ঢাকা, মঙ্গলবার 20 June 2017, ০৬ আষাঢ় ১৪২8, ২৪ রমযান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

দৌলতপুরে দু’পক্ষের সংঘর্ষ : পুলিশের লাঠিচার্জ : আটক-৪

দৌলতপুর (কুষ্টিয়া) সংবাদদাতা: কুষ্টিয়ার দৌলতপুর থানার ভিতর শালিস নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধলে পুলিশের লাঠিচার্জ তা নিরসন হয়েছে। পুলিশ সংঘর্ষে লিপ্ত দু’পক্ষের ৪ জনকে আটক করেছে। গত শুক্রবার দুপুর ২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, উপজেলার পিয়াপুর ইউনিয়নের আমদহ সর্দারপাড়া গ্রামের ইন্তাদুলের ছেলে হাসান আলীকে একই এলাকার আবুল কালাম নামে এক আদম ব্যবসায়ী ৪ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা নিয়ে বাহরাইনে পাঠায়। সেখান গিয়ে কোন কাজ না পেয়ে দেশে ফিরে আসে হাসান আলী। বাড়ি ফিরে হাসান আলী আদম ব্যবসায়ী আবুল কালামের কাছে টাকা ফেরত চায়। আদম ব্যবসায়ী টাকা ফেরত দিতে অস্বীকৃতি জানালে হাসান আলী দৌলতপুর থানায় অভিযোগ করে। অভিযোগের ভিত্তিতে দৌলতপুর থানা পুলিশ উভয়পক্ষকে থানায় ডেকে শালিস বসিয়ে মীমাংসার জন্য বলে। পুলিশের নির্দেশ মোতাবেক দুই পক্ষের লোকজনকে নিয়ে একটি শালিস বোর্ড গঠন করে মীমাংসার জন্য বসেন। শালিস বোর্ড আদম ব্যবসায়ী আবুল কালামকে ১ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা হাসান আলীকে ফেরত দেওয়ার সিদ্ধান্ত দিলে আদম ব্যবসায়ী আবুল কালামের ভাই ছালাম তা মেনে নিতে অস্বীকৃতি জানায়। এসময় উভয়পক্ষের লোকজনের মধ্যে তর্ক বিতর্কের একপর্যায়ে সংঘর্ষ বাঁধে। থানার ভিতর সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশ ক্ষুব্ধ হয়ে দুই পক্ষের লোকজনকে বেধড়ক লাঠিচার্জ করে। সংঘর্ষ ও পুলিশের লাঠিচার্জে অন্তত ৪জন আহত হলে তাদের দৌলতপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এঘটনায় পুলিশ উভয়পক্ষের সেকেন্দার আলী, ইন্তাদুল, হাসান আলী ও আদম ব্যবসায়ী আবুল কালামকে আটক করে থানা হাজতে আটিকিয়ে রাখে।
থানার ভিতর শালিস বসা নিয়ে দুইপক্ষের সংঘর্ষের বিষয়ে দৌলতপুর থানার ওসি (তদন্ত) আজগর আলী জানান, থানার বাইরে শালিস নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে তর্ক বিতর্ক ও উত্তেজনার সৃষ্টি হলে তা নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। সেখানে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিগণ উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ