ঢাকা, শুক্রবার 25 August 2017, ১০ ভাদ্র ১৪২8, ০২ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

মেঘনা নদীতে অবৈধ বালু উত্তোলনে বাধা দেওয়ায় মাছ ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে জখম

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) সংবাদদাতা:  নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার বৈদ্যেরবাজার খামারগাঁও এলাকায় মেঘনা নদীতে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনে বাঁধা দেয়ায় এক মাছ ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে জখম করেছে বালু উত্তোলনকারীরা। 

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে মাছের ঝোপের পাশ থেকে অবৈধ বালু উত্তোলনে বাধা দেয়ায় তাকে কুপিয়ে আহত করা হয়। এ ঘটনায় বিকেলে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের খামারগাঁও গ্রামের বাসিন্দা আমির হোসেনের ছেলে মাছ ব্যবসায়ী সজল মিয়া তার বাড়ির পাশর্^বর্তী মেঘনা নদীতে মাছ ধরার জন্য প্রায় ২০ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি ঝোঁপ নির্মাণ করে। শীত মৌসুমে ঝোপ থেকে মাছ ধরার কথা রয়েছে। 

মাছ ব্যবসায়ী সজল মিয়ার অভিযোগ, খামারগাঁও গ্রামের মফিজুল ইসলাম ও গোলজার মিয়ার নেতৃত্বে মঙ্গলবার দুপুরে ১০-১২ জনের একটি দল মেঘনা নদীর খামারগাঁও এলাকা থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে আসছিল। একপর্যায়ে বালু উত্তোলনকারীরা তার ঝোপের কাছ থেকে বালু উত্তোলন শুরু করে। ফলে ঝোপটির অধিকাংশ ভেঙে যায়। এসময় মাছ ব্যবসায়ী সজল মিয়া বালু উত্তোলনে বাধা দিতে গেলে তাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করে। পরে এলাকাবাসী মুমূর্ষ অবস্থায় মাছ ব্যবসায়ী সজল মিয়াকে উদ্ধার করে সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করে। এ ঘটনায় আহত সজল মিয়ার চাচা আক্তার হোসেন বাদী হয়ে বিকেলে সোনারগাঁ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

আহত মাছ ব্যাবসায়ী সজল মিয়া বলেন, আমার ঝোপের কাছ থেকে অবৈধভাবে বালু  উত্তোলনে বাধা দিলে সন্ত্রাসীরা আমাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা চালায়। এদিকে গোলজার মিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বিকার করেন তিনি। 

সোনারগাঁ থানার ওসি মোর্শেদ আলম জানান, মাছ ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করার ঘটনায় থানায় একটি অভিযোগ গ্রহণ করা হয়েছে। অভিযোগটি তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ