ঢাকা, শনিবার 29 July 2017, ১৪ শ্রাবণ ১৪২8, ৪ জিলক্বদ ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

টানা বর্ষণে বিল ডাকাতিয়ার প্রায় দুই হাজার চিংড়ি ঘের ভেসে গেছে

খুলনা অফিস: সপ্তাহ ধরে টানা বর্ষণে খুলনার ফুলতলা উপজেলার বিল ডাকাতিয়াসহ অন্যান্য বিলের প্রায় ১৮শ’ চিংড়ির ঘের ডুবে যাওয়ায় মাছ ভেসে গেছে। ঘের মালিকরা গত কয়েকদিন ধরে আপ্রাণ চেষ্টা করে নেট পাটা দিয়ে ঠেকানোর চেষ্টা করলেও গত বুধবার পর্যন্ত ঠেকাতে পারেনি।
ঘের মালিকরা জানান, দুই হাজার থেকে আড়াই হাজারেরও বেশি চিংড়ির ঘের ভেসে গেছে। তবে মৎস্য অফিস দাবি করে ১৮শ’ মত। এর ফলে প্রায় ৩ থেকে সাড়ে ৩ কোটি টাকার মত ক্ষতি হয়েছে বলে জানা যায়।
জামিরা বাজারের জনৈক ব্যক্তি মো. আ. কবির জানান, অতিবর্ষণে বিল ডাকাতিয়ার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। আলকা গ্রামের ঘের মালিক রবিউল ইসলাম জানান, তার নিজের ঘেরসহ বিল ডাকাতিয়ার অধিকাংশ ঘের ভেসে গেছে বলে উল্লেখ করেন।
এদিকে কৃষি অফিসের একটি সূত্র জানায়, অতিবর্ষণে বিল ডাকাতিয়ার চিংড়ির ঘের ও বীজতলা প্রায় সম্পূর্ণ পানির নিচে। কৃষকরা/ঘের মালিকরা পড়েছে মহাবিপাকে। গত বছর বন্যা ও অতিবর্ষণে চিংড়ির ঘের ভেসে যাওয়ায় তাদের ব্যাপক আর্থিক ক্ষতির সম্মুখিন হতে হয়। এ বছরও ব্যাংক, এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে চিংড়ির ঘের পরিচালনা করে আসছে। এ অবস্থায় এ বছরও অতিবর্ষণে চিংড়ির ঘের ভেসে যাওয়ায় তাদের মাথায় হাত উঠেছে। তাদের একটাই চিন্তা এই ক্ষতি কিভাবে পুষিয়ে নেবে।
বিল ডাকাতিয়ার চিংড়ির ঘের অতিবর্ষণে ভেসে যাওয়ার ব্যাপারে ফুলতলা উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মোল্যা ইমদাদুল্লাহ জানান, উপজেলায় মোট ৮ হাজার একশ’ চিংড়ি ও সাদা মাছের ঘের রয়েছে। এর মধ্যে গত বুধবার পর্যন্ত প্রায় ১ হাজার ৮শ’ চিংড়ির ঘের সম্পূর্ণ ভেসে গেছে। ঘের মালিকরা যদিও নেট পাটা দিয়ে ঠেকানোর চেষ্টা অব্যহত রাখে কিন্তু তাতে কোন সুফল পাওয়া যাচ্ছে না। এরপর যদি আবার বৃষ্টি হয় তাহলে শতকরা একশ’ ভাগ ঘের ভেসে যেতে পারে। এ পর্যন্ত প্রায় ৩ থেকে সাড়ে ৩ কোটি টাকার মত ক্ষতি হয়েছে বলে তিনে জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ