ঢাকা, রোববার 23 July 2017, ৮ শ্রাবণ ১৪২8, ২৮ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ছড়া/কবিতা

আষাঢ়-শ্রাবণ মাস
বাতেন বাহার

হঠাৎ করে উছলে যখন মরা নদীর কূল
ময়ুর সেজে ফুটে তখন কদম কেয়া ফুল।
ফুলের সাথে বেতস দোলে, দোলে লতার বন
পাঁপড়ি পাতার ঠোঁটে তখন ব্যাকুল আলাপন।

ডেউয়া পেকে হলুদ বরণ, লটকা’রা খায় দোল
কাঁঠাল পাকার গন্ধে নাচে বনের বিজন কোল।
ঝিঁঝিঁর মুখে একটানা সুর, ব্যাঙ ডাকে গ্যাং গ্যাং
দিন দুপুরে বাদুড় ঘুমায়-উচিয়ে দুটি ঠ্যাং।

এই রৌদ্র এই বৃষ্টি দিন দুপুরে সাঁঝ
তাই সূর্য পালিয়ে বেড়ায়, রেখে নিজের কাজ!
ডাকলে দেয়া বিজলি মেয়ে ছিটায় আলোর ফুল
মরা নদীও স্বপ্ন দেখে, উছলে উঠে কূল।

কূল ছাপিয়ে জলের নাচন শস্য শ্যামল মাঠে
টুং টাং টুপ জলের নূপুর-বাজে জলের ঘাটে।
পুকুর ঘাটে ছোট্ট খোকা হরষে দেয় ডুব
রঙ ধনুতে সাজে আকাশ, রঙে-রঙিন পূব।

ধমকি তালে বিজলি মেয়ে আকাশ করে ভাগ
চাঁপার বনে বন ময়ুরী ছড়ায় অনুরাগ।
অনুরাগেই পেখম মেলে- পুলক জাগে বনে
মিষ্টি ঘ্রাণের বান ডেকে যায় হাস্নাহেনার মনে।

হাস্নাহেনার গন্ধ তখন নাচায় ভাবুক মন
নতুন সুরে গল্প করে গুল্ম লতার বন।
লতার বনে ডাক দিয়ে যায় মিষ্টি ফুলের বাস
কদম ফুলের গল্পে মাতে আষাঢ় শ্রাবণ মাস।


আষাঢ় এলো দেশে
ইকবাল কবীর মোহন

আষাঢ় এলো আকাশজুড়ে
কালো মেঘের ভিড়
পাখিরা সব দিশেহারা
খুঁজতে আপন নীড়।
বৃষ্টি নামে দিন-দুপুরে
সবার মাথায় ছাতি
শুকনো ডালে সবুজ পাতার
 কেমন মাতামাতি।

আষাঢ় মাসের খবর পেয়ে
জেগে উঠে বন
টাপুর টুপুর ছন্দে দোলে
খোকাখুকুর মন।

এমন মধুর মেঘলা দিনে
উতলা হয় মন
বৃষ্টি নামার সুরে সুরে
কাটাই সারাক্ষণ।

টাপুর টুপুর ছন্দে
আষাঢ় এলো আকাশজুড়ে
কালো মেঘের ভেলা
রোদ বৃষ্টির লুকোচুরি
আলো আঁধার খেলা।

শুকনো মাঠে বৃষ্টি নামে
সতেজ করে মাটি
ফুলে পাতাতে গাছ-গাছালি
ভীষণ পরিপাটি!
ধূসর মাঠে ফসল ফলে
চাষীর মধুর ক্ষণ
টাপুর টুপুর ছন্দে দোলে
 খোকাখুকুর মন।

গাও গেরামের দামাল ছেলে
বৃষ্টি মেখে ঘুরে
নদীর বুকে পাল তুলে ঐ
মাঝিরা যায় দূরে।


বর্ষাকালে
মুহাম্মাদ আলী মজুমদার

বর্ষাকালে বৃষ্টি পড়ে
ছাতা ছাড়া হাঁটা দায়
খুকুমণি হাঁটতে গিয়ে
ধপাস-ধপাস আছাড় খায়।
কদম-কেয়া-পদ্ম ফোঁটে
মিষ্টি-মধুর গন্ধ পাই
বৃষ্টি পড়ে টিনের চালে
সুখদ ভরা ছন্দ পাই।
দমকা হাওয়ার ঝাপটা খেয়ে
পাখির বাসা ভেঙে যায়
তাইনা দেখে ছোট্ট খোকা
অবুঝ মনে কষ্ট পায়।


মেঘ বৃত্তান্ত
মোস্তফা কামাল সোহাগ

আকাশ জুড়ে মেঘ জমেছে
হিমেল হাওয়া বইছে
খানিক পরে বিষ্টি হবে
গাঁয়ের চাষী কইছে।

গুড়ুম গুড়ুম আকাশ ডাকে
পাখ-পাখালী চুপ
ছন্দের তালে বিষ্টি ঝরে
লাগছে অপরূপ।

অবিরাম বিষ্টি নামে
পথে ঘাটে কাদা
পথিক হাঁটে ছাতা মাথায়
নেই কোন বাধা।

সুয্যিমামা যায় না দেখা
আকাশ ঢাকা মেঘে
প্রচণ্ড ঝড় হবে


বর্ষা পরিবেশ
শরীফ সাথী

বর্ষাকালে মেঘলা ছাওয়া
সাথে নিয়ে শীতল হাওয়া
আকাশ যেন কয়?
মিষ্টি বৃষ্টি ঢেলে দিতে
এই জমীনে মেলে দিতে
এলো সুসময়।

থেমে থেমে ক্ষণে ক্ষণে
সারাদিনে আপন মনে
ঝরঝরিয়ে পড়লো,
ছন্দ তালে নিত্য ঝুঁকে
কমল কোলের সবুজ বুকে
সুখেরই ঢেউ গড়লো।

বর্ষাকালটা বড্ড মিষ্টি
সারাদিনেই পড়ে বৃষ্টি
এই প্রকৃতি আপন করে
তাইতো সবার কাড়ে দৃষ্টি।

চারিদিকে সবুজ সবুজ
বর্ষা পরিবেশ,
এতো দেখেও যেন দেখার
হয়না রূপের শেষ!


বর্ষাকালের ছড়া
মোস্তফা কামাল সোহাগ

বর্ষাকালে ব্যাঙ ডাকে
ডোবা-নালা খালে
কদম কেয়া ফুটে কত
সবুজ গাছের ডালে।

ক্ষণে ক্ষণে বিষ্টি নামে
পথে ঘাটে কাদা
ছাতা মাথায় দিয়ে হাঁটে
রোজ আমার দাদা।

টিনের চালে বাজনা বাজে
বিষ্টি যখন পড়ে
বিষ্টির জলে খেলব খেলা
মন বসেনা ঘরে।
ডিঙি নিয়ে খেলা করে
খোকাখুকুর দল
বিলে ঝিলে শাপলা শালুক
তোলতে যাবি চল।


আষাঢ় মাসে বৃষ্টি ঝরে
মহছেন আলম

আষাঢ় মাসে বৃষ্টি ঝরে
ভরে পুকুর ডোবা
আষাঢ় মাসে বৃষ্টি ঝরে
লাঙ্গল চষে কোবা।

আষাঢ় মাসে বৃষ্টি ঝরে
ভেজে কদম ফুল
আষাঢ় মাসে বৃষ্টি ঝরে
ভাঙে নদীর দুকুল।

আষাঢ় মাসে বৃষ্টি ঝরে
সিক্ত হয় জমিন
আষাঢ় মাসে বৃষ্টি ঝরে
রংধনু হয় রঙিন।

আষাঢ় মাসে বৃষ্টি ঝরে
পানিতে ভরে বিল
আষাঢ় মাসে বৃষ্টি ঝরে
হাসে পুকুর ঝিল।

আষাঢ় মাসে বৃষ্টি ঝরে
খোদার রহম নিয়ে
আষাঢ় মাসে বৃষ্টি ঝরে
মনে পুলক দিয়ে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ