ঢাকা, রোববার 16 July 2017, ১ শ্রাবণ ১৪২8, ২১ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

২৪ জুলাই থেকে নৌযান শ্রমিকদের কর্মবিরতি

সংগ্রাম ডেস্ক : ২১ দফা দাবি আদায় না হলে আগামী ২৪ জুলাই থেকে কর্মবিরতিতে যাবেন নৌযান শ্রমিকরা। গতকাল 

শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এ কর্মবিরতির কথা জানায় বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ফেডারেশন। শীষর্ নিউজ।

ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী আশিকুল আলম বলেন, আমরা জরুরিভাবে সমাধানের জন্য ২১টি বিষয় চিহ্নিত করে নৌপরিবহন অধিদফতর এবং প্রধানমন্ত্রীসহ সকল মন্ত্রণালয় ও দফতরসমূহ এবং প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সকলকেই অবহিত করেছি। গত ৯ জুলাই জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে এবং ১২ জুলাই সরাসরি প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদানের মাধ্যমে আমাদের আকুতি জানিয়েছি।

তিনি বলেন, আমাদের বিশ্বাস, আগামী ২৩ জুলাইয়ের মধ্যে সরকার ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বন্ধ জ্বালানি তেলবাহী জাহাজ চালু ও শ্রমিকদের সমস্যার সমাধানসহ ২১ দফা মেনে নিবেন।

এর মধ্যে ভারতের কারাগারে অন্তরীণ বাংলাদেশের আট নৌযান শ্রমিক ও বাংলাদেশের কারাগারে অন্তরীণ আট নাবিকের মুক্তির দাবিও ফেডারেশনের।

কিন্তু ২৩ জুলাইয়ের মধ্য দাবি আদায় না হলে হুঁশিয়ারি দিয়ে এই শ্রমিক নেতা বলেন, ২৩ জুলাই মধ্যরাত ১২টা ১ মিনিট অর্থাৎ ২৪ জুলাই থেকে  তেলবাহী, পণ্যবাহী, বালুবাহী, যাত্রীবাহীসহ এক কথায় সকল ধরনের ব্যক্তি মালিকানাধীন নৌযানের শ্রমিকরা কর্মবিরতি পালনের মাধ্যমে দাবি প্রতিষ্ঠার সংগ্রামকে অগ্রসর করতে বাধ্য হবে। যার জন্য নৌযান শ্রমিকদেরকে কোনোভাবেই দায়ী করা চলবে না।

ভারতে কীভাবে আটজন বন্দী হয়েছে- জানতে চাইলে তিনি জানান, বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের প্রটোকল চুক্তির অধীনে তিন শতাধিক নৌযান ভারত-বাংলাদেশের ভিতর চলাচলা করে। এ ছাড়া ট্রান্সশিপমেন্ট এবং বন্দর থেকে বন্দরে কন্টেইনার প্রটোকল চুক্তিও সম্পাদন হয়েছে। বাংলাদেশের যে জাহাজগুলো ভারতে যায়, তার কোনোটিতেই ফ্রিজ নাই। তাই দৈনন্দিন বাজার করতে নামতে হয়। চিকিতৎসাসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে জাহাজ থেকে নামতে হয়।

তিনি বলেন, ভারতীয় কর্তৃপক্ষ বা এজেন্টরা পর্যাপ্ত ল্যান্ডিং পাশের ব্যবস্থা করে না। আবার যে সমস্ত কাগজপত্র বাংলাদেশ থেকে দেয়া হয় সেগুলো ভারতের পুলিশ বিবেচনা করে না। কিন্তু বাস্তব প্রয়োজনে নামতে হয়, নামেও। হঠাৎ হঠাৎ অজ্ঞাত কারণে পুলিশ তাদের আটকায় আবার তদবির করলে কাউকে কাউকে ছেড়ে দেয়।

চলতি বছরের ২২ মার্চ পশ্চিম বাংলার হলদিয়া পোর্ট সংলগ্ন দুর্বাচক থানাধীন এলাকায় স্থানীয় বাজার আকাশগঙ্গা কমপ্লেক্সে কেনাকাটা করে ফেরার সময় টহল পুলিশ অজ্ঞাত ফোন কল পেয়ে আটজন শ্রমিককে গ্রেফতার করে জেলহাজতে পাঠায়। এ ব্যাপারে আমরা যথাযথ কর্তৃপক্ষকে জানালেও এখন পর্যন্ত সকল কারাবন্দী নৌ-শ্রমিকদের মুক্তির ব্যবস্থা হয়নি।

সংবাদ সম্মেলনে ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ