ঢাকা, রোববার 16 July 2017, ১ শ্রাবণ ১৪২8, ২১ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

পশু কুরবানি মুসলিমদের ধর্মীয় ঐতিহ্য -মাওলানা বুখারী

১৫ জুলাই, পার্সটুডে : ভারতের দিল্লীর ঐতিহাসিক জামে মসজিদের শাহী ইমাম মাওলানা সাইয়্যেদ আহমদ বুখারী কাশ্মির ইস্যুতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংকে লেখা চিঠিতে কাশ্মির পরিস্থিতির উন্নতি ঘটিয়ে শান্তি প্রতিষ্ঠা করার আহ্বান জানিয়েছেন।
তিনি বলেছেন, ‘ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু কাশ্মির পরিস্থিতি দিনের পর দিন খারাপ হতে চলেছে। এজন্য ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে উত্তেজনা বাড়ছে। কাশ্মিরে শান্তির পরিবেশ সৃষ্টি করতে দেরী হলে পরিস্থিতি আরো খারাপ হবে। সুতরাং ওই ইস্যু সমাধানের জন্য সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়ে কাশ্মিরকে ধ্বংস হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করতে এবং সেখানে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য যথাসাধ্য প্রয়াস চালানো উচিত।’
সীমান্ত পরিস্থিতির উন্নতি ঘটানোসহ পাকিস্তানের সঙ্গে শান্তি আলোচনারও আহ্বান জানিয়েছেন শাহী ইমাম মাওলানা সাইয়্যেদ আহমেদ বুখারী। তিনি বলেন, দুনিয়াতে ভূস্বর্গ নামে পরিচিত উপত্যাকা শান্তি ও খুশি জীবনযাপনের জন্য পরিচিত কিন্তু আজ তা কান্নার উপত্যাকায় পরিণত হয়েছে।
এদিকে, আসন্ন ঈদ উল আজহায় মুসলিমদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংকে চিঠি লিখেছেন মাওলানা সাইয়্যেদ আহমেদ বুখারী। গত শুক্রবার গণমাধ্যমে প্রকাশ, মাওলানা বুখারী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংকে লেখা তার চিঠিতে বলেছেন, আসন্ন ঈদ উল আজহার সময় মহিষ অথবা ছাগল পরিবহণকারী লোকেদের উপরে যাতে কোনো ‘জুলুম’ না হয় সরকারকে তা সুনিশ্চিত করতে হবে।
তিনি বলেন, ‘আমরা গরু জবাইয়ের পক্ষে নই। গরুর সঙ্গে একটি ধর্মের মানুষদের অনুভূতি জড়িয়ে রয়েছে। সেজন্য আমরা তাদের আবেগকে সম্মান করি। কিন্তু ছাগল বা মহিষ পরিবহণে নিয়োজিত লোকেদের যদি পশু রক্ষার নামে মারধর করা হয় তাহলে দেশে শান্তি ও সম্প্রীতির পরিবেশ নষ্ট হতে পারে।’
মাওলানা বুখারী বলেন, ‘ঈদ উল আজহার সময় পশু কুরবানি দেয়া ইসলাম ধর্মের ঐতিহ্য হওয়ায় এতে কোনোভাবেই বাধা আসা উচিত নয়।’ মাওলানা বুখারী এমন সময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে চিঠি লিখলেন যখন দেশের বিভিন্ন অংশে গরুর গোশতকে কেন্দ্র করে মুসলিমদের মারধর করা হচ্ছে এবং এরইমধ্যে বিভিন্ন ঘটনায় বেশ কিছু মুসলিম ব্যক্তি উগ্র হিন্দুত্ববাদীদের গণপিটুনিতে নিহত হয়েছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ