ঢাকা, সোমবার 19 August 2019, ৪ ভাদ্র ১৪২৬, ১৭ জিলহজ্ব ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

গবেষণা তথ্য: ফেসবুক-টুইটার তরুণদের হতাশা বাড়াচ্ছে

অনলাইন ডেস্ক: সামাজিক মাধ্যম তরুণদের মাঝে উদ্বেগ বাড়িয়ে দিচ্ছে জানিয়ে একটি গবেষণাপত্র প্রকাশ করেছে ডিচ দ্য লেবেল নামের একটি সংস্থা।

বুলিং বা আপত্তিকর মন্তব্য বিরোধী এই সংস্থাটি ১২ থেকে ২০ বছর বয়সী ১০ হাজার কিশোর-তরুণের মধ্যে এই গবেষণা চালায়।

গবেষণায় দেখা যায়, ৪০ শতাংশ তরুণ তাদের পোস্টে কাঙ্খিত লাইক না পেলে সেটাকে খুব নেতিবাচকভাবে নেয়। আরও আশঙ্কার বিষয় হলো, ৩৫ শতাংশ তরুণের আত্মবিশ্বাস নির্ভর করে তাদের ফলোয়ারের সংখ্যার ওপর।

গবেষণায় আরও দেখা গেছে, বুলিং বা নেতিবাচক-আপত্তিকর মন্তব্য করা মহামারী হয়ে দেখা দিয়েছে। ৭০ শতাংশ তরুণ স্বীকার করেছেন তারা অন্যের প্রতি আপত্তিকর মন্তব্য করেছেন। ১৭ শতাংশ তরুণ ফেসবুক-ইন্সটাগ্রামে আপত্তিকর মন্তব্যের শিকার হয়েছেন।

প্রায় ৫০ শতাংশ তরুণই নিজের জীবনের কোনো খারাপ দিক সামাজিক মাধ্যমে তুলে ধরে না। উল্টো নিজেদের একটি সুবিধাজনক পরাবাস্তব ও কাটছাট করা সাজানো চরিত্রকে উপস্থাপন করে।

ডিচ দ্য লেবেলের প্রধান নির্বাহী লিয়াম হেকেট বলেন,‘সামাজিক মাধ্যমে নিজের বানানো ব্যক্তিত্ব প্রকাশের একটি ধারা চলছে। এখানে ব্যক্তির বাস্তব ব্যক্তিত্ব অনেকটাই অনুপস্থিত।’

আপত্তিকর মন্তব্যের এই নব্যনেতিবাচক পরিস্থিতি সামলাতে কিশোরদের সচেতন করতে জোর দিয়েছেন ব্রিটেনের শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা অ্যান লংফিল্ড।

তার মতে এখনই স্কুল পর্যায়ে বাধ্যতামূলক ডিজিটাল সিটিজেনশিপ নামের বিশেষ কোর্স চালু করা উচিৎ।

সূত্র:বিবিসি

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ