ঢাকা, শনিবার 15 July 2017, ৩১ আষাঢ় ১৪২8, ২০ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

কালিয়াকৈর পৌরসভার ৩টি ওয়ার্ডের ৩ হাজার পরিবার পানিবন্দী

কালিয়াকৈর সংবাদদাতা : গাজীপুরের কালিয়াকৈর পৌরসভার কয়েকটি ওয়ার্ড এলাকায় গত কয়েকদিনের টানা বর্র্ষণে তিন সহ¯্রাধিক ঘর বাড়িতে জলাবদ্ধতার পানি হাঁটু পর্যন্ত ডুবে গেছে। 

 এলাকাবাসী ও পৌর কর্তৃপক্ষ জানানয়, কালিয়াকৈর পৌরসভার অধিকাংশ এলাকায় শিল্পকারখানা গড়ে উঠায় অনেকে অপরিকল্পিতভাবে বাড়ি ঘর তৈরি করেন। ফলে বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনের জন্য ড্রেনেজ ব্যবস্থা না রাখায় এ জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, কালিয়াকৈর পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের হরতকীতলা, ডাইনকিনি, মাঝিপাড়া এবং মাইওয়ান এলাকার ৩ সহ¯্রাধিকঘর বাড়ি জলাবদ্ধতার কারণে হাঁটুপানিতে তলিয়ে রয়েছে। এসব এলাকায় পর্যাপ্ত ট্রেনেজ ব্যবস্থা এবং পানি নিষ্কাশনের কোন ব্যবস্থা না থাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে বলে এলাকাবাসী জানায়।

এলাকাবাসী জানিয়েছেন, কালিয়াকৈর পৌরসভা কর্তৃপক্ষ রাস্তার উন্নয়ন এবং ড্রেনেজ ব্যবস্থার জন্য জমি বরাদ্ধের আহবান জানানো হলে এলাকাবাসী বিনামূল্যে রাস্তা এবং ড্রেনেজ জন্য ২৩ ফুট প্রশস্ত জমি দিলেও ঘোষনা অনুযায়ী কিছুই করা হয়নি। ফলে একটু বৃষ্টি হলেই ওইসব এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। 

ডাইনকিনি এলাকার বাইতুস সালাম মাদরাসার পারিচালক মাওলানা আঃ মালেক জানান, কালিয়াকৈর পৌর সভার পক্ষ থেকে পানি নিষ্কাশনের জন্য কোন ব্যবস্থা করা হয়নি। তাই জলাবদ্ধতায় ডাইকিনি এলাকা প্রায় নিমুজ্জিত হয়ে থাকে। ডাইকিনি এলাকার জলাবদ্ধতার নিরশনের জন্য রাস্তার পাশে ড্রেনেজ ব্যবস্থা করা প্রয়োজনে ২০১৪ সালে কালিয়াকৈর পৌরসভার মেয়র এলাকাবাসীর কাছে রাস্তা ও ড্রেনেজ ব্যবস্থার জন্য জমি ছেড়ে দেয়ার জন্য অনুরোধ জানান। মেয়রের অনরোধে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে ড্রেন ও রাস্তার জন্য ২৩ ফুট প্রশস্ত জমি বিনামুল্যে দেয়া হলেও মাত্র ১৪ ফুট প্রশস্ত রাস্তা করা হয়েছে যেখান কোন ড্রেনেজ ব্যবস্থা করা হয়নি। তাই একটু বৃষ্টি হলেই ঘর বাড়ি জলাবদ্ধতার পানিতে ডুবে যায়। বিশেষ করে চন্দ্রা ত্রিমোড় থেকে ডাইকিনি মাইওয়ান হয়ে মাদরাসা পর্যন্ত রাস্তাটির কয়েকস্থানে তলিয়া যাওয়ায় মাদরাসা শিক্ষার্থীসহ ওই এলাকার হাজার হাজার লোকজনের চলাচলে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে।

এব্যাপারে কালিয়াকৈর পৌরসভার ৫ ওয়ার্ড কমিশনার মোঃ বেলাল হোসেন জানান, ৫ ওয়ার্ডের কয়েকটি গ্রামের পানি প্রায় ৫শত ফুট প্রশস্ত একটি বাইদ দিয়ে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা ছিলো। মাঝখানে ওয়ালটন কারখানা তৈরি হওয়ায় ওই বাইদে পানি প্রবাহের পথ হয়েছে মাত্র ৫ ফুটে। ফলে বৃষ্টি ও পানির চাপ বৃদ্ধি হওয়ায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া এই ওয়ার্ডের পাশেই ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ৪ লেনের কাজ চলমান থাকায় কয়েকটি স্থানে ড্রেন বন্ধ হয়ে গেছে ফলে চলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। ওয়ালটন কারখানা এবং সড়ক ওজনপথের লোকজনের সাথে কথা বলে দ্রুত পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা হচ্ছে। 

অপর দিকে পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ডের কালামপুরসহ কয়েকটি গ্রামেও একটু বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হওয়ায় ওই এলাকার বেশিরভাগ লোকজনকে মানবেতরে জীবন যাপন করতে হচ্ছে।

বৃষ্টি হলেই পানি ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে পৌরসভার ৭ ওয়ার্ডের প্রায় ২ হাজারে বেশি পরিবারকে । এ ওয়ার্ডের হরিণহাটি, চান্দরা পল্লী বিদ্যুৎ ও বিশ্বাসপাড়া এলাকায় জলাবদ্ধতা দেখা গেছে। এসব এলাকার মধ্যে হরিণহাটি এলাকায় প্রায় ১০ হাজারের বেশি পরিবার বসবাস রয়েছে। এই এলাকায় একটি নিচু হওয়ায় একটু বৃষ্টি হলেই বেশিরভাগ ঘর বাড়ি তলিয়ে যাচ্ছে। পানি নিষ্কাশনের জন্য পর্যাপ্ত ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় বর্ষা মৌসুমের বেশির সময় হরিণহাটির একাংশ তলিয়ে থাকে। ওইসব এলাকা দিয়ে শিল্প বর্জ্যরে পানি প্রবাহিত হওয়ায় বেশির ভাগ নারী ও শিশু নানা প্রকার পানি বাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

কালিয়াকৈর পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. সামছুল আলম সরকার জানান, পৌরসভার উদ্যোগে জলাবদ্ধতার পানি ও শিল্পকারখানার দূর্ষিত পানি নিষ্কাশনের জন্য একটি প্রসস্ত ড্রেনেরেজ কাজ চলছে। ওই ড্রেনের কাজ শেষ হলেই এ সমস্যা থাকবে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ