ঢাকা, বুধবার 12 July 2017, ২৮ আষাঢ় ১৪২8, ১৭ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

মাশরাফিকে বাদ দেয়ার প্রশ্নই ওঠে না -পাপন

স্পোর্টস রিপোর্টার : ওয়ানডের অধিনায়কত্ব থেকে মাশরাফিকে সরিয়ে দেয়ার একটা গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল কিছুদিন ধরেই। ওয়ানডে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের সামনে রেখেই শুরু হয়েছিল এমন জল্পনা-কল্পনা। তবে সব গুঞ্জন উড়িয়ে দিয়ে ক্রিকেট বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানিয়ে দিলেন মাশরাফি যতদিন চাইবে ততদিন ওয়ানডে খেলতে পারবে। গতকাল মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে সংবাদ সম্মেলন করে তিনি বলেন, ‘এই মুহূর্তে মাশরাফিকে নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় আমি অবাক হয়েছি। একটা কথা স্পষ্ট বলে দিচ্ছি, মাশরাফি যতদিন খেলতে পারবে, ততদিন ওকে বাদ দেয়ার প্রশ্নই ওঠে না। কারণ সে শুধু একজন খেলোয়াড়ই নয়, একজন অধিনায়কও। ওর মতো অধিনায়ক বাংলাদেশে খুঁজে পাওয়া খুব কঠিন।’ মাশরাফির বিকল্প পাওয়া বেশ কঠিন বিসিবির জন্য। অধিনায়কের পাশাপাশি মাশরাফি দলের অন্যতম সেরা পেসার। সে কথা আবারও মনে করিয়ে নাজমুল হাসান পাপন বলেন, ‘ওয়ানডেতে মাশরাফির দলে থাকা কিংবা না থাকা নিয়ে সেদিন কোনও কথাই হয়নি। কিন্তু বিষয়টি এমনভাবে প্রচার হয়েছে যে সব জায়গায় বলা হচ্ছে ওয়ানডে থেকে মাশরাফিকে এখনই বাদ দেয়া হচ্ছে, আর নতুন অধিনায়ক খোঁজা হচ্ছে।’ মাশরাফির বিকল্প তৈরি না করে এমন কিছু বিসিবি কখনোই করবে না বলে জানালেন বোর্ড সভাপতি। তিনি বলেন, ‘এই ধরনের প্রশ্ন এই সময় ওঠা উচিতই না। সামনে আমাদের অনেক খেলা আছে। তার আগে মাশরাফির বিকল্প না খুঁজেই অধিনায়কত্ব পরিবর্তনের প্রশ্ন কী করে আসে। আমরা যা কিছুই করি সেসব সংশ্লিষ্ট খেলোয়াড়দের সঙ্গে আলাপ করেই করি। আর ওয়ানডের অধিনায়কত্ব নিয়ে মাশরাফির সঙ্গে আমার কোনও কথাই হয়নি। মাশরাফি শুধু খেলোয়াড় হিসেবে নয়, অধিনায়ক হিসেবেও সেরা। এই দায়িত্বে তার বিকল্প পাওয়া অসম্ভব। তার পারফরম্যান্সও অনেক ভালো।’ সিনিয়র ক্রিকেটারদের নিয়ে নাজমুল হাসানের বলেন, ‘আমাদের মাথায় সব সময় চিন্তা থাকে সাকিব চলে গেলে কী হবে, মুশফিক না থাকলে কী হবে? এই চিন্তা আমাদের মাথায় আছে এবং থাকবে। তবে অভিজ্ঞদের নিয়ে ভাবার মানে এই নয় যে তাদের বাদ দেয়ার কথা ভাবা হচ্ছে। প্রসঙ্গটা মাশরাফির জন্য অস্বস্তিকর, আমাদের জন্য তো বটেই।’ ২০১৯ বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে ধোনি অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেয়ায় দায়িত্বটা পেয়েছেন বিরাট কোহলি। বাংলাদেশে এমন কিছু হতে পারে কিনা এমন প্রশ্নে নাজমুল হাসান বলেন, ‘এটা আমাদের ভাবনায় আছে। এর বড় উদাহরণ টি-টোয়েন্টিতে অধিনায়কত্ব পরিবর্তন। এর সঙ্গে ওয়ানডের কোনও সম্পর্কই নেই।’ মাশরাফির ভবিষ্যৎ নিয়ে গুঞ্জনটা জোরালো হয়েছিল কদিন আগে সংবাদ সম্মেলনে বোর্ড প্রধানের বক্তব্যের জেরেই। আজ সংবাদ সম্মেলনে নাজমুল হাসান বলেছেন, ‘সেদিন আমি যেটা বলেছি সেটা পরিষ্কার। আমাকে ধোনির উদাহরণ টেনে প্রশ্ন করা হয়েছিল। ধোনি ২০১৯ বিশ্বকাপে খেলবে না দেখে এখন থেকেই ভারত তাদের অধিনায়ক পরিবর্তন করেছে। বাংলাদেশে এমন কোনো পরিকল্পনা আছে কি না? তখন আমি বলেছিলাম এর যে চিন্তা ভাবনা আছে, এর বড় উদহারণই তো টি-টোয়েন্টিতে অধিনায়কত্ব পরিবর্তন। এর সঙ্গে ওয়ানডের কোনো সম্পর্কই নেই।’ সাম্প্রতিক সময়ে কয়েকজন ক্রিকেটারের ব্যক্তিগত জীবন বিতর্কিত ঘটনায় কলঙ্কিত। যার সর্বশেষ উদাহরণ মোহাম্মদ শহীদ। গত রবিবার বিসিবি কার্যালয়ে গিয়ে শহীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন তার স্ত্রী। ক্রিকেটারদের জীবনের এসব ঘটনায় বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন শুধু বিব্রত নন, ভীষণ ক্ষুব্ধও। গতকাল প্রসঙ্গটা ওঠায় ক্ষোভ চেপে রাখতে পারেননি নাজমুল হাসান। ক্রিকেটারদের সতর্ক করে তিনি বলেন, ‘তাদের ভালো খেলোয়াড় হলেই শুধু চলবে না, ভালো মানুষও হতে হবে। এটা আমি শুরু থেকেই বলে আসছি। আমরা খেলোয়াড়দের নিয়ন্ত্রণ করার অনেক চেষ্টা করছি। আমাদের তত্ত্বাবধানে তারা যখন হোটেলে থাকে, তখন আমরা তাদের ব্যাপারে অনেক কঠোর থাকি। সমস্যা হচ্ছে, ওরা যখন ছুটিতে থাকে তখন ওদের ব্যক্তিগত বিষয়ে আমরা তেমন জানতে পারি না।’ অতীতের উদাহরণ টেনে ক্রিকেটারদের জন্য নাজমুল হাসানের সতর্কবাণী, ‘এ ধরনের ঘটনা আমাদের নজরে আছে এখন। আমাদের পক্ষে এগুলো মেনে নেওয়া সম্ভব নয়। অতীতের বিতর্কিত ঘটনাগুলো আমরা সমর্থন করা তো দূরের কথা, উল্টো অ্যাকশনে গিয়েছি। আগামীতেও তা-ই হবে। আমরা চাই সবকিছু ঠিকঠাক চলুক। নয়তো ভবিষ্যতে আরও কঠিন অ্যাকশনে যেতে বাধ্য হবো।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ