ঢাকা, রোববার 20 August 2017, ০৫ ভাদ্র ১৪২8, ২৬ জিলক্বদ ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

টমেটো: স্বাদে, গন্ধে অতুলনীয়

অনলাইন ডেস্ক : টমেটো –কে না চেনে? কিন্তু এর উপকারিতা বা গুণাগুণ সম্পর্কে কি আমরা সবাই জানি? টমেটোর মিষ্টি গন্ধ ভালো লাগে অনেকেরই, খেতেও মজা এবং ভিটামিনে ভরপুর৷ এই সুন্দর সবজির জন্ম পেরু এবং মেক্সিকোতে৷ ক্রিস্টোফার কলম্বাস ১৪৯৮ সালে প্রথম ইউরোপে টমেটো নিয়ে এসেছিলেন৷

নানা জাতের টমেটো

ছোট বড়, গোল, লম্বাটে, লাল, হলুদ, সবুজ, কালো বিভিন্ন রং-এর এবং বিভিন্ন সাইজের ও স্বাদের টমেটো রয়েছে৷ কাঁচা এবং রান্না – নানাভাবে জার্মানিতে টমেটোর ব্যবহার হয়ে থাকে৷ রয়েছে টমেটোর জুস, কেচাপ, স্যুপ, টমেটো সস৷ আর টমেটো ছাড়া সালাদ, ভাবা যায় না একদমই!

সবজির শীর্ষে টমেটো

জার্মনিতে টমেটো জনপ্রিয় হতে শুরু করেছে প্রথম বিশ্ব যুদ্ধের সময় থেকে৷ আর এখন লাল টকটকে সুন্দর সবজি টমেটো ছাড়া যেন কোনো রান্নাঘরই সাজে না৷ জার্মানিতে জন প্রতি বছরে ২৫ কেজি টমেটো খাওয়া হয়৷ অর্থাৎ, অন্যান্য সবজির মধ্যে জার্মানিতে টমেটোর স্থান একেবারে শীর্ষে রয়েছে৷

পুষ্টিগুণ সম্পন্ন সবজি

রসালো আর টকটকে রং-এর এই সবজি শুধু খেতেই মজা নয়, রয়েছে যথেষ্ট পুষ্টিমানও৷ এতে বেশ কয়েকটি ভিটামিন এবং মিনারেল রয়েছে, যা শরীরের জন্য প্রয়োজন৷ মাত্র ১০০ গ্রাম টমেটোতে আছে ২৫ গ্রাম ভিটামিন ‘সি’ এবং পটাশিয়াম৷ অন্যান্য সবজির তুলনায় টমেটোতে ক্যালোরি খুবই কম৷ যারা স্বাস্থ্য সচেতন এবং হালকা খাবার পছন্দ করেন তাঁদের কাছে খুবই প্রিয় টমেটো৷

ফ্রেঞ্চফ্রাই-এ টমেটোর কেচাপ

টমেটো কেচাপ সবাই পছন্দ করে, তবে ছোটদের কাছে তা খুবই প্রিয়৷ বিশেষ করে ফ্রেঞ্চফ্রাই-এর সাথে টমেটোর সস বা কেচাপ ছাড়া যেন ভাবাই যায় না৷

ক্যানসার প্রতিরোধে টমেটো

টমেটো সবজি হলেও এর মধ্যে ফলের বিভিন্ন গুণও রয়েছে, যার জন্য রান্না না করেও এটা ফলের মতোও খাওয়া হয়৷ তার সঙ্গে সঙ্গে টমেটোর মধ্যে লাইকোপেন নামে যে উপাদানটি রয়েছে, তা ক্যানসার প্রতিরোধে সাহায্য করে৷ ভারি খাবারের পর একটু টমেটোর জুস খেলে তা হজমেও সহায়তা করে৷

টমেটো নার্ভ শান্ত রাখে

যাদের খাবারে অরুচি তাদের জন্য টমেটো খুবই উপকারী৷ তাছাড়া টমেটো উচ্চ রক্তচাপ কমাতেও ভূমিকা রাখে৷ এছাড়া, টমেটো নার্ভকে শান্ত রাখে এবং ভালো ঘুম হয়৷ শুধু শরীরের ভেতরে নয়, টমেটোর উপস্থিতি খাবার টেবিলের সৌন্দর্য বাড়ায় এবং খেতে উৎসাহিত করে৷ ছোট চেরি টমেটো রাস্তায় হাঁটতে হাঁটতেও খাওয়া যায়৷

সহজেই টমেটো চাষ করা যায়

টমেটো চাষ করা খুবই সহজ, এর জন্য বিশাল বাগানেরও প্রয়োজন নেই৷ যে কেউ বাগান ছাড়াও ছোট্ট বারান্দাতেই সেরকম কোনো যত্ন ছাড়া সহজেই টমেটোর চাষ করতে পারেন৷ এর জন্য বাড়তি যত্নের প্রয়োজন হয় না৷ বীজ বা চাড়া লাগিয়ে জার্মানিতে অনেক বাড়িতেই তাই দেখা যায় টমেটো ঝুলছে৷

ভিটামিনে ভরপুর ভালোবাসার আপেল

বাগার্র বা পিৎসা যাই হোক না কেন টমেটোর সস বা তাজা টমেটো ছাড়া তার আসল স্বাদ যেন পাওয়া যায় না বা খাওয়াটা ঠিকমতো জমেও ওঠে না৷ আর যা না বললেই নয় যে, টমেটো যে কোনো খাবারকেই আকর্ষণীয় করে তোলে লাল টকটকে অর্থাৎ ভালোবাসার রং-এর জন্য৷ তাই জার্মানিতে টমেটোকে বলা হয় ভিটামিনে ভরপুর ‘ভালোবাসার আপেল’৷

টমেটোর স্যুপ ও জুস, কেচাপ

জার্মানদের কাছে টমেটোর স্যুপ বেশ পছন্দের খাবার৷ অস্বস্তিবোধ বা শরীর গুলিয়ে উঠলে টমেটোর স্যুপ বেশ সাহায্য করে৷ তাই বিমানে ভ্রমণকারীদের প্রায়ই টমেটোর স্যুপ বা জুস খেতে দেখা যায়৷ টমেটো জার্মানিতে সারা বছর পাওয়া যায়, তবে গ্রীষ্মকালের টমেটোর স্বাদ একেবারেই আলাদা৷ গন্ধ এবং স্বাদ তাতে যে অনেক বেশি! সূত্র: ডয়েচে ভেলে। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ