ঢাকা, শনিবার 26 August 2017, ১১ ভাদ্র ১৪২8, ০৩ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

খোলা আকাশের নিচে পাঠদান

ফটিকছড়ি সংবাদদাতা: ফটিকছড়ির রসুলপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পাঠদান দেওয়া হচ্ছে খোলা আকাশের নিচে। ফলে রোদ বৃষ্টিতে চরম কষ্টের সম্মুখিন হতে হচ্ছে উক্ত বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষার্থীদের। উপজেলা সদর থেকে প্রায় ৫০ কি.মিটার দূরে বাগান বাজার ইউনিয়নের প্রত্যন্ত দুর্গম এলাকার রসুলপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের মাটির দেয়াল দিয়ে তৈরী টিনশেডের ভবন গত ১২ আগস্ট সকালে প্রবল বর্ষণের ফলে বিধ্বস্ত হয়। এ সময় আহত হয় ৪ শিক্ষার্থী। এতে পাঠদান কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ে। এরপর থেকে পাঠদান বন্ধ না করে কোনভাবে খোলা আকাশের নিচে চলছে পাঠদান। বিশেষ করে শ্রেণী কক্ষের অভাবে বিদ্যালয়টির ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণির পাঠদান চলছে খোলা আকাশের নিচে। কোমলমতি  শিক্ষার্থীরা নানা দুর্ভোগের মধ্য দিয়ে গ্রহণ করছে পাঠ।  
জানা যায়, ১৯৯৫ সালে স্থানীয় শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিবর্গের উদ্যোগে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করা হয়। ২০০২ সালে বিদ্যালয়টির পাঠদানের অনুমোদন এবং ২০০৬ সালে একাডেমিক স্বীকৃতি লাভ করে। বিদ্যালয়ে শিক্ষক কর্মচারী রয়েছেন ১২ জন। প্রতি বছর জেএসসি ও এসএসসিতে বিদ্যালয়ের পাশের হার সন্তোষজনক।
সরেজমিনে দেখা যায়, কেউ পড়ছে, কেউ লিখছে, কেউবা আবার ব্যস্ত ঘাম মুছতে। শিক্ষকরাও পাঠদানে প্রতিনিয়ত হিমশিম। এমনি চিত্র প্রখর রোদের দিন। আর বৃষ্টির দিন কাটে পাঠদান বিহীন। আকাশ মেঘাচ্ছন্ন হলেই ছুটি দিয়ে বন্ধ রাখতে হয় শ্রেণি কার্যক্রম।
বিদ্যালয়ের এক কক্ষ বিশিষ্ট দু’টি সেমিপাকা ভবন ও দু’কক্ষ বিশিষ্ট মাটির দেয়াল দিয়ে তৈরী টিনশেডের ভবন রয়েছে। সেমিপাকা ভবনের একটি ব্যবহৃত হচ্ছে শিক্ষক মিলনায়তন হিসেবে, অন্যটিতে চলে অষ্টম শ্রেণি পাঠদান কার্যক্রম। মাটির দেয়াল দিয়ে তৈরী টিনশেডের ভবনটিতে ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণির কার্যক্রম চলতো। এটিই মূলত ধ্বসে পড়ে। বর্তমানে এ দু’শ্রেণির শিক্ষার্থীরা খোলা আকাশের নিচে পাঠ গ্রহন করছে।
অপরদিকে দীর্ঘদিন ধরে কক্ষের অভাবে নবম ও দশম শ্রেণির পাঠদান চলে পার্শ্ববর্তী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কক্ষে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ