ঢাকা, বৃহস্পতিবার 15 June 2017, ০১ আষাঢ় ১৪২8, ১৯ রমযান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

নরসিংদী কলেজ ছাত্র মাহফুজের ব্যাগ ভর্তি গলিত খণ্ডিত লাশ উদ্ধার

নরসিংদী সংবাদদাতা : হত্যাকাণ্ডের দীর্ঘ ১৮ দিন ও হত্যাকারীর দেয়া স্বীকারোক্তির ৮দিন পর নরসিংদী সরকারী কলেজের ছাত্র মাহফুজ সরকারের খণ্ডিত লাশ গত মঙ্গলবার রাতে উদ্ধার করা হয়েছে। নরসিংদী থানা পুলিশ রাত সাড়ে ৯ টায় বাদুয়ারচরের হাড়িধোয়া নদীতে ভাসমান অবস্থা থেকে ট্রাভেল ব্যাগ ভর্তি খণ্ডিত দেহটি উদ্ধার করেছে। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মাহফুজকে হত্যা করে তার দেহটিকে ৮টি খণ্ড করা হয়েছে। মাথা দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। ২টি পা ৪টি খণ্ড করা হয়েছে, ২টি হাত দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। দেহের খণ্ডগুলো পচে বিনষ্ট হয়ে গেছে। বুকের পাজর বেরিয়ে গেছে, অন্যান্য খণ্ডগুলোর মাংস হাড় থেকে গলে খসে গেছে। তবে মাহফুজের মাথাটি খোঁজে পাওয়া যায়নি। হত্যাকারী রাবেয়া তার দেহটি বিচ্ছিন্ন করে অন্য জায়গায় ফেলে দিয়েছে।
জানা গেছে, গত ২৬ মে নরসিংদী জেলা শহরের বানিয়াছল মহল্লার (বৌয়াকুড় মোড়) আব্দুল মান্নান সরকারের পুত্র নরসিংদী সরকারী কলেজের বিএ দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র মাহফুজ  বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায়। এরপর আর সে  বাড়ি ফিরেনি। সেদিন বিকেলেই রাঙ্গামাটিয়া মহল্লার বিদেশ প্রবাসী আল মামুনের স্ত্রী রাবেয়া ইসলাম রাবু তাকে বাড়িতে ডেকে নিয়ে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে তাকে হত্যা করে। পরে তাকে বাথরুমে নিয়ে রক্ত ধুয়ে তার দেহটিকে ৮টি খণ্ড করে পলিথিন ব্যাগে মুড়িয়ে ডীপ ফ্রিজে রেখে দেয়। পরদিন ২৭ মে শনিবার রাতে রাবু তার দেহটি ট্রাভেল ব্যাগে ভর্তি করে গুম করে ফেলে। ঘটনাক্রমে এই ঘটনা ফাঁস হয়ে যাবার পর ১ মে নরসিংদী থানা পুলিশ রাবেয়া ইসলাম রাবুকে পুলিশ আটক করে। কয়েকদিন জিজ্ঞাসাবাদের পর সে পুলিশের নিকট ১৬১ ধারার জবানবন্দীতে মাহফুজ সরকারকে হত্যা করার কথা স্বীকার করেন। এরপর ৬ জুন রাবেয়া ইসলাম রাবু আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দীতে মাহফুজকে হত্যা করার কাহিনী বিবৃত করে। সে জানায় যে মাহফুজকে হত্যা করে তার লাশ বাঞ্ছারামপুরের মরিচাকান্দীতে যাবার পথে মেঘনার পানিতে ফেলে দিয়েছে। এরপর মাহফুজের পিতা ভাই ও আত্মীয় স্বজনরা মেঘনার পানিতে লাশ খোঁজাখুঁজি করে কোথাও পায়নি। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় লোকমুখে জানা যায় যে, নরসিংদী শহর সংলগ্ন হাজীপুর ইউনিয়নের বাদুয়ারচর গ্রামের ঈদগাহ সংলগ্ন হাড়িধোয়া নদীতে লাশ ভর্তি একটি ট্রাভেল ব্যাগ ভাসছে। এ খবর পেয়ে মাহফুজের বড় ভাই এড. রাসেল পুলিশকে জানালে নরসিংদী থানা পুলিশ রাত সাড়ে ৯ টায় স্থানীয় ব্যবসায়ী সুমনের সহযোগিতায় হাড়িধোয়া নদী থেকে মাহফুজের লাশ উদ্ধার করে। পরে পুলিশ লাশের সুরতহাল করে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করে। হত্যাকারী রাবেয়া ইসলাম রাবু স্বীকারোক্তিতে মাহফুজের লাশ মেঘনা নদীতে ফেলার কথা বললেও বাদুয়ারচর এলাকার লোকজন জানিয়েছে গত ১ রমজান থেকেই লাশ ভর্তি ব্যাগটি ঘটনাস্থলে ভাসছিল। কিন্তু লোকজন ভয়ে কিছু বলেনি। মঙ্গলবার ঘটনাক্রমে বিষয়টি সারা এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সাংবাদিকদের মাধ্যমে ঘটনাটি মাহফুজের পরিবারের গোচরীভূত হয়। পরে মাহফুজের বড় ভাই এড. রাসেলসহ অন্যান্য আত্মীয়রা থানা পুলিশের সহযোগিতায় লাশ উদ্ধার এবং সনাক্ত করে। মাহফুজের খণ্ডিত দেহের ৭টি অংশ ব্যাগের ভিতর পেলেও মাথাটি খুঁজে পাওয়া যায়নি। পুলিশ জানিয়েছে হত্যাকারী রাবেয়া লাশের মাথাটি অন্য কোন জায়গায় ফেলে দিয়েছে। ১৬৪ ধারার স্বীকারোক্তিতে লাশ ফেলার সঠিক স্থান্ এবং মাথা কোথায় ফেলেছে তা সঠিক বলেনি।
গতকাল বুধবার ময়নাতদন্ত শেষে পুলিশ মাহফুজের খণ্ডিত দেহগুলো তার পরিবারের নিকট হস্তান্তর করে। বিকেলে বাদ আছর ব্রাহ্মন্দী সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে নিহত মাহফুজের নামাযে জানাযা অনুষ্ঠিত। জানাযা শেষে তার লাশ গাবতলী গোরস্থানে দাফন করা হয়।
এব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই নুরে আলম হোসাইন জানান, গত মঙ্গলবার রাতে নিহত মাহফুজের লাশ উদ্ধার করে তা পোস্টমর্টেম করে পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। লাশের কিছু অংশ ডিএনএ পরীক্ষার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ