ঢাকা, সোমবার 14 August 2017, ৩০ শ্রাবণ ১৪২8, ২০ জিলক্বদ ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

২১ দিনে পৌঁছেছে ৬২ হাজার ১৫ দিনে পাঠাতে হবে ৬৫ হাজার হজ্বযাত্রী

 

স্টাফ রিপোর্টার : গত ২৪ জুলাই থেকে গতকাল রোববার পর্যন্ত ২১ দিনে সৌদি আরবে গেছেন ৬২ হাজার হজ্বযাত্রী। আগামী ২৮ আগস্ট পর্যন্ত হজ্ব ফ্লাইট চলবে। এই ১৫দিনে পাঠাতে হবে ৬৫ হাজার হজযাত্রী। এ হিসেবে প্রতিদিন প্রায় সাড়ে ৪ হাজার হজযাত্রীকে বহন করতে হবে সৌদিয়া এয়ার ও বাংলাদেশ বিমানকে। আগামী ১৭ আগস্ট পর্যন্ত হজ্ব ভিসার জন্য আবেদন করা যাবে। ইতোমধ্যে ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮জন যাত্রীর মধ্যে ১লাখ ৩হাজার ৭৫০জন হজ্বযাত্রীর ভিসা ইস্যু হয়েছে। আর প্রক্রিয়াধীন রয়েছে ২০ হাজার ৮৪১টি ভিসা। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ভিসা ইস্যু হয়ে যাবে বলে আশা প্রকাশ করছে হজ¦ ক্যাম্প। 

এ দিকে গতকাল দুপুর ২টার একটি ফ্লাইট বিজি ৯০২৯ স্থগিত করা হয়েছে। তবে ফ্লাইটটি বাতিল করা হয়নি। বিমানের বাতিলকৃত ফ্লাইটের ক্যাপাসিটি বৃদ্ধি করার জন্য ইতোমধ্যে অন্যান্য রুটের ফ্লাইট বাতিল করে হজ্ব ফ্লাইটে অর্ন্তভুক্ত করা হয়েছে। 

বিমান বাংলাদেশ সূত্র জানিয়েছে, হজ¦যাত্রী পরিবহনের জন্য বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ঢাকা-দোহা রুটের ৫টি ফ্লাইট বাতিল করেছে। এছাড়া ঢাকা-লন্ডন রুটের একটি করে ফ্লাইট কমানো হয়েছে। ফলে এই রুটের যাত্রীদের বিপাকে পড়তে হবে। একই সঙ্গে বাড়বে বিমান বাংলাদেশের লোকসান। হজ ফ্লাইট এবং ওই দুই রুটের নিয়মিত ফ্লাইট বাতিল হওয়ায় বিমানের মোটা অংকের টাকা ক্ষতি হবে। 

বিমান বাংলাদেশে এয়ারলাইন্সের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ বলেন, শেষ সময়ে হজ¦যাত্রী পরিবহনের অতিরিক্ত বিমানের প্রয়োজন। এজন্য ২৬ আগস্ট পর্যন্ত ঢাকা- দোহা ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। এছাড়া ঢাকা-লন্ডন রুটে সপ্তাহে চারটির পরিবর্তে তিনটি করে ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে। ফলে এ ফ্লাইট দিয়ে রুটের পরিবর্তে হজযাত্রী বেশি পরিবহন সম্ভব হবে।’

বাংলাদেশে থেকে ১২ আগস্ট পর্যন্ত ৫৯ হাজার ১২২ জন হজযাত্রী সৌদি আরবে গেছেন। আর গতকালের ফ্লাইটের যাত্রীসহ প্রায় ৬২ হাজার হজ্বযাত্রী সৌদি আরবে পৌছেঁছেন। এ বছর বাংলাদেশ থেকে ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজযাত্রী সৌদি আরবে যাওয়ার কথা। আগামী ২৮ আগস্ট পর্যন্তহজ্ব ফ্লাইট চলবে। এ ১৫দিনে ৬৫ হাজার হজযাত্রীকে সৌদি আরব পাঠাতে হবে। 

এখন পর্যন্ত যাত্রী সংকটের কারণে বিমানের ২১টি ফ্লাইট বাতিল করতে হয়েছে। আর সৌদিয়া এয়ারের ৪টি ফ্লাইটসহ মোট ২৫টি ফ্লাইট বাতিল হয়েছে।

সূত্র জানায়, হজ¦ এজেন্সিগুলোর গাফিলতির ও অতি মুনাফার লোভের কারণেই একের পর এক হজ¦ ফ্লাইট বাতিল হয়েছে। হজ¦ ফ্লাইট শুরুর পর থেকে ভিসা জটিলতায় ও হজ¦ যাত্রীদের বাড়ি ভাড়া সংক্রান্ত কারণে প্রায় ২৫টি হজ্ব ফ্লাইট বাতিল হয়েছে। আর হজ¦ এজেন্সিরা অভিযোগ করেছে, বিমানের অদূরদর্শিতার কারণে ফ্লাইট বাতিল করতে হয়েছে। এজেন্সীদের চাহিদার দিকে লক্ষ্য না রেখেই বিমানে ফ্লাইট প্রস্তুত করায় এসব ফ্লাইট বাতিল করতে হয়েছে।

তবে নির্ধারিত সময়ের আগে সব হজ যাত্রীর ভিসা প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছে হজ অফিসের পরিচালক সাইফুল ইসলাম। তিনি বলেন, প্রতিনিয়ত ভিসার আবেদন বাড়ছে। আশা করছি সঠিক সময়ের মধ্যে সবার ভিসা হয়ে যাবে। সব হজ¦ যাত্রী সৌদি আরবে যেতে পারবেন।

হাবের মহাসচিব শাহাদাত হোসাইন তসলিম বলছেন, ভিসা নিয়ে আর সমস্যা হবে না কিন্তু এখন সমস্যা হয়ে গেছে যারা মদিনা হয়ে ঢুকবেন তাদের নিয়ে। সৌদি সরকারের নিয়ম হলো শুধু মক্কা ও মদিনা হয়ে হজে¦র জন্য সৌদিতে প্রবেশ করা যায়। মদিনা প্রবেশের পরবর্তী তারিখ দেয়া হয়েছে ১৮ আগস্ট। এতে করে অনেকেই তার আগে বিমান যাত্রা করতে পারছেন না।

শুরু থেকেই মোয়াল্লেম ফি নিয়ে ঝামেলা, ভিসায় দেরি, দ্বিতীয়বারে হজ¦ যাত্রীদের জন্য বাড়তি ফি, সৌদিতে বাসা ভাড়ায় দেরি এসব নানা অব্যবস্থাপনায় জর্জরিত এবারের হজ¦ যাত্রা।

অন্যদিকে এসব অনিয়ম তদন্ত করতে একটি কমিশন গঠনের ব্যাপারে আদালতে গতকাল রোববার একটি রিট করা হয়েছে।

আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে সৌদি আরবের সঙ্গে যোগাযোগ করে হজ¦যাত্রা নিয়ে যে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে তা নিরসন এবং যারা হজ¦ পালনের জন্য নির্বাচিত হয়েছেন তাদের হজ¦যাত্রা নিশ্চিত করার ব্যাপারে পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। সেই সঙ্গে এখন পর্যন্ত যাদের হজ¦ যাত্রায় শিডিউল বিপর্যয় হয়েছে এবং ভবিষ্যতে হতে পারে তাদের বিমান ভাড়া করে হজে¦ পাঠানোর নির্দেশনা দিয়েছেন আদালত।

গতকাল রোববার বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি মো. আতাউর রহমান খানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

পাশাপাশি ৪ সপ্তাহের রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। হজ¦ যাত্রীদের হজে¦ পাঠানো সংক্রান্ত যে অব্যবস্থাপনা, প্রশাসনের নিস্ক্রিয়তা কেন অবৈধ ঘোষণা করে হবে না রুলে তা জানতে চাওয়া হয়েছে। পররাষ্ট্র সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। একই সঙ্গে যারা এই অব্যবস্থাপনা এবং নিষ্ক্রিয়তার জন্য দায়ী তাদেরকে শনাক্ত করার জন্য ৪ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করতে বলেছেন আদালত। স্বরাষ্ট্রসচিব, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের একজন, বিমান ও ধর্ম মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিবের নিচে নয় এমন পদমর্যাদার দুইজনের সমন্বয়ে এই কমিটি গঠন করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এর আগে সকালে এই বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় হিউম্যান রাইটস এন্ড পিস ফর বাংলাদেশের পক্ষে অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ এ রিট দায়ের করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ