ঢাকা, মঙ্গলবার 08 August 2017, ২৪ শ্রাবণ ১৪২8, ১৪ জিলক্বদ ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

৩ কলেজ ছাত্রীসহ নিহত ৭ ॥ আহত-১০

গাজীপুর সংবাদদাতা : গাজীপুরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় তিন কলেজ ছাত্রীসহ ৭ জন নিহত ও ১০ জন আহত হয়েছে। 

গতকাল সোমবার দুপুরে কাভার্ডভ্যানের সঙ্গে যাত্রীবাহী লেগুনার ধাক্কায় তিন কলেজছাত্রীসহ ৫ জন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আরো অন্ততঃ ৭ জন আহত হয়েছে। নিহতদের মধ্যে তিন জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। এরা হলো- গাজীপুর সদর উপজেলার ভাওরাইদ এলাকার ফরহাদ হোসেনের মেয়ে ফারহানা আক্তার শিখা, একই জেলার গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মাস্টার বাড়ি এলাকার মোঃ শাহজাহান মিয়ার মেয়ে সাথী আক্তার রিমি ও উত্তর সালনা এলাকার গিয়াস উদ্দীনের মেয়ে খাদিজা আক্তার। তারা গাজীপুর সদর উপজেলার ইকবাল সিদ্দিকী কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্রী। হতাহতরা সবাই লেগুনার যাত্রী। এদিকে একইদিন অপর দু’টি পৃথক দুর্ঘটনায় এক গ্যারেজ কর্মচারীসহ দুইজন নিহত এবং তিনজন আহত হয়েছে।

 নাওজোর হাইওয়ে ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর আব্দুল হাই জানান, সোমবার বেলা আড়াইটার দিকে যাত্রী নিয়ে একটি লেগুনা বেপরোয়া গতিতে গাজীপুরের চান্দনা চৌরাস্তা যাচ্ছিল। পথে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মাস্টারবাড়ি বাসস্ট্যান্ড এলাকায় লেগুনার চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সামনে থাকা চান্দনা চৌরাস্তাগামী অপর একটি কাভার্ডভ্যানকে সজোরে ধাক্কা দেয়। এতে লেগুনা আরোহী দুই কলেজ ছাত্রীসহ ৩জন ঘটনাস্থলেই নিহত এবং অপর ৯ জন আহত হয়। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে শহীদ তাজ উদ্দীন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করলে চিকিৎসক আরো এক কলেজ ছাত্রীসহ দুইজনকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে আহতদের মধ্যে একজনকে আশংকা জনক অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতদের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ওই হাসপাতালে প্রেরণ করে এবং দুর্ঘটনা কবলিত গাড়ি দু’টি জব্দ করে। নিহত ওই তিন ছাত্রী ক্লাশ শেষে বাড়ি ফিরছিল।

শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক প্রণয় ভ’ষন দাস জানান, ওই দূর্ঘটনায় আহত গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ভুরুলিয়ার ছায়াতরু এলাকার মো. শহীদুল ইসলাম (২৬), সালনা এলাকার মো. গিয়াস উদ্দিন (৩০), দক্ষিণ খাইলকৈর এলাকার রেজাউল হক (৪০),গাজীপুর সদরের রাজেন্দ্রপুর এলাকার মো. শরীফুল ইসলাম (২২) এবং হোতাপাড়া এলাকার মো. মামুন (২২)সহ অজ্ঞাত এক যুবক (৩৫) শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। হতাহত বাকীদের নাম পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায় নি। 

এদিকে একইদিন সকালে মুরগির খাঁচাবাহী পিক-আপ চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের পোড়াবাড়ি এলাকায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পাশে থাকা বিদ্যুতের খুটির সঙ্গে ধাক্কা খায়। এতে পিকআপের উপর থেকে মহাসড়কে পড়ে ঘটনাস্থলেই হেলপার শাহ আলম নিহত এবং ও সালাউদ্দিন (২৪) আহত হন। পরে হতাহতদের উদ্ধার করে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। 

এছাড়া জয়দেবপুর থানার চক্রবর্তী পুলিশ ফাঁড়ির এসআই মোঃ হারুন অর রশীদ জানান, ঢাকার আশুলিয়া থানা এলাকার নরসিংহপুরের ইউসুফ মার্কেটের ফখরুল ইসলামের গ্যারেজে একটি প্রাইভেটকার মেরামত করা হয়। পরে পরীক্ষা করার (ট্রায়াল) জন্য কারটিকে নিয়ে আরাফাত, জুয়েল ও বাবু মিয়া নামের তিন কর্মচারী সোমবার সকালে ওই গ্যারেজ থেকে বের হয়। তারা পার্শ্ববর্তী গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের কাশিমপুর সড়ক পথে চালিয়ে যাওয়ার সময় কাশিমপুরের সুরাবাড়ি ব্রীজ এলাকায় পৌঁছলে চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে। এতে প্রাইভেটকারটি আরোহীসহ সড়কের পাশে খাদে পড়ে পানিতে ডুবে যায়। এলাকাবাসী এগিয়ে এসে তাৎক্ষনিকভাবে দু’জনকে আহতাবস্থায় ওই গাড়ি থেকে উদ্ধার করতে পারলেও অপর আরোহী ওই গ্যারেজের হেলপার আরাফাতের খোঁজ পায় নি। প্রায় পৌণে এক ঘন্টা তল্লাশীর পর পানির নীচে গাড়ীতে আটকে থাকা আরাফাতকে উদ্ধার করে। তাদেরকে স্থানীয় জামগড়া নারী ও শিশু হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক আরাফাতকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহত আরাফাত হোসেন (২০) গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের টঙ্গীর মন্নুনগর এলাকার আব্দুর রবের ছেলে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ