ঢাকা, মঙ্গলবার 29 August 2017, ১৪ ভাদ্র ১৪২8, ০৬ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ধর্ষণের দায়ে ভারতের কথিত ধর্মগুরু রাম রহিমের ১০ বছরের কারাদণ্ড

 

সংগ্রাম ডেস্ক : ধর্ষণের দায়ে কথিত ধর্মগুরু রাম রহিম সিংকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে ভারতের একটি আদালত।

গতকাল সোমবার বিকেল ৩টা ২৫ মিনিটে এ দণ্ড ঘোষণা করা হয়।

এ রায়কে বিরলের বিরলতম ঘটনা বলে মন্তব্য করেছে সিবিআই।

এদিকে রায়ের পর দুটি গাড়িতে আগুন দিয়েছে কথিত ধর্মগুরুর সমর্থকেরা। তবে ওই ধর্মগুরুর আস্তানার চেয়ারপারসন বিপাস্যনা ইনসান তাদের অনুসারীদের শান্তি বজায় রাখতে বলেছেন।

ভারতের সংবাদমাধ্যম বলছে, রায় ঘোষণার পর কান্নায় ভেঙে পড়লেন ধর্ষক রাম রহিম সিং। এ সময় হাত জোড় করে বিচারকের কাছে ক্ষমা প্রার্থনাও করেন তিনি।

জানা গেছে, গতকাল সোমবার দুপুর আড়াইটায় ভারতের রোহতকের সুনারিয়ার জেলখানার ভেতরের বিশেষ আদালতে সাজা ঘোষণার প্রক্রিয়া শুরু হয়। দুপুর সোয়া দুইটার দিকে সেখানে পৌঁছেন বিচারক জগদীপ সিংহ।

ওই জেলেই বন্দী রাম রহিম। নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে জেলের ভেতর রায় ঘোষণার জন্য ওই আদালত বসে।

দুপুর পৌনে দুটো নাগাদ কপ্টারে জেলে প্রবেশ করলেন দু’পক্ষের আইনজীবীরা।

রায় ঘোষণার আগে বিশেষ আদালতে দু’পক্ষের আইনজীবীকে ১০ মিনিট করে বলার সময় দেন বিচারক জগদীপ সিং।

এ সময় রাম রহিমের আইনজীবীরা আদালতকে বলেন, রাম রহিম একজন সমাজসেবক। জনগণের কল্যাণের জন্য তিনি কাজ করেন। এ জন্য বিচারকদের অনুরোধ করেন দণ্ড কমিয়ে দিতে।

এদিকে জেলের বাইরের নিরাপত্তায় প্রায় ৩ হাজার আধা সামরিক বাহিনী মোতায়েন ছিল। রায়কে কেন্দ্র করে এদিন জেলের দিকের সমস্ত রাস্তা বন্ধ দেয়া হয়।

 রোহতকের পুলিশের ডেপুটি কমিশনার জানিয়েছেন, কেউ বিশৃঙ্খলা বাঁধানোর চেষ্টা করলে একবার সতর্ক করা হবে, না শুনলেই গুলী।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম বলছে, বিশৃঙ্খলা এড়াতে হরিয়ানা ঘেঁষা পঞ্জাব এবং গাজিয়াবাদ ও নয়ডাতেও স্কুল, কলেজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ফলে সোমবার হরিয়ানার সমস্ত স্কুল, কলেজ বন্ধ রয়েছে।

ধর্ষণ মামলায় দোষী সাব্যস্ত হয়ে রোহতকের সুনারিয়ার জেলে বন্দী ডেরা সচ্চা সৌদার প্রধান, গুরমিত রাম রহিম সিং।

গত শুক্রবার সিবিআইয়ের বিশেষ আদালতের রায়ে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন রাম রহিম। রায় বের হতেই ডেরা সমর্থকদের লাগামছাড়া তাণ্ডবে মৃত্যু হয়েছে অন্তত ৩৮ জনের।

 ডেরা সমর্থকদের না ঠেকাতে পারায় আঙুল উঠেছে প্রশাসনের দিকে। সে দিনের কথা মাথায় রেখে আর কোনও রকম ঝুঁকি নিতে চাইছে না প্রশাসন। নিরাপত্তার স্বার্থে জেলের মধ্যেই উড়িয়ে নিয়ে আসা হচ্ছে বিচারকসহ গোটা আদালত।

তিনস্থরের নিরাপত্তা বলয়ে মুড়ে ফেলা হয়েছে গোটা রোহতক। সিবিআইয়ের বিশেষ আদালতের সেই বিচারক জগদীপ সিংহকে ইতিমধ্যেই বিশেষ নিরাপত্তা দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

বিশৃঙ্খলা ঠেকাতে ইতিমধ্যেই আটক করা হয়েছে প্রায় হাজার খানেক ব্যক্তিকে। ডেরার সদর দফতর থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে ৩০ হাজার ভক্তকে।

 জেলায় মোতায়েন করা হয়েছে ২৮ কোম্পানি আধা সামরিক বাহিনী।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ