ঢাকা, বৃহস্পতিবার 10 August 2017, ২৬ শ্রাবণ ১৪২8, ১৬ জিলক্বদ ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

জনগণ আ’লীগকে লালকার্ড দেখাতে শুরু করেছে -রিজভী

গতকাল বুধবার বিএনপির পল্টন কার্যালয়ে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন দলের সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : আ’লীগকে জনগণ লাল কার্ড দেখাতে শুরু করেছে মন্তব্য করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, আওয়ামী লীগ সদস্য সংগ্রহ অভিযানে ব্যর্থ হয়ে বিএনপির সদস্য সংগ্রহ কার্যক্রমে বাধা সৃষ্টি করছে। তাই জনগণ আওয়ামী লীগকে লাল কার্ড দেখাতে শুরু করেছে। তিনি বলেন, আওয়ামী ক্যাডার ও তাদের লালিত পালিত আইন শৃঙ্খলা বাহিনী বিএনপির দেশব্যাপী সদস্য সংগ্রহ কার্যক্রমে বাধা, হামলা ও ভাঙচুর করছে। বিএনপি নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার ও নির্যাতনও করছে। এমনকি বিশেষ অভিযানের নামে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ফের গণগ্রেফতার শুরু হয়েছে। বিভিন্ন জেলা উপজেলায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও তাদের পরিচয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে হামলা, ভাংচুর ও তা-বলীলা চালানো হচ্ছে। গতকাল বুধবার বিকেলে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।
রিজভী বলেন, দেশজুড়ে বিএনপির দুই মাসব্যাপী প্রাথমিক সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন অভিযান চলছে। দলের এই কর্মসূচি ইতোমধ্যে মানুষের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষেরা স্বত:স্ফুর্তভাবে বিএনপির সদস্য ফরম সংগ্রহ ও সদস্য পদ নবায়ন করছেন। কিন্তু আওয়ামী লীগের চলমান সদস্য সংগ্রহ কার্যক্রম ব্যর্থ হয়ে যাওয়ায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ্যে বিএনপির বিরুদ্ধে এলোমেলো ও সামঞ্জস্যহীন বক্তব্য রাখছেন। অন্যদিকে জেলায় জেলায় বিএনপির উদ্যোগে প্রাথমিক সদস্য পদ গ্রহণ ও নবায়নের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান পণ্ড করতে পুলিশ ও দলীয় সশস্ত্র ক্যাডারদের লেলিয়ে দিয়েছেন।
রিজভী বলেন, ভোটারবিহীন সরকারের ভয়াবহ দুঃশাসন, লুটপাট আর নারকীয় উল্লাসে গোটা জাতি আজ ক্ষতবিক্ষত। ছাত্রলীগ, যুবলীগ, শ্রমিক লীগসহ আওয়ামী সন্ত্রাসীদের তা-বে বাংলাদেশের বিভিন্ন জনপদ ও জনবসতি এখন রক্তমাখা। তাদের আগ্রাসী চাঁদাবাজী, দখলবাজী, টেন্ডারবাজী, খুনখারাবীতে সারাদেশ এখন শ্মশানের অন্ধকারে ঢেকে গেছে। ক্ষমতাসীনরা যেন সারাদেশে প্রাণের স্পন্দন স্তব্ধ করে দেয়ার কর্মসূচিতে লিপ্ত।
বিভিন্ন জেলা উপজেলায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও তাদের পরিচয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে হামলা, ভাংচুর ও তান্ডবলীলা চালানো হচ্ছে অভিযোগ করে রিজভী বলেন, নেত্রকোণা জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ইমাম হাসান আবু চাঁন চেয়ারম্যান, দূর্গাপুর উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি জহিরুল আলম ভূঁইয়া, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আউয়াল এবং দুর্গাপুর পৌর বিএনপি’র সভাপতি ফজলুর রহমান রুনুসহ ৫২ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে সম্পূর্ণ বেআইনীভাবে দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এছাড়া গত ৪ আগষ্ট ২০১৭ দুর্গাপুর উপজেলায় বিএনপি’র সদস্য পদ নবায়ন ও নতুন সদস্য সংগ্রহ অনুষ্ঠান পুলিশী হামলায় পন্ড হবার পর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে বিএনপি নেতাকর্মীদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ বাড়িতে বাড়িতে আওয়ামী সন্ত্রাসী ও পুলিশ যৌথভাবে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিয়েছে। ময়মনসিংহে ইনডোর কিংবা আউটডোর কোথাও বিএনপি’র কোন অনুষ্ঠানের অনুমতি দেয়া হবে না বলে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা ইতোমধ্যে ঘোষণা দিয়েছে। সরকারের মদদপুষ্ট হয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের এই ধরণের বেআইনী ঘোষণায় আমি দলের পক্ষ থেকে ধিক্কার জানাই। একটি গণতান্ত্রিক দেশে এই ধরণের ঘোষণা প্রমান করে বাংলাদেশ নামক স্বাধীন রাষ্ট্রটি এখন পুলিশী রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। ফেনী জেলাধীন সোনাগাজী উপজেলা জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক মেজবাহ উদ্দিন পিয়াস গত ০৭ আগস্ট রাতে ফেনী থেকে ঢাকা আসার পথে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম এলাকায় ডিবি পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে সোনাগাজী থানায় হস্তান্তর করলে থানা পুলিশ তার ওপর বর্বর নির্যাতন চালায়। পরবর্তীতে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলায় জড়িয়ে আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দল নেতৃবৃন্দ যথাক্রমে বাবুল হোসেন, মো: মানিক, মো: ফুল মিয়া, মো: শফিকুল এর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। গত ৫ আগস্ট নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে ২ নং ওয়ার্ড বিএনপি’র উদ্যোগে বিএনপি’র সদস্য পদ নবায়ন ও নতুন সদস্য সংগ্রহ অনুষ্ঠানে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য এ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে অনুষ্ঠান চলার সময় পুলিশ অতর্কিতে হামলা চালিয়ে অনুষ্ঠানটি পন্ড করে দিয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ