ঢাকা, শুক্রবার 14 July 2017, ৩০ আষাঢ় ১৪২8, ১৯ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

প্রতিশ্রুতি মোতাবেক ট্রাম্প ব্যবসা থেকে পুরোপুরি সরে যাননি

১৩ জুলাই, দ্য ইন্টারসিপ্ট, র’স্টোরিকম, ডেইলি বিস্ট : যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের আগে নিজের ব্যবসা থেকে সরে আসার প্রতিশ্রুতি ও ব্যক্তিগত সকল বিষয় দুই ছেলের ওপর অর্পিত করার ঘোষণা দিয়েছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। কিন্তু এই সম্পর্কিত প্রয়োজনীয় সকল কাগজপত্র সম্পন্ন করতে অবহেলা করছেন তিনি। খবর মার্কিন সংবাদমাধ্যম দ্য ইন্টারসিপ্টের।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘জানুয়ারিতে সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প ক্যামেরার সামনে যে ডকুমেন্টগুলো এনেছিলেন তা ছিল মূলত খালি কাগজ। সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প বলেছিলেন, আমি কিছু কাগজে স্বাক্ষর করে আমার কোম্পানির পরিচালনার দায়িত্ব পুত্রদের দিয়ে দিয়েছি। এখন থেকে তারা এই ব্যবসা দেখভাল ও পরিচালনা করবে।

ট্রাম্প তার ছেলে ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র এবং এরিক ট্রাম্পের ওপর ব্যবসায়ের সব দায়িত্ব অর্পণ করতে অ্যাটর্নি জেনারেল সেরি ডিলনকে নিয়োগ করেছিলেন। কিন্তু তার কার্যক্রম এখনো ঢিলেঢালাভাবে চলছে। ডিলন এর আগে বলেছিলেন, ট্রাম্পের ব্যবসা তার ছেলে ট্রাম্প জুনিয়র, এরিক এবং তার প্রধান অর্থ উপদেষ্টা অ্যালেন উইসেলবার্গ পরিচালিত একটি ব্লাইন্ড ট্রাষ্টে চলে যাবে। কিন্তু ব্লাইন্ড ট্রাস্ট্রের বিষয়টির এখনও কোন সমাধান হয় নি। ১৯ জানুয়ারি ট্রাম্প অর্গানাইজেশনের আইনজীবী অ্যালেক্স গার্টেন সিএনএনকে বলেছিলেন, ট্রাম্প ট্রাম্প অর্গানাইজেশনের ব্যবসাসহ ৪০০টি কর্পোরেট প্রতিষ্ঠান থেকে নিজকে সরিয়ে নিচ্ছেন। দ্য ইন্টারসিপ্টের প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘ট্রাম্প প্রতিশ্রুতি মোতাবেক কিছু ছোটখাট কথা রক্ষা করেছেন এবং কিছু ব্যবসা থেকে নিজকে সরিয়ে নিয়েছেন। কিন্তু সত্যিটা হল ট্রাম্প সেটি করেছেন আংশিকভাবে।’

নিউ ইয়র্কের চারটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে ট্রাম্প এখনও সিইও পদে আছেন। কিন্তু এর আগে ট্রাম্প দাবি করেছেন তিনি তার কোনো প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সংযুক্ত থাকবেন না। জুনের মাঝামাঝি সময়েও ট্রাম্প লাস ভেগাস কর্পোরেশনের সিইও হিসেবে ছিলেন। জর্জ জব্লিউ বুশ প্রশাসনের সাবেক ইথিকস আইনজীবী রিচার্ড পেইন্টার বলেন, ইতোমধ্যেই রাশিয়ার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা ও গোপন বৈঠকের দায়ে ট্রাম্পের পরামর্শক জ্যারেড কুশনার এবং ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র সিনেটের তদন্তাধীন আছেন। বিষয়টি ট্রাম্পের জন্য অস্বস্তিকর। এই মুহুর্তে ট্রাম্প অর্গানাইজেশনের নীতিগত বিষয়গুলো সম্পর্কে স্পষ্ট থাকা উচিত। যদি তা তারা করে না থাকে তাহলে তাদের উচিত বিষয়গুলো সংশোধন করে নেয়া যাতে নৈতিকতা নিয়ে কোনো প্রশ্ন না ওঠে। এর আগে ডিসেম্বরে ট্রাম্প নিজের ব্যবসায়ের দায়িত্ব ছেলেদের ওপর অর্পণ করার ঘোষণা দিলে যুক্তরাষ্ট্রের সরকারি নৈতিকতা বিষয়ক দপ্তর পরিচালক ওয়াল্টার শাউব বলেছিলেন, ব্লাইন্ড ট্রাস্ট্রে ব্যবসা হস্তান্তরের বিষয়টি পুরোপুরি অসম্পূর্ণ পদক্ষেপ। এর মাধ্যমে প্রেসিডেন্টর স্বার্থগত দ্বন্দে¦র অবসান হবে না এবং এটি যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে গত ৪০ বছরের কোনো প্রেসিডেন্টের মর্যাদার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। ট্রাম্পের উচিত তার কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানগুলো বিক্রি করে দেয়া। কারণ যেহেতু তার ছেলেরা ব্যবসায়ের দেখাশুনা করছেন এবং ট্রাম্প নিশ্চয়ই তার সম্পদের পরিমাণ ও ব্যবসায়িক পরিস্থিতি সম্পর্কে অবগত থাকবেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ