ঢাকা, বুধবার 19 July 2017, ৪ শ্রাবণ ১৪২8, ২৪ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

৬ মাসে বেনাপোল দিয়ে ভারতে যাতায়াত করেছে ১৩ লাখ বাংলাদেশী -ভারতীয় হাইকমিশনার

স্টাফ রিপোর্টার : ভারতীয় ভিসা উদারিকরণের উদ্যোগে লক্ষ্যণীয় ফল পাওয়া গেছে উল্লেখ করে বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলা বলেছেন, বিদেশী পর্যটক আগমণের সাপেক্ষে আজ বাংলাদেশের পর্যটকরা ভারতের এক নম্বর পর্যটনকারী। এ বছর জুন মাস নাগাদ (ছয় মাসে) মানুষ বেনাপোল-পেট্রাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ১৩ লাখের বেশিবার যাতায়াত করেছে। আমাদের দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক বিভিন্ন ক্ষেত্রে অপরিসীম এবং এটা ধরে রাখতে আমরা পূর্ণ প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজে ‘সমসাময়িক ভারত, তার পররাষ্ট্র নীতি, নিরাপত্তা ও উন্নয়ন কৌশল এবং ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক’ বিষয়ক এক বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ এর কমান্ড্যান্ট লেফট্যান্যান্ট জেনারেল চৌধুরী হাসান সরওয়ার্দি, বীর বিক্রম অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।

শ্রিংলা বলেছেন, ভারত ও বাংলাদেশের জনগণের বন্ধন অতীতের যে কোন সময়ের চেয়ে এখন অনেক শক্তিশালী। আমাদের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ দুই প্রতিবেশীর মধ্যে সম্পর্কের ক্ষেত্রে একটি মডেল। আমরা শুধু আমাদের সব অমীমাংসিত সমস্যা বাস্তবোচিতভাবে সমাধান করিনি, বরং আমাদের উভয় দেশের পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহযোগিতা বৃদ্ধি করেছি এবং আমাদের প্রবৃদ্ধি ও উন্নয়নে নিবেদিত রয়েছি।

শ্রিংলা বলেন, ভারতের প্রবৃদ্ধি ও উন্নয়ন নিশ্চিত করতে একটি উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করাও ভারতের বৈদেশিক নীতির প্রধান লক্ষ্যগুলোর অন্যতম। এর অর্থ হচ্ছে এই অঞ্চলে শান্তি ও স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করা যাতে করে আমাদের কর্মশক্তি উন্নয়নমুখী হয়; অর্থাৎ এমনভাবে অন্যান্য দেশের সঙ্গে সম্পর্ক রক্ষা করা যা আমাদের জনগণের প্রয়োজনগুলো পূরণ করবে।

তিনি বলেন, সন্ত্রাসবাদ একটি বৈশ্বিক সমস্যা যা আমাদের সকলকে প্রভাবিত করে এবং এ অঞ্চলে শান্তি ও স্থিতিশীলতার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হুমকিগুলির একটি। নিরাপত্তা হুমকির বিশ্বায়ন; সন্ত্রাসী-অর্থায়ন অথবা ভৌত নেটওয়ার্ক, যা সীমানা অতিক্রম করে রাষ্ট্রগুলিকে তাদের সম্পদ সংগ্রহ এবং এই সমস্যাগুলো কাটিয়ে ওঠার জন্য একে অপরকে সহযোগিতার আহ্বান জানাচ্ছে। এটি সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলার ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে বিশেষ অথবা আংশিক দৃষ্টিভঙ্গি পরিত্যাগ করতে এবং রাষ্ট্রসংঘ সাধারণ অধিবেশনের আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ বিষয়ে একটি পূর্ণাঙ্গ সভা অনুমোদন ও তা দ্রুত চূড়ান্ত করারও আহ্বান জানাচ্ছে।

তিনি বলেন, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াই কেবল সন্ত্রাসী, সন্ত্রাসী সংগঠন এবং নেটওয়ার্কগুলো ভেঙে দেয়া বা নির্মূল করাই নয় বরং যেসব রাষ্ট্র ও সংস্থা যারা সন্ত্রাসবাদকে উৎসাহিত ও সমর্থন করেছে এবং এতে অর্থায়ন করেছে, সন্ত্রাসী ও সন্ত্রাসী গোষ্ঠীকে আশ্রয় দিয়েছে ও তাদের গুণাবলীর মিথ্যা প্রশংসা করেছে তাদের সকলকে চিহ্নিত করা, দায়ী করা ও তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা। সন্ত্রাসবাদের ক্ষেত্রে ভারতের রয়েছে শূন্য-সহনশীলতা এবং এ বিষয়ে আপনাদের প্রচেষ্টাকে আমরা সাধুবাদ জানাই।

তিনি বলেন, ভারত ও বাংলাদেশের সকল পর্যায়ে চমৎকার নিরাপত্তা সহযোগিতা রয়েছে। ৪০০০-এরও বেশি দৈর্ঘ্যরে সীমান্ত পাহারা দিতে গিয়ে আমাদের সীমান্তরক্ষীদের প্রায়শই ঝুঁকিপূর্ণ পরিস্থিতির মধ্যে কাজ করতে হয়। আমাদের দুটি দেশের মধ্যে স্থলসীমান্ত ও সমুদ্রসীমার সীমানা নির্ধারণ আমাদের নিরাপত্তা বাহিনীর মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধি ও তাদের আত্মবিশ্বাস বাড়ানোর ক্ষেত্রে একটি উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করেছে।

ভারতীয় হাইকমিশনার বলেন, নিষ্প্রয়োজন যে, আমাদের বৈদেশিক নীতি অন্য দেশের মত আমাদের নেতৃত্বের দ্বারা পরিচালিত। উচ্চ পর্যায়ের রাজনৈতিক নেতৃত্বের বিনিময় আমাদের সম্পর্কে নতুন গতিবেগ সঞ্চার করেছে। তিনি বলেন, আমাদের দুই দেশের মধ্যে শক্তিশালী প্রতিরক্ষা বন্ধন সর্বস্তরের প্রতিরক্ষা কর্মকর্তাদের সার্বক্ষণিক বিনিময়, মতবিনিময় ও প্রশিক্ষণ বিনিময়ের মাধ্যমে বৃদ্ধি পেয়েছে। গুণগত ও পরিমাণগত উভয়ক্ষেত্রেই আমাদের সার্বিক প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা সংক্রান্ত তৎপরতা উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রতিরক্ষা বাহিনীর প্রধানদের পর্যায়ে নিয়মিত যোগাযোগ এবং তিন বাহিনীর স্টাফদের বার্ষিক আলোচনা এ ক্ষেত্রে বিরাট অবদান রেখেছে। অনেকগুলি নতুন যৌথ মহড়া শুরু হয়েছে এবং বিদ্যমান মহড়াগুলোর মানোন্নয়ন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ভারত বাংলাদেশের এক নিবেদিতপ্রাণ উন্নয়ন অংশীদার। ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নতদেশে পরিণত হওয়ার জন্য আপনাদের ভিশনের আমরা সর্বাত্মক সমর্থক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরকালে ভারত ৫০০ কোটি মার্কিন ডলারের বিশেষ সুবিধানজনক আর্থিক সহায়তার অঙ্গীকার করেছে। এতে ৩০০ কোটি ডলারের প্রথম এবং দ্বিতীয় ঋণরেখা মিলিয়ে মোট ৮০০ কোটি ডলার দাঁড়াল।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ