ঢাকা, মঙ্গলবার 08 August 2017, ২৪ শ্রাবণ ১৪২8, ১৪ জিলক্বদ ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

নগদ ৫ লাখ টাকা ১২ ভরি স্বর্ণ ও ৮৫ ভরি রুপা লুট ডাকাতের হামলায় পাহাড়াদারসহ আহত ৭ জন

লৌহজং (মুন্সিগঞ্জ) সংবাদদাতা : লৌহজংয়ে বড় মোকাম বাজারের ৩টি স্বর্ণের দোকানে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে রোববার রাত দেড়টায়। ডাকাতি ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী বড় মোকাম বাজারের পাহাড়াদার ছলিম মোল্লা (৫৫) ও নিত্য গোপাল (৪৮) দু’জনে জানান, রোবার রাত আনুমানিক দেড়টার সময় বাজারের পাশে খাল দিয়ে ২৫/৩০ জনের একটি ডাকাত দল সিবোর্টে করে তারা বড় মোকাম বাজারের নামে। এর আগে পাহারাদাড়রা বাজারের অলিগলি ঘুরে ফিরে পাহাড়া দিচ্ছিল। হঠাৎ নদীর পাড়ে টস লাইটের আলো এবং মানুষের শব্দ শুনে এগিয়ে গেলে প্রথমে পাহাড়াদার ছলিম মোল্লাকে এরপর নিত্য গোপালকে ১০/১২ জন মিলে হাত-পা বেধেঁ ফেলে এবং ছুরি, চাপাতি ও পিস্তল উচিঁয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে আটকে রাখে একটি পরিত্যাক্ত ভবনের পাশে। এই সুযোগে ডাকাতদল পুরো বাজার তাদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়।  ডাকাতরা  তালা ও রড কাটার যন্ত্র ব্যবহার করে বাজারের একটি ভবনের কলাপসিবল গেট কেটে ভিতরে প্রবেশ করে পুজা পায়েল গহনালয়ের সাটার ও রামা গহনালয়ের সাটার ভেঙ্গে দোকানে থাকা কর্মচারীদের মারধর করে অস্ত্রের মুখে নগদ দুই লাখ টাকা, ৮ ভরি স্বর্ণ ও ৬০ ভরি রূপা নিয়ে যায়। এরপর  পাশেই অপর ভবনের একটি স্বর্ণের দোকান নিরব গহনালয়ে গিয়ে সাটার ভেঙ্গে সেখান থেকে নগদ দুই লাখ টাকা, ৪ ভরি স্বর্ণ ও ২৫ ভরি রূপা নিয়ে সটকে পরে। এ সময় বাজারের পাশে রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় ডাকাত দল জেলেদের আটক করে এবং সামু দাস নামে এক জেলের কাছ থেকে নগদ ৩ হাজার টাকা ও সঙ্গে থাকা সবার কাছ থেকে মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়।
 এ সময় হাত-পা বাধাঁ ছলিম মোল্লার কাছ থেকে ও ৫ হাজার টাকা, মোবাইল ফোন কেড়ে নেয়। সব কিছু নিয়ে তারা সটকে পরলে দোকানদার ও লোকজনের চিৎকারে আশপাশের বাড়ি ঘরের লোকজন ছুটে এসে তাদের মুক্ত করে এ সময় ডাকাতদের হামলায় আহত তপন তালুকদার, চয়ন, লিটন, সুব্রত, শ্রাবন, ছলিম মোল্লা ও নিত্য গোপালকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এই বিষয়ে লৌহজং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আনিচুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, আমরা সংবাদ পেয়ে ঘটনা স্থলে যাই এবং সব বিষয়ে খোঁজ খবর নেই তবে মামলা নেয়ার পরই আসামীদের ধরার সকল প্রকার চেষ্টা অব্যাহত রাখবো।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ