ঢাকা, মঙ্গলবার 29 August 2017, ১৪ ভাদ্র ১৪২8, ০৬ জিলহজ্ব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

প্রধান বিচারপতি সংখ্যালঘু হওয়াতেই পদত্যাগে চাপ দেয়া হচ্ছে

স্টাফ রিপোর্টার : সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের লোক হওয়ায় ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়কে কেন্দ্র করে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহাকে হেয় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট। তিনি হিন্দু হওয়ার কারণেই পদত্যাগে চাপ দিচ্ছে সরকার। এভাবে চাপ দেয়া অসাংবিধানিক।

গতকাল সোমবার ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটিতে এক সাংবাদিক সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন সংগঠনের মহাসচিব গোবিন্দ চন্দ্র প্রামানিক। সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের ষোড়শ সংশোধনীর রায়কে কেন্দ্র করে দেশের প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহাকে কুরুচিপূর্ণ, অশালীন, মর্যাদাহানিকর বক্তব্য, তাকে দেশত্যাগের হুমকি ও বিচারবিভাগের উপর নগ্ন হস্তক্ষেপের অভিযোগ এনে এর প্রতিবাদে সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

 মহাজোট নেতৃবৃন্দ অভিযোগ করেন, প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা এদেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের একজন হওয়ার কারণে তাকে হেয় করা হচ্ছে। কেননা অন্য একজন বিচারপতি তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা উঠিয়ে দিয়েছিলেন। এতে দেশের বেশিরভাগ মানুষ আহত হলেও তার বিরুদ্ধে এধরনের প্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি। আদালতের ওই রায় ও পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে এতে এমন কিছু নেই যা সরকারি দলকে ক্ষিপ্ত করে।

 রায়ে বঙ্গবন্ধুকে কোনোভাবেই খাটো করা হয়নি। তিনি তার বিচারক জীবনের প্রজ্ঞা, সততা ও নিষ্ঠার সাথে বিচার কাজ করেছেন যা সর্বমহলে প্রশংসিত হয়েছে। তিনি মেধা ও যোগ্যতার বদলেই প্রধান বিচারপতি হতে পেরেছেন। কারো দয়া-দাক্ষিণে নয়। কাউকে ওভারটেক করে তাকে প্রধান বিচারপতি করা হয়নি।

গোবিন্দ চন্দ্র প্রামানিক বলেন, সরকার অন্যায়ভাবে প্রধান বিচারপতিকে পদত্যাগের জন্য চাপ দিচ্ছেন। এটি অসাংবিধানিক। এভাবে চাপ দেয়া আদালত অবমাননায় শামিল। আমরা তার এই পাশে আছি।

তিনি বলেন, এই সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে হিন্দুদের ওপর নানাভাবে নির্যাতন করা হচ্ছে। হিন্দুদের বাড়ি ঘর দখল করা হচ্ছে। অনেক জায়গায় বাড়ি ঘর জ¦ালিয়ে দেয়া হচ্ছে। এসব অন্যায়ের প্রতিবাদ আমরা করেছি। কিন্তু সরকার কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। এখনও আবার সরকার প্রধান বিচারপতিকে নিয়ে ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। তিনি হিন্দু হওয়ার কারণে সরকার তাকে হেয় করছে। এটি কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না।

তিনি আরও বলেন, নাগরিকের অধিকার ফেরাতে তিনি এ রায় দিয়েছেন। এতে বলা হয়েছে রাষ্ট্রের দেশের জনগণ। আর দেশ স্বাধীন করেছে দেশের জনগণ। এটি কোনো একক নেতুত্বে হয়নি। আর এ কথা দ্বারা তিনি কাউকে খাটো কিংবা ছোট করেন নি। সরকার এই রায়ের ভুল ব্যাখ্যা করেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ