ঢাকা, শুক্রবার 25 August 2017, ১০ ভাদ্র ১৪২8, ০২ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

প্রধান বিচারপতির অনুষ্ঠান  বর্জনের ঘোষণা আ.লীগ  আইনজীবীদের

 

স্টাফ রিপোর্টার : প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহাকে অক্টোবরের মধ্যে পদত্যাগ করতে দাবি জানিয়েছে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ। এ সময়ে পদ্যতাগ না করলে অক্টোবরে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। একই সঙ্গে প্রধান বিচারপতির অনুষ্ঠান বর্জনের ঘোষণাও দিয়েছেন সংগঠনটির নেতারা।

গতকাল বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্ট বার ভবনের দক্ষিণ হলে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের এক সমাবেশে এই ঘোষণা দেয়া হয়। ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের পূর্ণাঙ্গ রায়ের পর্যবেক্ষণ প্রত্যাহারের দাবিতে ধারাবাহিক কর্মসূচির অংশ হিসেবে এই সমাবেশ করে আওয়ামী লীগ সমর্থক আইনজীবীরা। 

সমাবেশে সংগঠনের সদস্য সচিব ব্যারিস্টার ফজলে নুর তাপস প্রধান বিচারপতি শপথ ভঙ্গ করেছেন দাবি করে বলেন, শপথ ভঙ্গের কারণে তিনি আর সেই পদে আসীন থাকতে পারেন না। অক্টোবরের মধ্যে প্রধান বিচারপতিকে দায়িত্ব থেকে সরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, রায় দেয়ার সময় কেউ যদি রাগ-বিরাগ বা ভীত হয়ে রায় দেয়, সেই রায় কোনোদিনও আইনসিদ্ধ হতে পারে না এবং সেটাও একটি আইন ভঙ্গের শামিল। সুতরাং সবদিক থেকে আপনি অযোগ্য হয়ে গেছেন। এই প্রধান বিচারপতির পদটি ধরে রাখার আপনার আর কোনো যোগ্যতা নেই। তাই আগামী অক্টোবরের আগেই আপনি এই পদ থেকে চলে যাবেন।

অক্টোবরের মধ্যে প্রধান বিচারপতি দায়িত্ব না ছাড়লে ‘এক দফা এক দাবি’র আন্দোলন শুরুর ঘোষণাও আসে সমাবেশে। তাপস বলেন, প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার সাহেবের অপ্রাসঙ্গিক, অগণতান্ত্রি ও অপ্রাসঙ্গিক বক্তব্যগুলো এক্সপাঞ্জ করার আমরা যে সুনির্দিষ্ট আহ্বান রেখেছিলাম, সেই দিন আজ শেষে হচ্ছে। সুপ্রিম কোর্টে ছুটিতে (অবকাশে) যাচ্ছে। আগামী ৩ অক্টোবর আবার আমাদের কর্মজীবন শুরু হবে। তবু আমাদের আন্দোলন চলবে, সংগ্রাম চলবে এবং আমাদের এক দফা দাবিতে সেই আন্দোলনে আমরা সফল পরিণতির দিকে যাবে।

তাপস বলেন, একজন বিচারপতির যে কোড অব কনডাক্ট রয়েছে, সেটা পালনপূর্বক তিনি অচিরেই তার পদ থেকে পদত্যাগ করবেন বলেই আমরা এই সুনির্দিষ্ট দাবি রাখছি। প্রধান বিচারপতির সব অনুষ্ঠান এবং যেসব কর্মসূচিতে তিনি প্রধান অতিথি থাকবেন সেগুলো বর্জনের ঘোষণাও দেন তিনি। তাপস বলেন, ‘আমরা এসকে সিনহা সাহেবের সকল কর্মকান্ড, কর্মসূচি অবশ্যই বর্জন করব, প্রত্যাখ্যান করব এবং পরিহার করব। কোনো আইনজীবী তার (প্রধান বিচারপতির) কোনো প্রোগ্রামে যাবেন না।

আওয়ামী লীগের আইন সম্পাদক আইনজীবী শ ম রেজাউল করিম বলেন, ‘তিনি (প্রধান বিচারপতি) কথায় কথায় যে ভারতের তুলনা করেন সেই ভারতের সুপ্রিম কোর্টের একটি রায় তাদের সংসদ বাতিল করে দিয়েছে। এটা এস কে সিনহার না জানার কথা নয়। যদি সংসদ মনে করেন, উনি যে রায় দিয়েছেন তা অসঙ্গতিপূর্ণ, অনাকাঙ্খিত ও অপ্রত্যাশিত। তাহলে এ রায়তো সংসদও (বাংলাদেশের) বাতিল করে দিতে পারে।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য ও জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন বলেন, আপনাকে (প্রধান বিচারপতি) অবশ্যই বন্ধের (সুপ্রিম কোর্টের অবকাশ) মধ্যেই এই পর্যবেক্ষণ প্রত্যাহার করতেই হবে। তা না হলে, আমরা যে কর্মসূচি দেবো সেটা আপনি ভাবতেও পারছেন না। আইনজীবী সমাজকে নিয়ে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি, এগিয়ে যাব।

সমাবেশে সংসদ সদস্য সানজিদা খানম, সংসদ সদস্য নূর ইসলাম সুজন, আইনজীবী লায়েকুজ্জামান মোল্লা, আইনজীবী আজহার উল্লাহ ভূঁইয়া প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ