ঢাকা, বৃহস্পতিবার 10 August 2017, ২৬ শ্রাবণ ১৪২8, ১৬ জিলক্বদ ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

দশ হাজার মিটারের শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখলেন মো: ফারাহ্

মোহাম্মদ জাফর ইকবাল : গতির রাজা বলা না হলেও দৌড়ের রাজা বলা হয় তাকে। কারণ দীর্ঘ সময় ধরে দৌড়ে থাকাটা অনেক কষ্টের। যদি সেটা হয় টানা কয়েকবার। যেমনটা ভাবা হয়েছিল, ঘটেছে ঠিক তেমনটাই। ইতিহাস গড়েছেন তিনি। উঠে গেছেন কিংবদন্তীর চূড়ায়। বজ্রবিদ্যুতের ঝলকানির পাশাপাশি হাজার মিটার দৌড়ের আরেকটি প্রতিযোগিতাও দেখেছে বিশ্ব। তবে বজ্রবিদ্যুতের ক্ষেত্রে ব্যত্যয় ঘটলেও অটল রয়েছেন একজন। তিনি হচ্ছেন ব্রিটিশ দূরপাল্লার দৌড়বিদ মোহাম্মদ ফারাহ্। শারীরিক গঠন ও গায়ের রং নিয়ে নানান মন্তব্য রয়েছে তাকে নিয়ে। গতবারও বিশ্ব চ্যাম্পিয়নসশীপে তিনি জয়রথ ধরে রেখেছেন। গতবার ১০ হাজার মিটারের পর ৫ হাজার মিটার দৌড় ইভেন্টেও স্বর্ণজয় করেন দূরপাল্লার দৌড়বিদ মো: ফারাহ্। শুধু তাই নয়, ইতিহাস গড়েছেন তিনি। এবারো তিনি সবাইকে তাক লাগিয়ে ১০ হাজার মিটারে স্বর্ণ জয়ের রেকর্ড অর্জন করেছেন।
শুরুর দিনটাই হলো বর্ণিল। লন্ডনের অলিম্পিক স্টেডিয়ামে বিশ্বএ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপসের যাত্রা শুভ হলো আয়োজক দেশের প্রত্যাশিত সাফল্য দিয়ে। আর এই সাফল্য এনে দিলেন এ্যাথলেটিক্স কিংবদন্তি সোমালীয় বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ তারকা মো ফারাহর বিজয়ে। টানা দশমবারের (অলিম্পিক ও বিশ্ব আসর মিলিয়ে) মতো দূরপাল্লার দৌড়ে স্বর্ণপদক জিতেছেন ৩৪ বছর বয়সী এ দৌড়বিদ। ১০ হাজার মিটারে এ জয়টি ছিল বেশ দুঃসাধ্য। কারণ মাঝপথে দুইবার হোঁচট খেয়ে পড়তে গিয়েও সামলে নিয়েছেন। কিন্তু এরপরও অবিশ্বাস্য জয়টা তুলে নেন তিনি ২৬ মিনিট ৪৯.৫১ সেকেন্ড সময় নিয়ে। ক্যারিয়ারের সবচেয়ে কঠিন রেস হিসেবে অভিহিত করে ফারাহ জানিয়েছেন পায়ের ইনজুরির জন্য ডাক্তারের শরণাপন্ন হবেন তিনি। তবে ৫০০০ মিটারে খেতাব ধরে রাখতে আত্মবিশ্বাসী ফারাহ দাবি করেছেন সময়মতোই পুরোপুরি সেরে উঠবেন তিনি।
প্রত্যাশা সবারই ছিল আবার ফারাহ্ জিতবেন ১০ হাজার মিটারের খেতাব। কারণ দীর্ঘদিন ধরে এই ইভেন্টে তিনি রাজত্ব করে চলেছেন। প্রতিপক্ষদের বারবারই পেছনে ফেলেছেন। আর ক্যারিয়ারে শেষবারের মতো দূরপাল্লার দৌড়ে নেমেছেন এবার। বিশ্ব আসরের পরই ৫০০০ ও ১০০০০ মিটারকে বিদায় জানিয়ে শুধু ম্যারাথনে অংশ নেবেন তিনি। ১০ হাজার মিটারে প্রথমবার শ্রেষ্ঠত্ব পেয়েছিলেন এই লন্ডন স্টেডিয়ামেই ২০১২ সালের অলিম্পিকে। এক বছর আগে দেগুতে প্রথমবারের মতো বিশ্ব আসরে অংশ নিয়ে ৫০০০ মিটারে স্বর্ণ জিতলেও ১০ হাজারে ব্যর্থ হয়েছিলেন- রৌপ্য পেয়েছিলেন। সেই ব্যর্থতা ঘোচান তিনি লন্ডন অলিম্পিকে। গত অলিম্পিক এবং ২০১৩ সালের মস্কো ও ২০১৫ সালের বেজিং বিশ্ব আসরে সেই শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রেখে ইতিহাস গড়েন তিনি। তবে ৩৪ বছর বয়সে এসে এবার লন্ডন বিশ্ব আসরে শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখাটা বড় চ্যালেঞ্জই ছিল ফারাহর জন্য। কিন্তু বয়সকে হার মানিয়েছেন তিনি। রেসের চূড়ান্ত ল্যাপ চলার সময় দুইবার হোঁচট খেয়ে পড়তে ধরেছিলেন। কিন্তু নিজেকে সামলে নিয়েছেন এবং শেষ পর্যন্ত জয়টা তুলেই নেন তিনি। ফারাহ সময় নেন ২৬ মিনিট ৪৯.৫১ সেকেন্ড সময় নিয়েছেন। এটিই চলতি বছরের ওয়ার্ল্ড লিডিং সময়।
উগান্ডার তরুণ জশুয়া চেপটেগি ও কেনিয়ার পল তানুই এদিনও ফারাহর জন্য ছিলেন বড় চ্যালেঞ্জ। কিন্তু তাদের কৌশল এবারও ব্যর্থ হয়েছে। চেপটেগি ২৬ মিনিট ৪৯.৯৪ সেকেন্ড সময় নিয়ে রৌপ্য জয় করেন। এটি তার ব্যক্তিগত সেরা টাইমিং। আর তানুই মওসুমে নিজের সেরা টাইমিং গড়ে ২৬ মিনিট ৫০.৬০ সেকেন্ড সময় নিয়ে ব্রোঞ্জ জয় করেন। জয়ের পর দারুণ উচ্ছ্বসিত ফারাহ্ বলেন, ‘ব্রিটিশ হিসেবে এটি আমাকে গৌরবান্বিত করেছে। দীর্ঘ একটা যাত্রা ছিল এবং পুরোটাই বিস্ময়কর। অনেক কঠিন ছিল আজকের রেসটা কিন্তু আমার মনে হয় আমি মানসিকভাবে অনেক শক্ত ছিলাম। আমি শুরুতে একটু আবেগী ছিলাম, কিন্তু পরের দিকে সেটাকে সামলে নিয়েছি।’ ১০ হাজার মিটারে এটি ফারাহর বিশ্ব আসরে তৃতীয় স্বর্ণপদক। অলিম্পিকে জিতেছেন দুইবার। এবার ক্যারিয়ারের স্বর্ণালী এই সাফল্য ধরে রাখার জন্য ৫০০০ মিটারে জেতার চ্যালেঞ্জ ফারাহ্র জন্য। কিন্তু এর আগে শঙ্কার কালো মেঘ জমেছে এই ব্রিটিশ দৌড়বিদকে নিয়ে। কারণ তিনি জানিয়েছেন পায়ের ইনজুরিতে পড়েছেন। এ বিষয়ে ফারাহ বলেন, ‘পায়ে আঘাত পেয়েছি এবং ডাক্তারের কাছে যাচ্ছি। সম্ভবত কয়েকটা আঁচড় পড়েছে।’ বুধবার ৫ হাজার মিটারের হিট শুরু হবে। মাঝে চারদিন সময় থাকবে অবশ্য সেরে ওঠার জন্য। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘বড় একটা বিরতি পেয়েছি, বেশ সময় আছে সেরে ওঠার। আমাকে শক্ত হতে হবে। ৫ হাজার মিটারের জন্য প্রস্তুত হতে হবে আমাকে।’
দূরপাল্লার দৌড়ে স্বর্ণ জয় করে ৪০ বছরের অলিম্পিক আগেই ইতিহাসে নতুন রেকর্ড গড়েছেন বৃটিশ তারকা দৌড়বিদ মো ফারাহ। গেলবার ১০ হাজার মিটারের পরে ৫ হাজার মিটারেও সবাইকে পিছনে ফেলে প্রথম স্থান লাভ করে অলিম্পিকে ‘ডাবল ডাবল’ জেতার কৃতিত্ব দেখিয়েছেন ফারাহ। পরপর দু’টি অলিম্পিকে দূরপাল্লার এই দুটি ইভেন্টে এর আগে কেবলমাত্র ১৯৭৬ সালে ফিনল্যান্ডের লাসে ভিরেন স্বর্ণ জয়ের কৃতিত্ব দেখিয়েছিলেন। সেবার প্রতিযোগিতা শেষে উচ্ছ্বসিত ফারাহ বলেছেন, ‘আমি এখনো বিশ্বাস করতে পারছি না। ১০ হাজার মিটারের পরে আমার পা দু’টো বেশ পরিশ্রান্ত হয়ে পড়েছিল। এমনকি খাবারের জন্য ডাইনিংয়ে পর্যন্ত যেতে পারিনি, অন্যরা আমার জন্য রুমে খাবার নিয়ে এসেছে। এবারো তাকে সেই আত্মবিশ্বাসই সাহস যুগিয়েছে। অসুস্থ থেকেও তিনি তার দশম স্বর্ণ অর্জন করলেন। নিজেকে প্রস্তুত করে তোলার জন্য ফারাহ দীর্ঘদিন যাবত সাবেক ম্যারাথন কিংবদন্তী আলবার্তো সালাজারের অধীনে যুক্তরাষ্ট্রের উত্তরাঞ্চলীয় প্রদেশ ওরেগনে অনুশীলন করেছেন। দূরপাল্লা দৌড়ে কিংবদন্তী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত ইথিওপিয়ান কেনেনিসা বেকেলেকে দেখেই ফারাহ্ অনুপ্রাণিত হয়েছে। ২০০৪ এথেন্স ও ২০০৮ বেইজিং অলিম্পিকের ১০ হাজার মিটারে স্বর্ন ও ৫ হাজার মিটারে স্বর্ণ ও রৌপ্য জয়ী বেকেলেকে দেখে ফারাহ্র মনে হয়েছিল সে পারলে আমি কেন পারবো না। এর মধ্যে একটি পদক আমার চাই। মনের ভিতর স্বপ্ন থাকলে তা একদিন অবশ্যই বাস্তবায়িত হবে, সে লক্ষ্যেই ফারাহ নিজেকে গড়ে তুলেছেন।
মো: ফারাহ্ই সর্বকালের সেরা ব্রিটিশ অ্যাথলেট। গেল বছরও বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে ১০ হাজার মিটারের পর পাঁচ হাজার মিটার জিতেই এ স্বীকৃতি পান ৩৪ বছর বয়সী এই অ্যাথলেট। এবার সেই স্বীকৃতিকে আরো উচ্চতায় নিয়ে গেলেন তিনি। বিবিসি, ডেইলি মেইল, দ্য সানসহ ব্রিটিশ মিডিয়াজুড়ে চলছে ফারাহ বন্দনা। হওয়ারই কথা অবশ্য! ব্রিটিশদের মধ্যে তো বটেই, সারা বিশ্বেই ফারাহর আগে কেবল একজনের নাম রয়েছে দূরপাল্লার দৌড়ে এখন ‘ট্রিপল ট্রিপল’-এর কীর্তি। রেকর্ড়ের পরই সোমালিয়ায় জন্ম নেওয়া এ ব্রিটিশের উচ্ছ্বাস, ‘এই আমার ক্যারিয়ারের মধুরতম জয়। এর আগে আরেক কিংবদন্তি বেকেলে ছাড়া কেউই পূরণ করতে পারেননি ডাবল ডাবল। এবার সেটাও ভেঙ্গে গেছে। নতুন রেকর্ড় কেবল ফারাহর নামের পাশেই লিখা থাকলো। ফারাহ্ নিজেকে নিয়ে গেলেন এক অনন্য উচ্চতায়। জয়ের পর এই তারকা এ্যাথলেট বলেন, ‘এটা এমন কিছু, যার জন্য আমাকে অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে। আমি শুধু আমার বাচ্চা আয়েশা আর আমানিকের (যমজ সন্তানের বয়স দুই) কথা ভাবছিলাম। কিংবদন্তিরা অমর। ইতিহাসের পাতায় কীর্তিমানদের স্থান অবিনশ্বর। বিনম্র শ্রদ্ধায় তাদের স্মরণ করা হয় যুগ যুগান্তর। ভক্ত-সমর্থকদের মনের ঘরে চিরস্থায়ী হতে ‘কিংবদন্তি’ হতে চান মোহাম্মদ ফারাহ্ও।  পেলে-ম্যারাডোনা-মোহাম্মদ আলী কিংবা লিওনেল মেসির মতো কিংবদন্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ