ঢাকা, বৃহস্পতিবার 6 July 2017, ২২ আষাঢ় ১৪২8, ১১ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সিলেটে ৫৫ ইউনিয়নের দেড়  লাখ মানুষ পানিবন্দী

 

* ১১টি আশ্রয়কেন্দ্রে ১৪৫টি পরিবারের ৬২৯ জন মানুষ আশ্রয় নিয়েছেন

মোঃ আব্দুর রহীম, বিয়ানীবাজার (সিলেট) : উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল আর টানা বর্ষণে সিলেট জেলার ৮টি উপজেলার মানুষ বন্যায় কবলিত। মানুষ পানিবন্দী রয়েছেন ১ লক্ষ ৩৮ হাজার ৭৫৫ জন। দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে পানি। ফলে নতুন নতুন এলাকা বন্যায় প্লাবিত হচ্ছে। বেড়েই চলছে বানবাসী মানুষের দুর্ভোগ দুর্দশা। আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে বাড়ছে বানভাসী মানুষের সংখ্যা। অপরিবর্তিত রয়েছে বন্যা পরিস্থিতি। প্লাবিত প্রায় প্রতিটি গ্রামের সাথে উপজেলা ও জেলা সদরের সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন রয়েছে বলেও সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে। 

সিলেট জেলা প্রশাসনের তথ্য অনুযায়ী সিলেটে বন্যা কবলিত উপজেলাগুলো হলো বিয়ানীবাজার, গোলাপগঞ্জ, জকিগঞ্জ, ফেঞ্চুগঞ্জ, ওসমানীনগর ও বালাগঞ্জ। এছাড়াও দক্ষিণ সুরমা ও কানাইঘাট উপজেলা আংশিকভাবে প্লাবিত হয়েছে। বন্যা কবলিত এলাকার  সড়ক গুলোতে পানি উঠে যাওয়ার ফলে সড়কগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। 

এ সকল উপজেলার ৫৫টি ইউনিয়ন পরিষদের মোট ৪৬৬টি গ্রামের ১,৩৮,৭৫৫ জন মানুষ বন্যা কবলিত হয়েছেন। বিয়ানীবাজার, বালাগঞ্জ, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলায় বন্যার্তদের জন্য ১১টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। এসব আশ্রয়কেন্দ্রে ১৪৫টি পরিবারের ৬২৯ জন মানুষ আশ্রয় নিয়েছেন বলে জানিয়েছে সিলেট জেলা প্রশাসন। 

জেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে বন্যার কারণে সিলেটের ২০৬টি বিদ্যালয়ে পাঠদান স্থগিত করা হয়েছে বলে। এরমধ্যে ১৮৫টি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং ২১টি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়। স্কুলের দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষা ও টেস্ট পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে।  সিলেটে জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির বিশেষ সভা মঙ্গলবার বিকেলে অনুষ্ঠিত হয়। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়ার উপস্থিত ছিলেন। সভায় সিলেটের বিভাগীয় কমিশনারের দাবির প্রেক্ষিতে নতুন করে আরো ৫০০ মেট্রিক টন চাল ও নগদ ১০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়ার ঘোষণা দেন মন্ত্রী মায়া। সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. শহীদুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, ভারতের পাহাড়ি ঢলে সুরমা ও কুশিয়ারা নদীর পানি উপচে সিলেটের বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। এ পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রশাসন তৎপর রয়েছে। বন্যা পরিস্থিতি সার্বক্ষণিক নজরদারিতে রেখেছে জেলা প্রশাসন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ