ঢাকা, রোববার 23 July 2017, ৮ শ্রাবণ ১৪২8, ২৮ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

জামায়াতের বিরুদ্ধে মিথ্যা তথ্য দেয়ার সুযোগ হবেনা জেনে আ’লীগ লন্ডন সেমিনার বয়কট করে

 

ব্রিটিশ পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ হাউস অব লর্ডসে আয়োজিত বাংলাদেশ বিষয়ক সেমিনারে আওয়ামী লীগের অংশ না নেওয়াকে রহস্যজনক ও দেশের জন্য অসম্মানজনক বলে মন্তব্য করেন জামায়াতে ইসলামী ইউরোপের মুখপাত্র মোহাম্মদ আবু বকর মোল্লা। তিনি আরো বলেন কয়েক মাস পূর্বে পার্লামেন্টের একটি কক্ষে এই ধরনের অনুষ্ঠান চলছিলো তখন আওয়ামীলীগের প্রতিনিধিত্বকারীগণ জামায়াতের ব্যাপারে মিথ্যা তথ্য দেয়ায় তিনি জোড়ালো ও তথ্যভিত্তিক যুক্তি দেয়ায় তখন তারা অনুষ্ঠানে হৈ চৈ শুরু করে। তখন পার্লামেন্টের সদস্যগণ বুঝতে পেরেছে যে আওয়ামী লীগের তথ্য সম্পূর্ণ ভুল। এখন তারা জামায়াত ও বিরোধীদলের বিরুদ্ধে মিথ্যা তথ্য দিতে পারবেনা বলে তারা অনুষ্ঠান বয়কট করেছে।

তিনি আরো বলেন, দাওয়াত পত্রে জামায়াত প্রতিনিধির নাম সহ সকলের নাম উল্লেখ থাকা সত্ত্বেও তারা বলছেন জামায়াত প্রতিনিধি থাকায় তারা অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেননা, আওয়ামীলীগ যে মিথ্যাবাদী তাও পার্লামেন্টে প্রমাণ করে গেলো।

তারা সরকারের টাকায় ও সাধারণ জনগণের ট্যাক্স-এর টাকায় লন্ডনে এসেছিলেন, পার্লামেন্টেও গিয়েছেন কিন্তু মাত্র একজন জামায়াত নেতার সাথে যুক্তি তর্কের কাছে হারমানিয়ে অনুষ্ঠান বয়কট করলেন।

পার্লামেন্টের এই সভা আওয়ামীলীগ বয়কট করায় লন্ডনের সাধারণ জনগণের মুখে মুখে ব্যাপক সমালোচিত হচ্ছে। জামায়াতে ইসলামী ইউরোপের মুখপাত্র মোহাম্মদ আবু বকর মোল্লা দীর্ঘদিন থেকে লন্ডনের বিভিন্ন টেলিভিশন গুলোতে টক শো তে যুক্তি তর্কের মাধ্যমে সাধারণ মানুষকে বুঝাতে সক্ষম হয়েছে। তার মোকাবেলায় বলা হয়, আওয়ামী লীগ মিথ্যা তথ্য পার্লামেন্টে দিতে পারবেনা জেনে এই সভা বয়কট করেছেন বলে জানান কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।

এদিকে বাংলাদেশ থেকে আসা আওয়ামীলীগ প্রতিনিধিগণ পার্লামেন্টের সভায় অংশ না নেয়ায় তীব্র নিন্দা জানান বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

তিনি বলেন, আওয়ামীলীগ জামায়াতের উপস্থিতির কারণ দেখিয়ে সেমিনারে অংশ না নেয়ায় দেশের ভাবমূর্তি ক্ষণœ হয়েছে।

বুধবার লন্ডনের ব্রিকলেনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ওই আলোচনায় অংশ নিতে ঢাকা থেকে আওয়ামী লীগের তিনজন জ্যেষ্ঠ নেতা লন্ডনে আসেন।

“উনারা দুপুরে লাঞ্চ পর্যন্ত আমাদের সাথে ছিলেন। কিন্তু তারপরে কেন গেলেন না, এটা রহস্যের, সবার কাছেই একটা রহস্য।”

লন্ডনের স্থানীয় সময় মঙ্গলবার বিকালে হাউস অব লর্ডসে ‘বাংলাদেশে সন্ত্রাসবাদ ও আইনের শাসন’ শিরোনামে একটি সেমিনার হয়।

এই সেমিনারে অংশ নিতে আওয়ামী লীগের পক্ষে প্রধানমন্ত্রীর অর্থনীতি বিষয়ক উপদেষ্টা মসিউর রহমান, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভী এবং সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনি লন্ডনে আসলেও শেষ পর্যন্ত তারা তাতে অংশ নেননি।

হাউস অব লর্ডসের স্বতন্ত্র সদস্য আলেক্সান্ডার চার্লস কারলাইল আয়োজিত ওই আলোচনায় বিএনপির প্রতিনিধিরা ছাড়াও যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র দপ্তর এবং মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস ওয়াচের প্রতিনিধি ছিলেন।

ওই আলোচনায় অংশ না নিয়ে আওয়ামী লীগ নেতারা আয়োজকদের অপমানিত করেছেন মন্তব্য করে খসরু বলেন, “উনারা দেশে গণতন্ত্র বিশ্বাস করেন না। বিদেশেও প্রমাণ করলেন গণতন্ত্রে বিশ্বাস করেন না, আলোচনায় বিশ্বাস করেন না, সমঝোতায় বিশ্বাস করেন না, যুক্তিতে বিশ্বাস করেন না।”

তাদের অনুপস্থিতিতে সেমিনারের আয়োজক লর্ড কারলাইল ‘হতাশা’ প্রকাশ করেন বলে জানান আমীর খসরু।

‘এটা অসৌজন্যমূলক, ও কাপুরুষাচিত’ বলে লর্ডসভার এই সদস্য প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন বলে দাবি করেন তিনি।

একে আওয়ামী লীগের ‘অগণতান্ত্রিক’ আচরণের বহিঃপ্রকাশ আখ্যায়িত করে খসরু বলেন, “সেখানে আলোচনায় উঠে এসেছে, যারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না, যারা আলোচনায় বিশ্বাস করে না, যারা আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধানে বিশ্বাস করে না, তারাই এটা করতে পারে।”

এর মধ্য দিয়ে জবাবদিহিতে আওয়ামী লীগের অনীহার বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে বলেও মন্তব্য করেন আমীর খসরু।  -লন্ডন থেকে মোঃ কায়সার

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ