ঢাকা, শুক্রবার 7 July 2017, ২৩ আষাঢ় ১৪২8, ১২ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

খুলনার স্বর্ণ ব্যবসায়ী কমল পাল হত্যা মামলা সিআইডিতে স্থানান্তর

খুলনা অফিস : খুলনা মহানগরীর খানজাহান আলী থানা থেকে স্বর্ণ ব্যবসায়ী কমল পাল হত্যা মামলাটি খুলনার অপরাধ তদন্ত বিভাগে (সিআইডি) স্থানান্তর করা হয়েছে। সোমবার ঢাকার পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত আইজির দপ্তর থেকে মামলাটি সিআইডিতে স্থানান্তরের নির্দেশ আসে। বৃহস্পতিবার মামলাটি সিআইডি বিভাগের কর্মকর্তার হাতে মামলার ডকেট বুঝিয়ে দিছেন খানজাহান আলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মো. আশরাফুল আলম।

কমল পাল হত্যা মামলাটি সিআইডিতে স্থানান্তরের বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে, ওসি আশরাফুল আলম বলেন, সিআইডির তালিকাভুক্ত যে কোন মামলা তারা অতিরিক্ত আইজিপির নির্দেশনা ক্রমে তাদের আওতায় নিয়ে তদন্ত করতে পারেন। তারই ধারাবাহিকতায় মামলাটি সিআইডিতে স্থানান্তর করা হয়েছে। এটি একটি স্বাভাবিক  প্রক্রিয়া।

প্রসঙ্গত নগরীর ইস্টার্ন জুট মিল গেট এলাকায় ‘নিউ ভাই বন্ধু জুয়েলার্স’ নামক স্বর্ণের দোকান বন্ধ করে ইজিবাইকে চড়ে আটরা পাল পাড়ার বাড়িতে ফিরছিলেন কমল চন্দ্র পাল। বাড়ির কাছাকাছি পৌঁছালে দোকান কর্মচারী রানা এবং আরও তিন যুবক জোরপূর্বক ইজিবাইকটি বাইপাস সড়কের নির্জন জায়গায় নিয়ে কমল পালকে জবাই করে তার কাছে থাকা ১৫/১৬ ভরি স্বর্ণলংকার ও লক্ষাধিক টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে পথচারী ও এলাকাবাসী রক্তাক্ত অবস্থায় স্বর্ণ ব্যবসায়ী কমল চন্দ্র পালকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণে কমল মারা গেছে বলে ধারণা চিকিৎসকদের। নিহত কমল আটরা পালপাড়া এলাকার অনিমেশ চন্দ্র পালের ছেলে। হত্যাকান্ডের ওই রাতেই  দোকান কর্মচারী রানা ও তার এক সহযোগী আলমকে গ্রেফতার করে পুলিশ। হত্যাকান্ডের ঘটনায় কমল পালের ভাই খোকন পাল বাদি হয়ে অজ্ঞাতদের আসামী করে পরের দিন সকালে খানজাহান আলী থানায় মামলা দায়ের করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ