ঢাকা, বৃহস্পতিবার 24 August 2017, ০৯ ভাদ্র ১৪২8, ০১ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আপত্তিকর প্রশ্নপত্র তৈরিতে ১৩ শিক্ষক কারাগারে

সংগ্রাম ডেস্ক : চট্টগ্রামে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আপত্তিকর প্রশ্নপত্র তৈরির অভিযোগে করা রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় বোয়ালখালী উপজেলার হাজী আজগর আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ আলী ও কধুরখীল উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক আমীর হোসেনসহ দক্ষিণ চট্টগ্রামের ১৩ শিক্ষক নেতাকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।
বুধবার দুপুরে বাঁশখালী সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মো. সাজ্জাদ হোসেন এ আদেশ প্রদান করেন। আমাদের সময়.কম।
চট্টগ্রামের বাঁশখালী সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিজ্ঞ বিচারক দক্ষিণ চট্টগ্রামের ৬ উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির ১২ শিক্ষক নেতা ও এক প্রশ্নপত্র প্রণয়নকারীর জামিন আবেদন না মঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।
আদালত সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরের এপ্রিল মাসে অনুষ্টিত মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় বিষয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের সাথে কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প নির্মাণ বিরোধী ও গন্ডামারা ইউপির বসতভিটা এবং গোরস্থান রক্ষা কমিটির আহ্বায়ক এবং বিএনপি নেতা লেয়াকত আলীর সাথে তুলনা করে প্রথম সাময়িক পরিক্ষার প্রশ্নপত্র প্রণয়নের মাধ্যমে পরীক্ষার্থীদের মাঝে বিতরণ করে পরীক্ষা নেওয়া হয়।
অনুষ্ঠিত পরীক্ষার পর সামাজিক গণমাধ্যমে প্রতিবাদের ঝড় উঠে। বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনের দৃষ্টি গোচর হলে তৎক্ষণাত প্রশ্নপত্র নির্মাতাকারী বাঁশখালী বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক দুকুল বড়ুয়াকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পুলিশে সোপর্দ করে। পরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন সাপেক্ষে দক্ষিণ চট্টগ্রামের ছয় উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও সম্পাদক সহ প্রশ্নপত্র প্রণয়নকারীকে আসামী করে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা দায়ের করে রাষ্ট্রপক্ষ।
মামলা দায়েরের পর ১৩ শিক্ষক সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশন হতে তিন মাসের আগাম জামিন লাভ করে। বুধবার আগাম জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়ায় পুনরায় নিম্ন আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করেন অভিযুক্ত ১৩ শিক্ষক। দীর্ঘ শুনানী শেষে বিজ্ঞ আদালত ১৩ শিক্ষকের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ প্রদান করে।
 বোয়ালখালী উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. ইউনুচ জানান, অভিযুক্ত শিক্ষকদের বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদকে সুপারিশ করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ