ঢাকা, শুক্রবার 7 July 2017, ২৩ আষাঢ় ১৪২8, ১২ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সরকারি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড়

খুলনা অফিস : ‘আমি ও আমার অফিস দুর্নীতিমুক্ত’ লেখা একটি ব্যানার দৃশ্যমান স্থানে টানানোর জন্য কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের কমিশনার ড. নাসির উদ্দিন আহমেদ। একই সঙ্গে সরকারি ও সেবাদানকারী অফিসগুলোতে দালালের তৎপরতা দূর করার আহ্বান জানান। এছাড়া গ্রাহকদের হয়রানি বন্ধ করতে অফিসের মাধ্যমে তথ্য মেলা ও সেবা সপ্তাহ চালু করার পরামর্শ দেন তিনি। খুলনার পাইকগাছা উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে বিআইজিডি’র সহযোগিতায় দুর্নীতি দমন কমিশন, উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি ও উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত গণশুনানী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ আহ্বান জানান।  

দুদক জনগণের পক্ষে উল্লেখ করে উপস্থিত কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, কোন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও জনগণকে হয়রানী করার অভিযোগ পাওয়া গেলে তাদের কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। সহজেই জনগণ যাতে সেবা পায় সে জন্য তিনি সেবা প্রদানকারী কর্মকর্তাদেরকে আন্তরিক ভাবে কাজ করার আহ্বান জানান। গণশুনানি অনুষ্ঠানে ১০টি সরকারি সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে স্থানীয় সাধারণ জনগণের আনিত বিভিন্ন অভিযোগের শুনানী হয়। গণশুনানীতে অতিরিক্ত অর্থ আদায়, ঘুষ, হয়রানিসহ পাইকগাছা উপজেলার এসব সরকারি ও সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে পাহাড় পরিমাণ অভিযোগ করেছেন সেবা গ্রহীতারা। যেসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে গ্রাহকরা অভিযোগ করেন তা হলো, উপজেলা ভূমি অফিস, উপজেলা জরিপ অফিস, সাব-রেজিস্ট্রি অফিস, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, প্রস্তাবিত কর্মকর্তার অফিস, সমাজ কল্যাণ অফিস এবং প্রাথমিক ও মাধ্যমিক অফিস। গ্রাহকরা সবচেয়ে বেশি অভিযোগ করেন উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ভূমি অফিসের বিরুদ্ধে। তাছাড়া জরিপ অফিস, পল্লী বিদ্যুৎ ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাশাপাশি উপস্থিত এলাকাবাসী তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন। 

পাইকগাছা মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি পাঠাগারের সম্পাদক মাসুদুর রহমান অভিযোগ করেন, তাঁর পাঠাগারটির জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাছে পাঁচ হাজার টাকা বরাদ্দ আসে। কিন্তু ওই টাকা তাঁদের না জানিয়ে অন্য প্রতিষ্ঠানকে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। যা পরবর্তীতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে। এ ব্যাপারে ইউএনও দপ্তরে একাধিকবার যোগাযোগ করেও কোনো ফল হয়নি। এছাড়া লস্কার ও সোলাদানা ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে খাজনার নামে অতিরিক্ত অর্থ আদায়, হয়রানি ও ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ করেন গ্রাহকরা। এছাড়া উপজেলা জরিপ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মোটা অঙ্কের টাকা বিনিময়ে একজনের জমি অন্যের নামে রেকর্ড করে দেওয়ার অভিযোগ করেন কয়েকজন গ্রাহক। এ ব্যাপারেও তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেয়া হয়। পল্লী বিদ্যুতের বিরুদ্ধে সংযোগ দেয়ার জন্য টাকা জমা দেওয়ার পরও দীর্ঘদিন ধরে সংযোগ না দেয়া, বিদ্যুৎ সংযোগের নামে অতিরিক্ত অর্থ আদায়, মোটা অংকের ঘুষ দাবি করার অভিযোগ করা হয়।  চিকিৎসকদের সময় মতো কর্মস্থলে না থাকা, প্রাইভেট প্রাকটিসে বেশি মনোযোগী হওয়া, হাসপাতাল থেকে রোগীদের ওষুধ না দেয়া, বাইরে থেকে প্যাথলজি পরীক্ষা করানোসহ বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ করেন গ্রাহকরা। স্বচ্ছলদের ভিজিডি কার্ড, পূর্ণ বয়স না হওয়ার পরও বয়স্ক ভাতা প্রদান, প্রকৃত প্রতিবন্ধীদের ভাতা না দেওয়াসহ বিভিন্ন অভিযোগ করা হয় সমাজ কল্যাণ অফিসের বিরুদ্ধে। অনুষ্ঠানে জনগণকে হয়রানি ও অসাদচরণ করার অভিযোগে সোলাদানা ইউনিয়নের সহকারী ভূমি কর্মকর্তা নূর ইসলামকে শোকজ এবং কয়েকজনের অভিযোগের ভিত্তিতে লস্কর ইউনিয়নের সহকারী ভূমি কর্মকর্তা লতিফা খানমের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। অন্যান্য অভিযোগ আমলে নিয়ে সমাধান ও প্রতিবেদন দাখিলের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্মকর্তাদেরকে নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দেয়া হয়। 

গণশুনানী অনুষ্ঠানে ১০টি সরকারি সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে স্থানীয় সাধারণ জনগণের আনিত বিভিন্ন অভিযোগের শুনানী হয়। গণশুনানীতে অতিরিক্ত অর্থ আদায়, ঘুষ, হয়রানিসহ পাইকগাছা উপজেলার এসব সরকারি ও সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে পাহাড় পরিমাণ অভিযোগ করেছেন সেবা গ্রহীতারা। যেসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে গ্রাহকরা অভিযোগ করেন তা হলো, উপজেলা ভূমি অফিস, উপজেলা জরিপ অফিস, সাব-রেজিস্ট্রি অফিস, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার অফিস, সমাজ কল্যাণ অফিস এবং প্রাথমিক ও মাধ্যমিক অফিস। গ্রাহকরা সবচেয়ে বেশি অভিযোগ করেন উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ভূমি অফিসের বিরুদ্ধে। তাছাড়া জরিপ অফিস, পল্লী বিদ্যুৎ ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাশাপাশি উপস্থিত এলাকাবাসী তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এসব অভিযোগের বিষয়ে জেলা প্রশাসক এম আমিন উল আহসান বলেন, প্রতিটি অভিযোগের ব্যাপারেই তদন্ত হবে। অভিযোগগুলো সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠিয়ে দেয়া হবে। পাইকগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফকরুল হাসানের সভাপতিত্বে এবং জেলা প্রশাসক আমিন উল আহসানের সঞ্চালনায় ‘জানবো জানবো দুর্নীতি রুখবো’ প্রতিপাদ্য বিষয়ের উপর গণশুনানী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিআইজিডি প্রতিনিধি আরাফাত জুবায়ের, দুদক প্রধান কার্যালয়ের পরিচালক মো. মনিরুজ্জামান, বিভাগীয় পরিচালক ড. মো. আবুল হাসান, উপ-পরিচালক মো. আবুল হোসেন, উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট স ম বাবর আলী, পৌর মেয়র সেলিম জাহাঙ্গীর, অস্ট্রেলিয়ার মেলবর্ন ইউনিভার্সিটির প্রফেসর ড. আছাদুজ্জামান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শেখ শাহাদাৎ হোসেন বাচ্চু, ওসি আমিনুল ইসলাম বিপ্লব, ইউপি চেয়ারম্যান কওছার আলী জোয়াদ্দার। উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান, জনপ্রতিনিধি ও দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির নেতৃবৃন্দ। এর আগে অতিথিবৃন্দ দুর্নীতি প্রতিরোধ বিষয়ক র‌্যালী ও মানবন্ধন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ