ঢাকা, বৃহস্পতিবার 03 August 2017, ১৯ শ্রাবণ ১৪২8, ৯ জিলক্বদ ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ঠাকুরগাঁওয়ে প্রায় একশ কোটি টাকার কাজ বাস্তবায়ন করেছে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর

ঠাকুরগাঁও সংবাদদাতা : স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) ঠাকুরগাঁও এর আওতায় ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে প্রায় ১শ কোটি টাকা ব্যয়ে ১২০ কিঃ মিঃ রাস্তার উন্নয়ন মূলক কাজ বাস্তবায়ন করা হয়েছে। আর এ কাজ বাস্তবায়নে শ্রমিক  লেগেছে ৫ লাখ। বর্তমান সরকারের আন্তরিকতায় এ অঞ্চলে রাস্তাঘাট, ব্রিজ, কালভার্টসহ যোগাযোগ ব্যবস্থায় ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে বলে দাবি কর্তৃপক্ষের।  

ঠাকুরগাঁও   জেলার হরিপুর, পীরগঞ্জ, বালিয়াডাঙ্গী, রাণীশংকৈল ও সদর উপজেলায় ১২০ কিঃ মিটার সড়ক যোগাযোগ ছাড়াও অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের ৭টি প্যাকেজে ১৯টি বসতবাড়ি নির্মাণ। ৪টি উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স নির্মাণ। এছাড়াও জেলায় ২২০ মিঃ ব্রিজ নির্মাণ করা হয়েছে। কাজ বাস্তবায়নে  জেলার শতাধিক ঠিকাদারের অধিনে কাজ পেয়েছে ৫ লাখ শ্রমজীবী মানুষ। আর এসব উন্নয়ন মূলক কাজ বাস্তবায়নের ফলে প্রান্তিক মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হয়ে দাড়িয়েছে। উৎপাদিত পণ্য সহজেই জেলার হাট-বাজার এবং রাজধানী ঢাকাসহ পাঠিয়ে দিচ্ছে দেশের অন্যান্য জেলাগুলোতেও। তবে এ জেলায় এখনো বাকি রয়েছে ৩৭৪৩কিঃ মিঃ কাচাঁ রাস্তা পাকাঁকরণ কাজের। কাচাঁ রাস্তা পাকাকরণ সম্পূর্ণ হলেই প্রান্তিক মানুষের আশা পুরণের পাশাপাশি প্রসার ঘটবে ব্যবসা বাণিজ্যের। আরো সহজ হবে শিক্ষার্থী ও পথচারিদের চলাফেরা ।  

ঠাকুরগাঁও জেলার ১ম শ্রেণীর ঠিকারদার রাম বাবু, মুরাদ হোসেন, সাদেক কুরাইশী জানান, বর্তমান সরকারের আন্তরিকতার কারণেই নিয়মিত কাজ করা সম্ভব হচ্ছে। শুধু ঠিকাদাররা নয়, ব্যবসায়ী, শ্রমিকসহ সংশ্লিষ্টরাও লাভবান হচ্ছেন। বিশেষ করে হাট-বাজারের ব্যপক উন্নয়ন হওয়ায় বেড়েছে কর্মসংস্থানও।  

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) ঠাকুরগাঁও  জেলা অফিসের তথ্য মতে, ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে ৮০ কিঃ মিঃ রাস্তার উন্নয়ন মুলক কাজ বাস্তবায়ন করা হয়। আর ২০১৬-১৭ প্রায় ১শ কোটি টাকা ব্যয়ে ১২০ কিঃ মিঃ রাস্তার উন্নয়ন মূলক কাজ বাস্তবায়ন করা হয়েছে। যা ২০১৫-১৬ বছরের তুলনায় অনেক বেশি। ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে ১৩০ কিঃ মিঃ রাস্তার উন্নয়ন মূলক কাজের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। 

এ বিষয়ে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) ঠাকুরগাঁও এর নির্বাহী প্রকৌশলী কান্তেশ্বর বর্মন জানান, বর্তমান সরকারের অর্থায়নে যোগাযোগ ব্যবস্থার প্রসার ঘটছে। সরকারের আন্তরিকতার কারণেই এ জেলার বেশিরভাগ রাস্তা পাকাঁকরণ করা হয়েছে। প্রতিটি কাজ আমরা তদারকি করেছি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ