ঢাকা, রোববার 23 July 2017, ৮ শ্রাবণ ১৪২8, ২৮ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

একটি সেতুর অভাবে...

সাদুল্যাপুর (গাইবান্ধা) সংবাদদাতা: গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার অতি অবহেলিত একটি এলাকার নাম টুনিরচর। সাদুল্যাপুর উপজেলা শহর থেকে দুই কিলোমিটার পূর্বেই এলাকাটি অবস্থিত। ওই এলাকার পাশ দিয়ে বয়ে গেছে ঘাঘট নদী। এলাকার প্রায় ২৫ সহ¯্রাধিক শিশু, বৃদ্ধ, নারী-পুরুষ, স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রী, চাকরিজীবী ও ব্যবসায়ীদের নদীর ওপারে উপজেলা শহর সাদুল্যাপুরে যাওয়ার একমাত্র পথ ডিঙ্গি নৌকা। অনেক সময় নৌকা দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নদী পারাপার হতে গিয়ে ইতোমধ্যে অনেক দুর্ঘটনা ঘটেছে।
সাদুল্যাপুর উপজেলাধীন টুনিরচর গ্রামের বাসিন্দা মেছের আলী  বলেন, সরকার যায় সরকার আসে কিন্তু টুনিরচর গ্রামের মানুষের দুর্ভোগ শেষ হয় না। নির্বাচনের সময় এমপি ও চেয়ারম্যান সাহেবরা নদীর উপর ব্রিজ নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিলেও আজ পর্যন্ত কেউ কথা রাখেনি। গ্রামের ব্যবসায়ী রুহুল আমিন মিয়া ও নুরুজ্জামান বলেন, যোগাযোগের পথ না থাকায় এলাকার উৎপাদিত কাঁচামাল ও খাদ্যশস্য সঠিক সময়ে ন্যায্যমূল্যে বিক্রয় করা সম্ভব হয় না। ন্যায্যমূল্যের আশায় উৎপাদিত ফসল বিক্রি করতে চাইলে পার্শ্ববর্তী লক্ষ্মীপুর, দাড়িয়াপুর ও গাইবান্ধা সদরসহ বিভিন্ন হাটবাজারে যেতে হয় ২০ কিলোমিটার রাস্তা ঘুরে।
নদী পারাপারের  কথা হলে ওই এলাকার আব্দুর রাজ্জাক, আবদুল মজিদ ও আবু বক্কর সিদ্দিকের সঙ্গে কথা হলে তারা বলেন, বর্তমানে নদী পারাপার হতে নৌকার উপর নির্ভর করতে হয়। নৌকা দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হচ্ছে। সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে কোমলমতি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা। তারা নৌকা দিয়ে পারাপার হয়ে বিদ্যালয়ে আসতে ভয় পায়। তারা আরো জানান, যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো না হওয়ায় আজ পর্যন্ত গ্রামের কোনো উন্নয়ন হয়নি। ফলে ঐ গ্রামটির উপজেলা শহরের সঙ্গে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হওয়াসহ অজপাড়াগাঁয়ের রূপ বহন করছে। এলাকাবাসী জানান, টুনিরচর গ্রামের ঘাঘট নদীর উপর একটি ব্রিজ নির্মাণ করলে গ্রামের মানুষের যেমন উন্নয়ন ঘটবে তেমনি উপজেলা শহরের সঙ্গে পার্শ্ববর্তী কুপতলা, দুর্গাপুর, মালিবাড়ি, চাপাদহ ও দাড়িয়াপুরসহ কয়েক গ্রামের হাজার হাজার মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ