ঢাকা, রোববার 16 July 2017, ১ শ্রাবণ ১৪২8, ২১ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

‘আজ শ্রাবণের আমন্ত্রণে.......’

সাদেকুর রহমান : আষাঢ়ের টানা বর্ষণে যেন ক্লান্ত হয়ে পড়েছে প্রকৃতি। তাই বুঝি বর্ষা-মায়ের প্রথমা তনয়ার বিদায় দিনে রাজধানী ঢাকা তো নয়ই, দেশের অধিকাংশ জায়গায় বৃষ্টি হয়নি। যা-ই সামান্য হয়েছে ময়মনসিংহে ১ মিলিমিটার, নেত্রকোনা ১৭, সীতাকুন্ড ৩, হাতিয়া ১,  সিলেট ২, সাতক্ষীরা ১, পটুয়াখালী ১ ও খেপুপাড়াতে ৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে আবহাওয়া অধিদফতর। তবে দেশের উত্তর ও মধ্যাঞ্চলে বন্যার থাবায় লাখ লাখ মানুষ নিদারুণ কষ্টে দিনপাত করছে। বৃষ্টি ও উজানের পানির কারণে এবার বন্যা দীর্ঘ ও নজীরবিহীন হতে পারে বলে ইতিমধ্যেই আশংকা প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। 

এদিকে গতকাল শনিবার সন্ধ্যা ৬টা পরবর্তী ২৪ ঘন্টার  আবহাওয়ার পূর্বাভাসে খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের দু’এক  জায়গায় অস্থায়ী দম্কা হাওয়াসহ হাল্কা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সাথে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি বর্ষণ হতে পারে। আগামী কয়েকদিন বৃষ্টিপাত কম হলেও তারপর বারিপাতে প্রবণতা বৃদ্ধি পাবে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট দফতর। 

মেঘমালা আর বৃষ্টির ঝংকারে সাজানো পংক্তিমালার সাথে বানভাসীদের অসীম দুর্ভোগের মধ্য দিয়েই বাংলা প্রকৃতিতে এসেছে আষাঢ়-সহোদরা। আজ রোববার পহেলা শ্রাবণ। কবি শ্রাবণকে আমন্ত্রণ জানান এভাবে, ‘আজ শ্রাবণের আমন্ত্রণে/দুয়ার কাঁপে ক্ষণে ক্ষণে,/ ঘরের বাঁধন যায় বুঝি আজ টুটে॥/ধরিত্রী তাঁর অঙ্গনেতে নাচের  তালে ওঠেন মেতে,/ চঞ্চল তাঁর অঞ্চল যায় লুটে/ প্রথম যুগের বচন শুনি মনে/ নবশ্যামল প্রাণের নিকেতনে।/ পুব-হাওয়া ধায় আকাশতলে,  তার সাথে মোর ভাবনা চলে/ কালহারা কোন্ কালের পানে ছুটে॥’ আষাঢ়ে কদম ফুলের মতো হাসি হেসে যে প্রকৃতি সাজতে শুরু করে নতুন সাজে, সেই প্রকৃতি সাজে তুলির শেষ আঁচড় পড়ে শ্রাবণে। 

বাদলা দিন আর থৈ থৈ পানিরাশির উত্তরাধিকার শ্রাবণেরই কোমল রূপ ‘শাওন’। অতি সাধারণের মুখে, কাব্যকথায় এ নামটি বহুল প্রচলিত। শুনতেও বেশ মিষ্টি লাগে বৈকি। ‘শ্রাবণ’ তারার নামে নামকরণ হয়েছে এ মাসের। বর্ষার অংশীদার হিসেবে এ মাসেও ঝড়ো বাতাস বয়ে যায়। শ্রাবণ বৃষ্টির ছোঁয়া পেয়ে কদম, হিজল, কেয়া ও যুথিকা ফুল ফুটবে আপন মহিমায়। বর্ষার ঐশ্বর্য শাপলা, মরালেরা প্রস্তুতি নিচ্ছে নিজে ফোঁটার, প্রকৃতিকে সাজাবার। আম, কাঁঠাল, আনারস ছাড়াও বাজারে আমড়া, লটকন, পেয়ারা, করমচা, জাম্বুরা, কামরাঙ্গা, বিলিম্ব, বিলাতী গাব ইত্যাদি ফলের সমারোহ। এসব মওসুমী ফল এখন অনেকটাই নাগরিক ফল হয়ে উঠেছে। বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বার) তালিকায় যেসব ফল স্বল্প প্রচলিত, সেগুলো সময়ের বিবর্তনে ‘দামি ও অভিজাত’ ফলে পরিণত হয়েছে।

‘শাওন রাত’, ‘শাওন ও বৃষ্টি’, ‘শ্রাবণ মেঘের দিন’ সাহিত্যে এসেছে নানা প্রেক্ষিতে। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম, নোবেলজয়ী কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরসহ আরো অনেক কবি-সাহিত্যিকের সাহিত্যকর্মে শ্রাবণ- প্রকৃতি অংকিত হয়েছে ভাষার সুনিপুণ বুননীতে। শ্রাবণ মাসে বেশকিছু মেলা-পার্বণ অনুষ্ঠিত হয়। বৃষ্টিবিঘœতাকে উপেক্ষা করেই উৎসবের ঢেউ লাগে জনপদে। বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশনের (বিসিক) ১৩৯০ বাঙ্গাব্দের বৈশাখ মাসে ২২টি মেলা ও পার্বণ অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য হলো সিলেট ও ময়মনসিংহের ঝুলনমেলা, মানিকগঞ্জের জগন্নাথ মিশ্রের মেলা এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় খড়মপুর উরশ মেলা। এসব মেলা-পার্বণ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিকে আরো অটুট করে সৌভ্রাতৃত্বের বন্ধনে।  

বর্ষাবন্দনার পথপ্রসারি কবি কালিদাস তার মেঘদূত কাব্যে বর্ষায় শ্রাবণরাগ বর্ণনা করেছেন  এভাবে- ‘প্রাণ তার অদূরে উদ্যত শ্রাবণে/ যদি- না জলধরে বাহন করে আমি পাঠাই মঙ্গলবার্তা?/ যক্ষ অতএব কুড়চি ফুল দিয়ে সাজিয়ে প্রণয়ের অর্ঘ্য/ স্বাগত-স্বভাষ জানালে মেঘবরে মোহন, প্রীতিময় বচনে।’ প্রথম নারী ঔপন্যাসিক স্বর্ণকুমারী দেবী তার এক কাব্যে শ্রাবণবন্দনা করেছেন, ‘সখি, নব শ্রাবণ মাস/ জলদ-ঘনঘটা, দিবসে সাঁঝছটা/ ঝুপ ঝুপ ঝরিছে আকাশ!/ ঝিমকি ঝম ঝম, নিনাদ মনোরম,/ মুর্হুমুর্হু দামিনী-আভাস! পবনে বহে মাতি, তুহিন-কণাভাতি/ দিকে দিকে রজত উচ্ছ্বাস।’

হিন্দু পরম্পরায় শ্রাবণ এক শুভ মাস, এই মাসে কিছু আচার পালন করলে নাকি যাবতীয় মনস্কামনা পূর্ণ হয়- এমন ধারণা কালনিরবধি মনের মধ্যে বহন করে আসছেন হাজার হাজার মানুষ। শ্রাবণ শিবের মাস হিসেবে খ্যাত। এই মাসের প্রতিটি সোমবার শিবের ব্রত ধারণ করেন হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা। ব্রতের উদ্দেশ্য একটাই, মনস্কামনা পূরণ। শিবমূর্তি বা লিঙ্গের প্রতি দুধ নিবেদন শ্রাবণ-শিবব্রতের অন্যতম প্রধান আচার। হিন্দু পুরাণ অনুসারে শ্রাবণ মাসেই ঘটেছিল সমুদ্র মন্থন। মন্থনের ফলে ইঠে আসা হলাহল বিষকে নিজ কণ্ঠে ধারণ করে মহাদেব সৃষ্টিকে রক্ষা করেন। এই কারণেই এই মাস শিবের প্রতি উৎসর্গীকৃত। এই মাসের প্রতিদিন স্নানের পরে শিবস্তোত্র পাঠকে আবশ্যক মনে করেন শিবভক্তরা। শ্রাবণসন্ধ্যায় হরপার্বতীর আরতি অবশ্যকর্তব্য।

শ্রাবণে আমন ধান রোপণ এবং পাট জাগ দেয়া, আঁশ ছাড়ানো গ্রাম-বাংলার অতি পরিচিত দৃশ্য। খনার বচনে রয়েছে, ‘শ্রাবণের পুরো, ভাদ্রের বারো/ধান্য রোপণ যতো পারো’, ‘আষাঢ় কাড়ান নামকে/ শ্রাবণে কাড়ান ধানকে’, ‘পান পুঁড়লে শ্রাবণে/ খেয়ে না ফুরায় বারণে’, ‘বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ হলুদ রুইবে/ অন্য কাজ ফেলিয়া থুইবে? আষাঢ়-শ্রাবণে নিড়াই মাটি/ ভাদরে নিজাইয়া করবে খাঁটি’ ইত্যাদি। শ্রাবণে ওলের প্রকৃত স্বাদ পাওয়া যায় বলেও বারোমাসীতে উল্লেখ পাওয়া যায়। প্রাচীনকালের প্রবাদ বিশারদগণ গাছে ‘কলম’-এর ব্যবহার জানতেন। এ মাসের বৃষ্টিপাতের পরেই তারা গাছে ‘কলম’ নিতে বলেছেন, ‘শোনরে মালি বলি তোরো/ কলম কর শাওনের ধারে’। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রকৃতিতে কত না প্রভাব স্বত্ত্বেও অনেকটা স্বাভাবিক আবহেই ‘রিম-ঝিম্-ঝ্মি বৃষ্টির’ স্মারক মাস আষাঢ় বিদায় নিয়েছে। সময়ের সিঁড়ি বেয়ে এক সময় পশ্চিম দিগন্তে অস্তরাগ ছড়িয়ে বিদায় নেবে শ্রাবণও। আসবে শারদীয়া ভাদ্র, ছড়াবে কাশফুলের কমনীয় সাদারবরণ আর অনিন্দ্য সুন্দরের পসরা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ