ঢাকা, মঙ্গলবার 20 June 2017, ০৬ আষাঢ় ১৪২8, ২৪ রমযান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

শ্বশুরের জালিয়াতির কথা জানালেন জামাই!

সাপাহার (নওগাঁ) সংবাদদাতা: সাপাহার রিপোর্টার্স ফোরামে শ্বশুরের বিভিন্ন সময়ের বিভিন্ন জালিয়াতীর কথা তুলে ধরে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ভুক্তভোগী জামাই আক্তার হোসেন।
শুক্রবার ১১টার দিকে রিপোর্টার্স ফোরামে সাংবাদিকদের সামনে লিখিত বক্তব্যে আক্তার হোসেন সাংবাদিকদের জানান, দীর্ঘ চার বছর আগে উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের তফিজ উদ্দীনের মেয়েকে বিয়ে করে আক্তার।
বিয়ের পর থেকে সুখ সাচ্ছন্দে দাম্পত্য জীবন চলে যাচ্ছিল তাদের। তার শ্বশুরের সাথেও তার একটা আন্তরিকতার সৃষ্টি হয়। এরই সুত্র ধরে শ্বশুর জামাই একসাথে ব্যবসা করার পরিকল্পনা করে। আর সেটাকে বাস্তব রূপ দান করতে গিয়ে শ্বশুর-জামাই এক সাথে মরিচের ব্যবসা শুরু করে।
পরে মহাজনের কাছ থেকে বাঁকী লেন দনে শুরু করে তারা। এর এক পর্যায়ে মহাজনের নিকট বড় অঙ্কের বাঁকী পড়লে আক্তার তার শ্বশুরকে সেটার শেয়র অনুযায়ী পরিশোধ করতে বলে। কিন্তু শ্বশুর তফিজউদ্দীন আজ-কাল করতে করতে বিভিন্ন টালবাহানা শুরু করে । অদ্যবধি  সে টাকা পরিশোধ করেনি।
উল্লেখ্য যে, তফিজউদ্দিনের চেক প্রদাণ করে সে মহাজনের কাছ থেকে বাকি নেয়া আছে বলেও জানান আক্তার।
তারপর সে টাকা দিবেনা মর্মে তার মেয়েকে নানান বুদ্ধি দিয়ে আক্তারের কাছ থেকে গত ০৫ এপ্রিলে নিজের বাড়ীতে নিয়ে আসে। মেয়েকে আনার দিন আক্তারের অনুপস্থিতিতে নগদ দুই লক্ষ পনের হাজার টাকা সহ একটি স্বর্ণের চেইন নিয়ে চলে যায়।
বর্তমানে তফিজ উদ্দীন তার মেয়েকে দিয়ে আক্তারের কাছ থেকে ব্যাবসা করবে মর্মে অনেক টাকা পয়সার দাবী করে তাকে তালাক প্রদাণ করবে মর্মে বিভিন্ন জায়গায় ধর্না দিচ্ছে।
কিন্তু আক্তার তার বিবাহিত স্ত্রীকে অনেক ভালোবাসেন মর্মে তালাক দিতে নারাজ বলে তাকে অনেক প্রকার অপবাদ দিচ্ছে ওই জালিয়াত শ্বশুর। উল্লেখ্য যে, বিয়ের পর তাদের কোল জুড়ে একটা ফুটফুটে ছেলে বাচ্চা হয় যার বর্তমান বয়স দুই বছর।
শ্বশুরের এমন বাজে মনোভাবের কারনে তাদের সংসারে অশান্তি বিরাজ করছে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানান ভুক্তভোগী জামাই আক্তার।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ