ঢাকা, বুধবার 02 August 2017, ১৮ শ্রাবণ ১৪২8, ৮ জিলক্বদ ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সংসদে তৃণমূল এমপি সৌগত রায়ের প্রশ্ন বিজেপি কী মুসলিম মুক্ত ভারত চায়?

পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল এমপি অধ্যাপক সৌগত রায়

১ আগস্ট, , ইন্ডিয়া টুডে, পার্সটুডে : ‘বিজেপি কী মুসলিম মুক্ত ভারত চাচ্ছে?’ পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল এমপি অধ্যাপক সৌগত রায় লোকসভায় শাসক দল বিজেপি’র উদ্দেশ্যে এমন প্রশ্ন করেছেন। ভারতের বিভিন্নস্থানে গণপিটুনির ঘটনা প্রসঙ্গে লোকসভায় আলোচনার সময় গত সোমবার তিনি ওই মন্তব্য করেন।
 সৌগত রায় বলেন, গণপিটুনিতে হত্যার ৯৭ শতাংশ ঘটনাই কেন্দ্রে মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর ঘটেছে। তিনি বলেন, ‘আমি এর মধ্যে হিন্দু-মুসলিমের প্রশ্ন আনতে চাচ্ছি না, কিন্তু গণপিটুনিতে হত্যার ৯৭ শতাংশ ঘটনাই নরেন্দ্র মোদি ক্ষমতায় আসার পর ঘটেছে। এরমধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত ৮৬ শতাংশই মুসলিম।
তিনি বলেন, ক্ষমতাসীন দলের সদস্যদের জিজ্ঞেস করতে চাই, আপনারা কংগ্রেস মুক্ত ভারতের কথা বলে থাকেন কিন্তু আপনারা কী মুসলিম মুক্ত ভারতও চান?’
তিনি কেন্দ্রীয় সরকারের উদ্দেশ্য গণপিটুনির বিরুদ্ধে আইন তৈরি করার দাবি জানান।
সংসদে সোমবার কংগ্রেস এমপি মুহাম্মদ আসারুল হক টুপি ও বোরকা পরিহিতদের টার্গেট করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, টুপি পরা ও দাড়ি রাখা লোক এবং বোরখা পরা নারীরা ঘরের বাইরে যেতে ভয় পাচ্ছেন। লোকেরা তাদের সম্পর্কে মন্তব্য করছে, এর প্রতিবাদ করলেই তারা আক্রমণ করছে।
সংসদে বিজেপি এমপি হুকুমদেব নারায়ণ যাদব গণপিটুনির ঘটনাকে সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র বলে দাবি করেন।
ভারতের বিশ্ব হিন্দু পরিষদ নেত্রী সাধ্বী প্রাচি গতবছর জুনে ‘মুসলিম মুক্ত ভারত’ গড়ার ডাক দিয়েছিলেন। সেসময় তার বিরুদ্ধে পাঞ্জাব এবং কেরালায় পৃথকভাবে এফআইআর দায়ের করা হয়।
সাধ্বী প্রাচি বলেছিলেন, আমরা ‘কংগ্রেস মুক্ত ভারত’ অভিযান সম্পূর্ণ করেছি। এবার দেশকে মুসলিম মুক্ত করার সময় এসেছে। আমরা সেই লক্ষ্যে কাজ করছি।’
সাধ্বী প্রাচির মন্তব্যকে কেন্দ্র করে সে সময় জম্মু-কাশ্মীর বিধানসভাতেও তীব্র বিতর্ক সৃষ্টি হয়।
এর আগে ২০১৪ সালে আরএসএস সংশ্লিষ্ট ধর্ম জাগরণ মঞ্চের নেতা রাজেশ্বর সিং ২০২১ সালের ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে ভারতকে মুসলিম ও খ্রিস্টান মুক্ত করার ঘোষণা দেয়ায় তীব্র বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছিল।
আখলাককে পিটিয়ে খুনে অভিযুক্ত বিজেপি নেতার ছেলের জামিন
ভারতের দাদরিতে মহম্মদ আখলাক নামে এক মুসলিম নাগরিককে বাড়ির ফ্রিজে গোমাংস রাখা ও খাওয়ার অভিযোগে পিটিয়ে খুনের ঘটনায় মূল অভিযুক্তদের একজন বিশাল রানাকে জামিন মঞ্জুর করেছে এলাহাবাদ হাইকোর্ট। সোমবার বিচারপতি প্রত্যুষ কুমার তাকে জামিন দেন । বিশাল নয়ডার এক বিজেপি নেতার ছেলে বলে জানা গিয়েছে। আখলাক খুনের অধিকাংশ অভিযুক্তেরই আগেই জামিন মঞ্জুর হয়েছে।
২০১৫-র সেপ্টেম্বরে পঞ্চাশোর্ধ্ব আখলাককে তাঁর গৌতম বুদ্ধ নগরের দাদরি সাব ডিভিশনের বিসাদা গ্রামের বাড়িতে পিটিয়ে মেরে ফেলে একদল লোক। তারা মারধর করে আখলাকের ছেলে দানিশকেও।
তাদের বাড়িতে গোমাংস আছে, তারা তা খেয়েওছে, এহেন সন্দেহের ভিত্তিতেই আখলাকের বাড়িতে গভীর রাতে ঢুকে মারধর করে দুষ্কৃতীরা।এ ঘটনায় ব্যাপক প্রতিক্রিয়া হয় দেশব্যাপী। অসহিষ্ণুতা বিতর্ক ছড়িয়ে পড়ে। এমন ঘটনা চরম লজ্জা, নিন্দার বলে সরকারি খেতাব ফিরিয়ে দেন একাধিক নামী লেখক, শিক্ষাবিদ, চলচ্চিত্র পরিচালক।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ