ঢাকা, রোববার 23 July 2017, ৮ শ্রাবণ ১৪২8, ২৮ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

মামলা তুলে  নেওয়ার দাবিতে নীলক্ষেতে শিক্ষার্থীদের অবরোধ মানববন্ধন

 

 

স্টাফ রিপোর্টার : কলেজ শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি হামলা, অতি উৎসাহী পুলিশ সদস্যদের বিচার ও ১২০০ শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারসহ সাত দফা দাবিতে জাতীয়  প্রেসক্লাব এর সামনে বিকেলে সমাবেশ করেছে আন্দোলনরত ঢাবি অধিভুক্ত সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা। সমাবেশ থেকে আগামী তিনদিন সকল কলেজে আহত সিদ্দিকুর রহমানের জন্য অর্থ সংগ্রহ এবং আগামী ২৬ তারিখ আবার শাহবাগে সমাবেশের কর্মসূচী ঘোষণা করেছেন তারা। সমাবেশে ঢাকা কলেজ, তিতুমির কলেজসহ অন্যান্য কলেজের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাত কলেজের পরীক্ষার তারিখ ঘোষণার দাবিতে বিক্ষোভের ঘটনায় পুলিশের হত্যাচেষ্টার মামলা তুলে নেওয়া ও আটকদের মুক্তির দাবিতে নীলক্ষেত মোড় অবরোধ করেছে শিক্ষার্থীরা। গতকাল শনিবার সকাল ১১টার দিকে ঢাকা কলেজ ও ইডেন কলেজের শিক্ষার্থীরা নীলক্ষেত মোড়ে অবস্থান নিলে প্রায় দেড়ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ থাকে বলে নিউ মার্কেট থানার ওসি আতিকুর রহমান জানিয়েছেন।  তিনি বলেন, “শান্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচি শেষ করে বেলা সাড়ে ১২টার দিকে সড়ক ছেড়ে দিয়ে চলে যান শিক্ষার্থীরা। এর পর থেকে যান চলাচল স্বাভাবিক আছে।”

গত ফেব্রুয়ারি মাসে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হওয়া ঢাকার সাত সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষার তারিখ ঘোষণাসহ সাত দফা দাবিতে বৃহস্পতিবার শাহবাগে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করে। ঢাকা কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, বেগম বদরুন্নেসা কলেজ, সরকারি তিতুমীর কলেজ, কবি নজরুল ইসলাম কলেজ, শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ ও মিরপুর বাঙলা কলেজের শিক্ষার্থীরা ওই বিক্ষোভে অংশ নেন। তাদের অবস্থানের কারণে গুরুত্বপূর্ণ ওই সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেলে পুলিশ বাঁধা দেয়, এক পর্যায়ে শুরু হয় সংঘর্ষ। পরে পুলিশ কাঁদুনে গ্যাস ছুড়ে ও লাঠিপেটা করে শিক্ষার্থীদের ছাত্রভঙ্গ করে দেয়। তখনই ১৩ জনকে আটক করা হয়। ওই ঘটনায় পুলিশের কাজে বাঁধা দেওয়া এবং হত্যাচেষ্টার অভিযোগে অজ্ঞাতনামা ১২শ জনকে আসামী করে মামলা করে পুলিশ।

গতকালের  কর্মসূচি নিয়ে ঢাকা কলেজের অর্থনীতি বিভাগের মাস্টার্সে ছাত্র মো. শাহীন হোসেন বলেন, এই মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহার, আটকদের নিঃর্শত মুক্তি, আহতদের রাষ্টীয়ভাবে চিকিৎসার ব্যবস্থা ও কলেজগুলোর শিক্ষার মান উন্নয়নে নীতিমালা প্রণয়নসহ সাত দফা দাবিতে আজকে রাস্তা অবরোধ হয়েছে।“শাহবাগে আমাদের মানববন্ধনে পুলিশ লাঠিচার্জ ও হামলা করে আবার ১২০০ শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে মামলা দিয়েছে।” মামলা তুলে নেওয়াসহ সাত দফা দাবিতে বিকাল ৪টায় রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে সমাবেশ হবে বলে জানান তিনি।

বিকেলে ২৬ তারিখ আবার শাহবাগে সমাবেশের কর্মসূচী ঘোষণা করে বক্তারা বলেন, বেপরোয়া এক পুলিশ সদস্যের গুলীতে আমাদের ভাই, সহযোদ্ধা সিদ্দিক চোখ হারাতে বসেছে। কী দোষ করেছিল সে? বিনা উসকানিতে আমাদের ওপর হামলা করা হয়েছে। এর প্রমাণ আমাদের কাছে আছে। মার খেলাম আমরা, শিক্ষাজীবন নষ্ট হচ্ছে আমাদের। উল্টো মামলার আসামীও আমরা। আমরা এর তিব্র নিন্দা এবং অবিলম্বে মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি। অন্যথায় আমরা আরো কঠোর আন্দোলনে যেতে বাধ্য হবো।

ডিএমপি কমিশনারের বক্তব্যকে স্বাগত জানিয়ে তারা বলেন, তিনি বলেছেন দোষিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবেন। আমরা একে সাধুবাদ জানাই। কিন্তু সেই ব্যবস্থা হতে হবে অবিলম্বে। একই সঙ্গে আমরা সিদ্দিকের চোখের চিকিৎসার দায়িত্ব নেয়ার জন্য দাবি জানাচ্ছি।

বক্তারা আরো বলেন, সিদ্দিক একটি দরিদ্র পরিবারের সন্তান। সে নিজে উপার্জন করে নিজের খরচ চালাত। তার উন্নত চিকিৎসা দরকার, কিন্তু এর সামর্থ্য তার নেই। তাই আমরা সবার প্রতি বিশেষ করে আমাদের কলেজসমুহের শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকদের প্রতি এগিয়ে আসার আহবান জানাচ্ছি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ