ঢাকা, রোববার 27 August 2017, ১২ ভাদ্র ১৪২8, ০৪ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

অস্ট্রেলিয়াকে ২-০তে হারানোর সামর্থ্য আমাদের আছে -মুশফিক

স্পোর্টস রিপোর্টার : আজ থেকে মিরপুরে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া প্রথম টেস্ট।  মাঠের লড়াইয়ের আগে এখন চলছে শেষ সময়ের নানান হিসাব-নিকাশ।  বাংলাদেশ দল যদি সিরিজটি ২-০ তে জিতে নিতে পারে তবে টেস্ট র‌্যাংকিংয়ে প্রথমবারের মতো আটে উঠে আসবে টাইগাররা।  ফলে অস্ট্রেলিয়াকে টেস্টে ২-০ ব্যবধানে হারাতে চায় বাংলাদেশ।  কোচ হাথুরুসিংহে এবং সাকিব আল হাসান মিডিয়ার সামনে তা-ই বলেছেন।  তাদের মতোই টেস্ট শুরুর আগেদিন গতকাল একথা বললেন অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমও।  গতকাল মিরপুরে টেস্ট সিরিজ শুরুর আগে সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক মুশফিক রহিম বলেন,  ‘অস্ট্রেলিয়াকে ২-০তে হারানোর সামর্থ্য আছে আমাদের।  গত দুই বছরে আমরা ভালো ক্রিকেট খেলেছি।  নিজেদের মাটিতে ইংল্যান্ডকে হারিয়েছি।  কয়েক মাস আগে শ্রীলংকায় গিয়ে লঙ্কানদের বিপক্ষে নিজেদের শততম টেস্টে জয় পেয়েছি।  তার মানে,  আমাদের জেতার মতো শক্তি আছে। ’  মুশফিক বলেন,   ‘এখানে আমরা খেলব হোম কন্ডিশনে।  যদিও টানা বৃষ্টিতে উইকেট তৈরির কাজটা বিঘ্নিত হয়েছে।  উইকেটের চরিত্র নিয়ে তাই কিছুটা ধোয়াটে অবস্থা আছে।  তবে আমার মনে হয়,  আমাদের যে শক্তির জায়গাগুলো আছে; সেগুলোর সঠিক প্রয়োগ ঘটাতে পারলে অবশ্যই জেতা সম্ভব।  আমি মনে করি,  আমাদের বোলিংটা বেশ ভালো।  শুধু স্পিন ডিপার্টমেন্ট নয়,  পেস বোলিংটাও ভালো।  ব্যাটিংয়ে বেশ কয়েজন স্কিলড ব্যাটসম্যান আছে।  এখন জায়গামতো সামর্থ্যওে সঠিক প্রয়োগ ঘটাতে পারলেই সাফল্যের দেখা মিলবে। ’  অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হোয়াইটওয়াশের কথা বললেও কিছুটা ভয় আছে বাংলাদেশেরও।  অধিনায়ক বলেন,   ‘দুই দলের শক্তির ভারসাম্য ৫০/৫০।  লিওন,  হ্যাজেলউড ও কামিন্সকে সামলানোর মতো ব্যাটসম্যান আমাদের আছে।  তবে অস্ট্রেলিয়া পেশাদার দল।  যারা সহজে হার মানতে চায় না।  সেই দলের সঙ্গে ঘরের মাঠে আমাদের এগিয়ে থাকার জায়গা হচ্ছে অভিজ্ঞতা।  আমার মতে,  আমরা অভিজ্ঞতার দিক থেকে এগিয়ে। ’ এই টেস্ট সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবালের পঞ্চাশতম টেস্ট।  সে সম্পর্কে মুশফিক বলেন,   ‘সাকিব-তামিম বাংলাদেশ ক্রিকেট ইতিহাসের দুই উজ্জ্বল তারকা।  আমাদের বড় নির্ভরতাও।  তারা ৫০তম টেস্ট খেলছে,  গোটা দলের েেসই ব্যাপারটা মাথায় আছে।  আমরা চাই,  এই ম্যাচে ভালো কিছু করে সাবিক-তামিমকে উপহার দিতে।  পুরো দল ভালো খেলে সাফল্য পেলে সাকিব-তামিমের জন্য ভালো গিফট হবে।  আমার বিশ্বাস,  সাকিব-তামিমও এই ম্যাচটি স্মরণীয় করে রাখতে নিজেদের উজাড় করে দেবে। ’  নিজের ব্যক্তিগত লক্ষ্য নিয়ে মুশফিকের বলেন,   ‘ব্যাটিংয়ে চার ইনিংসে যতটা সম্ভব ভালো খেলা যায়।  সে চেষ্টাটাই করব।  এ ছাড়া অন্যান্য কাজগুলোও ঠিকমতো করব,  যাতে দলের জন্য ভালো খেলতে সহায়ক হয়। ’  দল নির্বাচন নিয়ে কোচের সমস্যার কথা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মুশফিক বলেন,   ‘দল নিয়ে কোচ টুইটারে কী লিখেছেন,  তা দেখিনি।  কারণ আমি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খুব কমই সম্পৃক্ত।  তবে এটা সত্যি যে,  দল সাজানো নিয়ে খানিকটা সমস্যায় আছি আমরা।  এখনই বলা যাচ্ছে না টিম কম্বিনেশন কী হবে।  আমরা শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত উইকেট দেখব।  তারপর কম্বিনেশনের আলোকে একাদশ সাজাব। ’  বাংলাদেশ দলের বোলিং নিয়ে অবশ্য কিছুটা দুশ্চিন্তায় অধিনায়ক,   ‘আমাদের দলের বোলিং আক্রমণ অনভিজ্ঞ। ওদের কয়েকজন অভিজ্ঞ বোলার আছে।  পাশাপাশি কয়েকজন খুব ভালো ব্যাটসম্যানও আছে।  আমার মনে হয়,  মাঠে যারা পরিকল্পনা ভালোভাবে প্রয়োগ করতে পারবে,  তারাই এগিয়ে থাকবে।  বিশেষ করে প্রথম ইনিংসটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। ’  ম্যাচের ফল যা-ই হোক,  ভালো পারফরম্যান্সের ধারাবাহিকতা ধরে রাখাই মুশফিকের লক্ষ্য।  তিনি বলেন,  ‘গত আড়াই বছরের ধারাবাহিক পারফরম্যান্স আজ আমাদের এখানে নিয়ে এসেছে।  দু-একটা ম্যাচ জেতার জন্য নয়,  ধারাবাহিকতার জন্য ক্রিকেট বিশ্ব আমাদের সমীহ করছে।  বেশ কিছু দিন ধরেই হোম কন্ডিশনে আমরা ভালো খেলছি।  ২-০ ব্যবধানে সিরিজ জয় অবশ্যই সম্ভব,  কিন্তু সেজন্য আমাদের অনেক লড়াই করতে হবে।  কারণ আমরা এমন একটা দলের সঙ্গে খেলছি,  যারা শেষ পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যেতে সক্ষম।’   ব্যাট-বলের লড়াইয়ের পাশাপাশি অন্যতম আলোচিত বিষয় আবহাওয়া।  আবহাওয়ার পূর্বাভাস,  বৃষ্টি হতে পারে আগামী কয়েক দিন।  এমনকি প্রথম টেস্টের পাঁচ দিনই বৃষ্টির শঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।  মুশফিকুর রহিমের মনেও আবহাওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তা।  মুশফিক বলেন, ‘আবহাওয়া আমাদের হাতে নেই। আমরা পেশাদার ক্রিকেটার, আমাদের আবহাওয়ার সঙ্গে মানিয়ে খেলতে হবে।  তবে এটা ঠিক, বৃষ্টিতে বার বার খেলা থামলে ব্যাটিং করা একটু কঠিন হয়ে পড়ে।  এ ম্যাচে তাই আবহাওয়া বড় ভূমিকা রাখতে পারে।’ শুধু আবহাওয়া নয়,  দুর্ভাবনা আছে মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামের উইকেট নিয়েও। গত ডিসেম্বরে বিপিএলের পর মিরপুরে কোনও ম্যাচ হয়নি। এ বছর এটাই বাংলাদেশের প্রথম হোম সিরিজ।  এমনিতেই মিরপুরের উইকেটের  ‘চরিত্র’ বোঝা কঠিন। তার ওপর ব্যাপক সংস্কার কাজের ফলে হোম অব ক্রিকেটের উইকেট  ‘দুর্বোধ্য’ বলে মনে হচ্ছে মুশফিকের।  উইকেট নিয়ে মুশফিক বলেন, ‘যদিও আমরা এখানে অনুশীলন করার সুযোগ পেয়েছি,  তবু উইকেট নিয়ে অনুমান করা কঠিন। এরকম আবহাওয়ায় উইকেটের ধরন সব সময় পরিবর্তন হতে থাকে। তবে আমরা এখানে অনেক দিন ধরে অনুশীলন করছি, অনেক ম্যাচ খেলেছি। তাই ওদের চেয়ে আমরা একটু হলেও এগিয়ে।  আমরা চেষ্টা করবো ব্যাটিং-বোলিং- ফিল্ডিং তিন বিভাগেই ভালো খেলার।  প্রত্যেক বল আর সেশন ধরে ধরে খেলতে হবে।’  র‌্যাংকিংয়ে আটে উঠে আসার বিষয়টি মাথায় আছে কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে মুশফিক বলেন, ‘এটা তো  ‘ব্যাক অব দ্য মাইন্ড’  সব সময় থাকে।  সত্যি বলতে কি,  অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আমাদের খেলার সুযোগ হয়নি। এখন যদি আমরা তাদের বিপক্ষে ভালো খেলি,  সেটা আমাদের জন্য ভালো হবে; এটাই বেশি গুনুত্বপূর্ণ।  আমরা যদি প্রতিটি সেশন খুব ভালো খেলি,  ফলাফল আমাদের পক্ষে আসবে,  ইনশাল্লাহ!’  এদিকে অস্ট্রেলিয়া যদি বাংলাদেশের সাথে ম্যাচ দু'টি ড্র করে কিংবা ১-০ তে হেরে যায় তবে তারা নেমে যাবে পাঁচে।  আর যদি ২-০ তে হেরে যায়,  তবে নেমে যাবে ছয়ে।  ফলে অস্ট্রেলিয়ার জন্য টেস্ট দু'টি সম্মানের লড়াই হয়ে দাঁড়িয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ