করে দিয়ে ইংল্যান্ডের সঙ্গে শেষ চারে উঠেছে বাংলাদেশ। ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে এখন মাশরাফিদের প্রতিপক্ষ ভারত। বিরাট কোহলিদের বিপক্ষে ১৫ জুন, বার্মিংহ্যামের এজবাস্টনে মাঠে নামবে টিম বাংলাদেশ। ওই ম্যাচে মাশরাফি বাহিনীকে নিয়ে সতর্ক ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। কারণ বাংলাদেশ দল এখন আর আগের মতো নেই। ব্যাটিং ও বোলিংয়ে দারুণ পারফর্ম করে থাকেন টাইগাররা। ২৬৬ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ৩৩ রানে ৪ উইকেট হারানোর পরও নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ। সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহর ২২৪ রানের জুটির সুবাদে ৫ উইকেটে জয়  পেয়েছে মাশরাফির দল।
এটা হয়তো মাথায় আছে কোহলির। বাংলাদেশকে নিয়ে তাই ভারতীয় দলনেতার সতর্ক অবস্থান, ‘কিছু দল প্রতিপক্ষকে বিস্মিত করে দেয়। নির্দিষ্ট পরিস্থিতিতে তারা দারুণ ব্যাটিং এবং বোলিং করে থাকে।’ কোহলি স্বীকার করছেন, ওয়ানডে ক্রিকেট খেলা অঞ্চলই একটি বড় বিষয়। তিনি মনে করেন, টিম ইন্ডিয়া মানিয়ে নিচ্ছে ইংল্যান্ডের কন্ডিশনের সঙ্গে। কোহলির ভাষায়, ‘সীমিত ওভারে যারা ভারত দলে খেলছে, তারা অভিজ্ঞতা অর্জন করছে। প্রতিকূল কন্ডিশনেও মানি নিতে সক্ষম হচ্ছে।’ দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে সেমির টিকিট কেটে নেয়ার পরই প্রায় নিশ্চিত হয়ে যায়, বাংলাদেশই হচ্ছে ভারতের সম্ভাব্য প্রতিপক্ষ। বিষয়টা নিশ্চিত হওয়ার পরই বলতে গেলে বাংলাদেশকে প্রচ্ছন্ন হুমকি দিয়ে রাখলেন ভারত অধিনায়ক কোহলি। সাংবাদিকদের তিনি বলে দিলেন, ‘বার্মিংহ্যাম জায়গাটা আমাদের খুব পছন্দের। পিচটা আমাদের খেলার ধরনের পক্ষে মানানসই।’ অথ্যাৎ বলে দিতে চাইলেন, ‘যেই হোক প্রতিপক্ষ, আমরা আমাদের পছন্দের ভেন্যুতেই খেলতে যাচ্ছি। সুতরাং, সাধু সাবধান।’ ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি জানিয়ে দিয়েছেন, কে কে হচ্ছে ফাইনালের দুই প্রতিপক্ষ! তার মতে, ‘আসলে সবাই কিন্তু ভারত-ইংল্যান্ড ফাইনালই দেখতে চায়। দুই দলই যদি ভালো খেলে, তাহলে লোকজনের চাওয়াটাই কিন্তু সত্য হবে।’ যুক্তরাজ্যে ভারতীয় হাই কমিশনের একটি অনুষ্ঠানেই এমন মন্তব্য করেন ভারতীয় ওয়ানডে অধিনায়ক। যেখানে ভারতীয় দলের অনেকেই ছিলেন। তার কাছে আরও জানতে চাওয়া হয় কোন কোন দল যাবে ফাইনালে? তখন অবশ্য নিজের মত কৌশলেই দেন কোহলি, ‘আসলে যে কেউই হতে পারে। তবে আমরাই ফাইনালে  যেতে চাইবো।’ তবে  কোহলি ভালো খেলার পূর্বশর্ত হিসেবে  দেখিয়েছেন অনুকূল আবহাওয়া। আবহাওয়া ভালো হলে ভালো ক্রিকেট খেলা হবেই, ‘আলো ঝলমলে আবহাওয়া পেলে ইংল্যান্ডে ক্রিকেট খেলতে এরচেয়ে ভালো আর কিছুই নেই। কারণ সাদা বল এখনও সেভাবে সুইং করেনি। আর মেঘ এসে পড়লেই এখানে খেলার কন্ডিশন কিন্তু পাল্টে যায়।’ তিনি আরও যোগ করেন, ‘আপনি ব্যাটিংয়ে যাই করেন না কেন এই কন্ডিশনকে আপনাকে মেনে নিতেই হবে। আর এখানে খেলার এটাই সবচেয়ে বড় সৌন্দর্য্য।  ভারতীয় মিডিয়া তো ইতিমধ্যেই বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচের মধ্যে বারুদ ছড়াতে শুরু করে দিয়েছে। আনন্দবাজার পত্রিকা লিখেছে, ‘সাম্প্রতিককালে বাংলাদেশে তাদের (কোহলিদের) শক্ত প্রতিপক্ষ হিসেবে দেখা দিয়েে বেশ কয়েক বার। তবু বার্মিংহামে ফেভারিট হিসেবেই শুরু করবেন তারা (ভারতীয় দল)। ভারতীয় জনতাও ফের সংখ্যাধিক্য হওয়ার কথা। জনসমর্থনও তাই প্রচুর থাকবে।’ আনন্দবাজার তাদের এক রিপোর্টের শেষ অংশে লিখেছে, ‘এজবাস্টনে যদি বাংলাদেশ সামনে পড়েছে, আরও আগ্রাসী ভারতকে দেখা যাবে, লিখে দেয়া যায়। ডি ভিলিয়ার্স খুব ভাল বন্ধু কোহালির। বাংলাদেশে তেমন কোনও বন্ধু আছে বলে শোনা যায়নি!’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ