ঢাকা, শুক্রবার 7 July 2017, ২৩ আষাঢ় ১৪২8, ১২ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ছেলে হত্যার বিচার চাইতে না  পারলে পিতা যাবেন কোথায়?

স্টাফ রিপোর্টার : একজন পিতা যদি তার ছেলে হত্যার বিচার চাইতে না পারেন তা হলে তিনি যাবেন কোথায়- এই প্রশ্ন তুলেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। ভোলার চরফ্যাশন উপজেলায় ছাত্রদলের সভাপতি আবদুর রাজ্জাক হত্যা মামলার বিষয়ে শুনানিতে এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের উদ্দেশে এ মন্তব্য করেন আপিল বিভাগ। একই সঙ্গে মামলায় নারাজি আবেদন গ্রহণ করে নিহতের পিতা মো. হোসেন মিয়াকে বাদী হিসেবে নথিভুক্ত করার নির্দেশ দেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস ক) সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের সাত বিচারপতির পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ এ নির্দেশ দেন।

আদালতে নিহতের পিতাকে বাদী হিসেবে নথিভুক্ত করা সংক্রান্ত এক আবেদনের পক্ষে শুনানিতে উপস্থিত ছিলেন আইনজীবী ব্যারিস্টার এএম মাহবুব উদ্দিন খোকন। অন্যদিকে ছিলেন ব্যারিস্টার এবিএম আলতাফ  হোসেন। সরকার পক্ষে ছিলেন এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

মামলার শুনানিতে নারাজি সংক্রান্ত আবেদন গ্রহণ করার বিষয়ে এটর্নি জেনারেল আপত্তি জানালে আদালত বলেন, একজন পিতা যদি তার ছেলের হত্যার বিচার চাইতে না পারেন, তা হলে তিনি যাবেন কোথায়?

আইনজীবী ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন জানান, ২০১৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর ঈদুল আজহার দিন রাতে ভোলা জেলার চরফ্যাশন উপজেলা হাজারিগঞ্জ ইউনিয়নের বেড়িবাঁধ এলাকায় ছাত্রদল নেতা মো. আব্দুর রাজ্জাককে সন্ত্রাসীরা পিটিয়ে হত্যা করে। পরদিন ২৭ সেপ্টেম্বর ওই ঘটনায় স্থানীয় চৌকিদার মুফু আলম বাদী হয়ে অজ্ঞাত চারজনকে আসামি করে মামলা করেন। মামলার বিষয়ে আব্দুর রাজ্জাকের পরিবার কিছুই জানত না। আব্দুর রাজ্জাক চরফ্যাশন উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি ছিলেন।

ওই মামলার চার্জশিট আদালতে দাখিল করার পর (অভিযোগের বিষয়ে) শুনানির দিন ধার্য করা হয়। ২০১৬ সালের ২৯ আগস্ট শুনানির দিন নারাজি আবেদন করেন মৃত আব্দুর রাজ্জাকের পরিবার।

মামলায় নারাজি আবেদন করার কারণে দুই আইনজীবীর ওপর হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। হামলায় দুই আইনজীবী আহত হন। এ ঘটনায় ওইদিনই আদালত বর্জন করেন আইনজীবীরা। পরে ওই আবেদন নিয়ে হাইকোর্টে আসে বাদীপক্ষ।

আইনজীবী ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন জানান, পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন সংযুক্ত করে হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন আব্দুর রাজ্জাকের পিতা মো. হোসেন মিয়া। ওই আবেদন শুনানি করে হাইকোর্ট মামলার নারাজি আবেদন গ্রহণ করার নির্দেশ দেন। পরে বিবাদীরা ওই আবেদনের বিরুদ্ধে অপর একটি বেঞ্চে গেলে তা স্থগিত করে দেন হাইকোর্ট। আব্দুর রাজ্জাকের বাবা ওই আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করেন। গতকাল বৃহস্পতিবার এই আপিলের শুনােিত নারাজির আবেদন গ্রহণ করার নির্দেশ দেন আপিল বিভাগ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ