ঢাকা, রোববার 16 July 2017, ১ শ্রাবণ ১৪২8, ২১ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বগুড়ায় ছুরিকাঘাতে কলেজছাত্র ও স্বামীর হাতে স্ত্রী খুন

বগুড়া অফিস : বগুড়ার গাবতলীতে সোহাগ চন্দ্র সরকার (১৬) নামের এক কলেজ ছাত্রকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছে দাদন ব্যবসায়ীরা। শুক্রবার রাত ৯ টার দিকে খুনের ঘটনাটি ঘটে। নিহত সোহাগ গাবতলী উপজেলার রামেশ্বরপুর ইউনিয়নের মধ্যকাতুলী হিন্দুপাড়া গ্রামের অমুল্য চন্দ্র সরকারের ছেলে। সে চলতি বছর এসএসসি পাশ করে বগুড়া পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটে ভর্তির জন্য মনোনীত হয়েছে। অপরদিকে, সারিয়াকান্দিতে সোনালী আকতার রুপা নামের এক গৃহবধূ স্বামীর হাতে নিহত হয়েছে। জানাগেছে, পার্শ্ববর্তী মেঘাগাছা গ্রামের মোস্তাফিজুর রহমানের ছেলে হাফিজার রহমান মধ্যকাতুলী হিন্দুপাড়া গ্রামে দাদনে টাকা বিনিয়োগ করেছে। শুক্রবার সন্ধ্যার পর হাফিজার সুদের টাকা আনতে যায় হিন্দু পাড়ায়। এক হিন্দু নারী সুদের টাকা দিতে না পারায় হাফিজার তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এসময় সোহাগ ও অন্যান্য যুবকরা এর প্রতিবাদ করে। তাদের প্রতিবাদের মুখে হাফিজার ফিরে যায়। রাত ৯ টার দিকে হাফিজার ও তার সহযোগিরা তিনটি মোটর সাইকেল যোগে হিন্দুপাড়ায় যায়। এরপর সোহাগকে বাড়ি থেকে ডেকে বের করে পেটে ও বুকে ছুরিকাঘাত করে। এসময় তার বড় ভাই সুমন এগিয়ে আসলে তাকেও ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায় হাফিজার ও তার সহযোগিরা। ছুরিকাহত সোহাগ ঘটনাস্থলেই মারা যায়। গ্রামের লোকজন আহত সুমনকে হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। এঘটনার পর এলাকায় হিন্দু সম্প্রদায়ের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

গাবতলী মডেল থানার ওসি খায়রুল বাসার জানান, হত্যার সাথে জড়িতদের ধরতে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে। এদিকে, হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন শনিবার দুপুরে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে নিহত সোহাগের লাশ নিয়ে বিক্ষোভ মিছিলসহ শহরের কেন্দ্রস্থল সাতমাথায় আসে। সেখানে তারা লাশ নিয়ে মানববন্ধ করে করে খুনীদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে শাস্তির দাবী জানায়।

অপরদিকে, শুক্রবার রাতে বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে স্বামীর হাতে সোনালী আকতার রুপা (২২) নামে এক গৃহবধূ খুন হয়েছে। ঘাতক স্বামী রুবেল পলাতক রয়েছে। 

জানা গেছে, জামালপুর জেলার মাদারগঞ্জ উপজেলার গাবেরগাঁ গ্রামের মতি সোনারের ছেলে রুবেল মিয়ার সাথে সোনালী আকতার রুপার ২য় বিয়ে হয়। রুপা তার স্বামী রুবেলকে নিয়ে নানার বাড়ী সারিয়াকান্দি সদরের আন্দরবাড়ী গ্রামে একটি বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করে। তাদের ৬ বছরের একটি প্রতিবন্ধী কন্যা সন্তান রয়েছে। মোবাইল ফোনে আগের স্বামীর সাথে কথা বলার কারনে শুক্রবার রাতে রুবেলের সাথে রুপার ঝগড়া হয়। ঝগড়ার এক পর্যায়ে রুবেলের মারপিটে রুপা গুরুতর আহত হয়। পরে মূর্মূষু অবস্থায় রুপাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। রুপার মৃত্যুর পর ঘাতক স্বামী পালিয়ে গেছে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করেছে। এব্যাপারে রুপার মা বাদী হয়ে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন বলে পুলিশ জানিয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ